শিরোনাম: যশোরে আক্রান্ত হাজার ছাড়াল       মণিরামপুরে কালোবাজারে চাল বিক্রির মামলায় আটক কুদ্দুসের আদালতে স্বীকারোক্তি       পাওনা টাকা চাওয়ায় হত্যার হুমকি নিরাপত্তাহীনতায় জুয়েলের পরিবার       ঈদের ছুটি ৩ দিন, কর্মস্থল ত্যাগ করা যাবে না       ৭ মার্চ ‘জাতীয় ঐতিহাসিক দিবস’       বাড়ি বসে পাবে ৪০ প্যাকেট করে বিস্কুট       সাতক্ষীরার এমপি মোস্তাক আহমেদ করোনায় আক্রান্ত        ভাই-ভাইপোদের ভয়ে বাড়িতে পাহারাদার নিয়োগ!       বেনাপোল কাস্টম হাউজের তিন কর্মকর্তা বরখাস্ত       ঝিনাইদহে ১০ লাখ টাকার ভেজাল কসমেটিকস উদ্ধার, দু’জনের জেল       
সন্ত্রাসী হামলায় কালিয়া এখন আতঙ্কিত জনপদ
দেড় শতাধিক বাড়ি ভাংচুর লুটপাট ধর্ষণ, অসংখ্য পরিবার ঘরছাড়া
আব্দুল কাদের, নড়াইল অফিস
Published : Saturday, 30 May, 2020 at 10:35 PM
সন্ত্রাসী হামলায় কালিয়া এখন আতঙ্কিত জনপদগোষ্ঠিগত দ্ব›েদ্ব ইউপি সদস্য কাইয়ুম সিকদার খুনের জেরে নড়াইলের কলাবাড়িয়া এলাকা আতঙ্কের জনপদে পরিণত হয়েছে। কলাবাড়িয়া, বিলাফোর, মুলখানা, কালিনগর গ্রামব্যাপী সন্ত্রাসী তান্ডব চলছে। প্রতিপক্ষ পরিবারগুলোর দেড় শতাধিক বাড়িঘরে নারকীয় ধ্বংসযজ্ঞ চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলা, হুমকির মুখে আতঙ্কিত মানুষের গ্রাম ছাড়া অব্যাহত রয়েছে। অবশ্য পুলিশের দাবি পরিস্থিতি তাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।
এদিকে, নিহতের ছেলে নাইমুল ইসলাম মিল্টন শুক্রবার রাত ৮টার দিকে নড়াগাতি থানায় ৪৫ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এই মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে কলাবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহামুদুল হাসান কায়েসকে।  
গ্রামজুড়ে ধ্বংসের চিহ্ন দেখে কোনো সুপার সাইক্লোনের তান্ডব মনে হলেও ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, সন্ত্রাসের ভয়াল থাবায় সবকিছু এভাবে তছনছ হয়ে গেছে। এলাকার অধিপত্য নিয়ে কলাবাড়িয়া সবুর ফকির মোল্যা ও ইউ পি সদস্য কাইয়ুম সিকাদার পক্ষের মধ্যে দ্ব›েদ্ব ২৬ মে কাইয়ুম সিকদার খুন হন। এর জেরে কাইয়ুম পক্ষের লোকেদের হামলায় দু’দিন আগেও সাজানো গোছানো সংসারগুলো এক একটি ধ্বংসস্তুুপে পরিণত হয়েছে। রাত নামলেই দুর্বৃত্তরা বাড়ি বাড়ি হানা দিয়ে প্রতিপক্ষের সহায়-সম্বল লুটে নিচ্ছে। এ অবস্থায় শতাধিক পরিবার ইতোমধ্যে ভিটেমাটি ফেলে পালিয়েছে। হামলা ও হুমকির মুখে প্রতিদিনই আতঙ্কিত মানুষ গ্রাম ছাড়ছেন। চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভিটেমাটি আঁকড়ে থাকা ভুক্তভোগী মানুষেরা নিজেদের ওপর ঘটে যাওয়া বর্বরতার বিচার দাবি করছেন।
কলাবাড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান কায়েস বলেন, ‘আমি ১৯৯৭ সাল থেকে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান। আমার জনপ্রিয়তায় ইর্ষান্বিত হয়ে কতিপয় লোক আমার বিরোধিতা করে। শুধুমাত্র রাজনৈতিক কারণে এই হত্যাকান্ডে আমাকে আসামি করেছে। আমি বিগত প্রায় দেড় বছর এলাকা ছেড়ে নড়াইল কোর্টে আইন পেশায় নিযুক্ত আছি। ঘটনার দিন আমি নড়াইলে ভার্জুয়াল কোর্টে মামলা করছিলাম। এমন সময় হত্যাকান্ড ঘটেছে। সেই মামলায় আমাকে ঘটনাস্থলে উপস্থিত দেখিয়ে আমার নামে মামলা করা হয়েছে।’
তিনি জানান, হত্যা পরবর্তী সময়ে এলাকার চারটি গ্রামে প্রায় দেড় শতাধিক বাড়িতে হামলা করে ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেয়া, লুটপাট করাসহ এলাকার নীরিহ মানুষের কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি সাধন করা হয়েছে। হামলা চলাকালে ধর্ষণের মতো ঘটনাও ঘটেছে বলে তিনি দাবি করেন। একইসাথে তিনি কাইয়ুম শিকদারের খুনের ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানান।
নড়াইলের সহকারী পুলিশ সুপার রিপন সরকার বলেন, হত্যা পরবর্তী কিছু সহিংসতা সংঘঠিত হলেও তাদের তৎপরতায় বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। তদন্ত করে প্রকৃত দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে ।
কাইয়ুম সিকদার জানান, খুনের ঘটনায় চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান কায়েসসহ ৪৫ জনের নামে নিহতের ছেলে মাইনুল ইসলাম মিল্টন বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন।
উল্লেখ্য, গত ২৬ মে রাত পৌনে ৯টার দিকে কলাবাড়িয়া ইউনিয়নের তিন নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা আব্দুল কাইয়ুম সিকদার ও নড়াগাতি থানা কৃষক লীগের সভাপতি মোল্যা আবুল হাসনাতসহ চারজন দু’টো মোটরসাইকেলে কালিয়া থেকে কলাবাড়িয়া গ্রামে বাড়ি ফিরছিলেন। তারা কালিনগর গ্রামে পৌঁছালে ওৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা বাঁশ দিয়ে সড়ক আটকে তাদের গতিরোধ করে। সন্ত্রাসীদের এলোপাতাড়ি কোপে নিহত হন কাইয়ুব সিকদার। গুরুতর আহত হন হাসান মোল্যা, সজিব মল্লিক ও মতিয়ার মল্লিক।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft