gramerkagoj
বুধবার ● ২৪ জুলাই ২০২৪ ৮ শ্রাবণ ১৪৩১
gramerkagoj
সৈয়দ আব্দুল হাদীর জন্মদিন আজ
প্রকাশ : সোমবার, ১ জুলাই , ২০২৪, ১০:৫৮:০০ এএম , আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই , ২০২৪, ০১:২১:৫৯ পিএম
কাগজ ডেস্ক ::
GK_2024-07-01_66823c086cc61.jpg

বরেণ্য কণ্ঠশিল্পী, সংগীত ব্যক্তিত্ব সৈয়দ আব্দুল হাদীর আজ জন্মদিন। তিনি বাংলাদেশের বিখ্যাত একজন সংগীতশিল্পী। তিনি পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। ২০০০ সালে সঙ্গীতে অবদানের জন্য তিনি বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদক লাভ করেন।
সৈয়দ আব্দুল হাদী ১ জুলাই, ১৯৪০ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা উপজেলার শাহপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বেড়ে উঠেছেন আগরতলা, সিলেট, ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং কলকাতায়। তবে তার কলেজ জীবন কেটেছে রংপুর আর ঢাকায়। স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেছেন বাংলা সাহিত্যে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তার পিতার নাম সৈয়দ আবদুল হাই। তার পিতা গান গাইতেন আর কলেরগানে গান শুনতে পছন্দ করতেন। বাবার শখের গ্রামোফোন রেকর্ডের গান শুনে কৈশোরে তিনি সঙ্গীত অনুরাগী হয়ে উঠেন। ছোটবেলা থেকে গাইতে গাইতে গান শিখেছেন।
‘যেও না সাথী, চলেছো একেলা কোথায়’, ‘চক্ষের নজর এমনি কইরা একদিন খইয়া যাবে’, ‘একবার যদি কেউ ভালোবাসতো’, ‘চলে যায় যদি কেউ বাঁধন ছিঁড়ে কাঁদিস কেন মন’, ‘জন্ম থেকে জ্বলছি মাগো আর কতদিন বলো সইবো’, ‘আছেন আমার মোক্তার আছেন আমার ব্যারিস্টার’, ‘এমনও তো প্রেম হয়’, ‘যে মাটির বুকে ঘুমিয়ে আছে’ ‘চোখ বুঝিলে দুনিয়া আন্ধার’সহ অসংখ্য জনপ্রিয় ও কালজয়ী গান উপহার দিয়েছেন কিংবদন্তি কণ্ঠশিল্পী সৈয়দ আব্দুল হাদী।
ষাটের দশক থেকে শুরু হয়েছিল সৈয়দ আব্দুল হাদীর সংগীত ভুবনে পথচলা। সেই শুরু এবং এখনও তা অব্যাহত আছে। রেডিও, টেলিভিশন, চলচ্চিত্র, ক্যাসেট, সিডি প্রতি মাধ্যমে ছিল তার বিচরণ।
গান ছাড়াও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতার পাশাপাশি প্রযোজক হিসেবে কাজ করেছেন বাংলাদেশ টেলিভিশনে। সর্বশেষে তিনি লন্ডনে ওয়েল্স ইউনিভার্সিটিতে প্রিন্সিপাল লাইব্রেরীয়ান হিসেবে কাজ করেছেন। সঙ্গীতে অবদানের জন্য গুণী এই শিল্পী একাধিকবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের পাশাপাশি দেশ-বিদেশের অনেক পুরস্কার পেয়েছেন।
সৈয়দ আবদুল হাদী দেশাত্ববোধক গানের জন্য জনপ্রিয়। পঞ্চাশ বছরেরও বেশি সময় ধরে তিনি সঙ্গীত করছেন। ১৯৬০ সালে ছাত্রজীবন থেকেই চলচ্চিত্রে গান গাওয়া শুরু করেন। ১৯৬৪ সালে সৈয়দ আবদুল হাদী একক কণ্ঠে প্রথম বাংলা সিনেমায় গান করেন। সিনেমার নাম ছিল ‘ডাকবাবু’। মো. মনিরুজ্জামানের রচনায় সঙ্গীত পরিচালক আলী হোসেনের সুরে একটি গানের মাধ্যমে সৈয়দ আবদুল হাদীর চলচ্চিত্রে যাত্রা শুরু।
বেতারে গাওয়া তার প্রথম জনপ্রিয় গান ‘কিছু বলো, এই নির্জন প্রহরের কণাগুলো হৃদয়মাধুরী দিয়ে ভরে তোলো’। সালাউদ্দিন জাকি পরিচালিত ঘুড্ডি চলচ্চিত্রের গানে সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছিলেন লাকী আখ্ন্দ। এই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় গান ‘সখি চলনা, সখি চলনা জলসা ঘরে এবার যাই’- গেয়েছেন সৈয়দ আবদুল হাদী।
বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সার্ধশত জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে প্রকাশিত হয় সৈয়দ আবদুল হাদীর প্রথম রবীন্দ্র সংগীতের একক অ্যালবাম ‘যখন ভাঙলো মিলন মেলা’। সৈয়দ আবদুল হাদী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা নিয়ে অনার্স পড়ার সময় সুবল দাস, পি.সি গোমেজ, আবদুল আহাদ, আবদুল লতিফ প্রমুখ তাকে গান শেখার ক্ষেত্রে সহায়তা ও উৎসাহ যুগিয়েছেন।

আরও খবর

🔝