gramerkagoj
সোমবার ● ২৭ মে ২০২৪ ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
gramerkagoj
মতামত
জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস-২০২৪
প্রকাশ : রবিবার, ২৮ এপ্রিল , ২০২৪, ০১:৩০:০০ এ এম , আপডেট : রবিবার, ২৬ মে , ২০২৪, ১২:১৮:৫৯ পিএম
মোঃ গোলাম কবির:
GK_2024-04-27_662cfe0d51957.png

আজ ২৮ এপ্রিল; জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস। “স্মার্ট লিগাল এইড, স্মার্ট দেশ বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ” এই প্রতিপাদ্য কে সামনে রেখে যথাযথ মর্যাদায় সারাদেশে জাতীয়ভাবে আইনগত সহায়তা দিবস পালিত হচ্ছে।
গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় গণতন্ত্রকে সুসংহত রূপ প্রদানের জন্য এবং গণতান্ত্রিক সংস্কৃতির ভিত্তি অধিকতর মজবুত করার লক্ষ্যে শক্তিশালী বিচার ব্যবস্থা থাকা প্রয়োজন। স্বচ্ছ ও জবাবদিহিমূলক শক্তিশালী বিচার ব্যবস্থায় দেশের আপামর জনগোষ্ঠীর জন্য বিচার প্রাপ্তির ক্ষেত্রে তাদের সহজ অধিগম্যতা প্রয়োজন। এজন্য দেশের নাগরিকদের জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে এমনকি অনগ্রসর জনগোষ্ঠী, আর্থিকভাবে অসচ্ছল সহায়-সম্বলহীন এবং নানাবিধ আর্থসামাজিক কারণে বিচার প্রাপ্তিতে অসমর্থ্য বিচার প্রার্থী জনগণকে আইনগত সহায়তা প্রদানকল্পে বাংলাদেশ সরকার ২০০০ সালে আইনগত সহায়তা প্রধান আইন,২০০০ প্রনয়ণ করেন। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের তৃতীয় ভাগের ২৭ নং অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে” সকল নাগরিক আইনের দৃষ্টিতে সমান এবং আইনের সমান আশ্রয় লাভের অধিকারী।” তবে অনেকেই অজ্ঞতা, আইনের জটিলতা, আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে অনেক সময় ন্যায় বিচার প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হয়ে থাকেন। অন্তত: আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে কেউ যেন বিচার বঞ্চিত না হন সেদিকে এবং সাংবিধানের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে জনবান্ধব এই আইন প্রনয়ণ করা হয়।
এ আইনের অধীনে অসচ্ছল বা আর্থিকভাবে অসচ্ছল ব্যক্তি তার বার্ষিক গড় আয় সুপ্রিম কোর্টে আইনগত সহায়তা প্রদানের ক্ষেত্রে ১৫০,০০০/ টাকা এবং অন্যান্য আদালতের ক্ষেত্রে ১০০০০০/ টাকার উর্ধ্বে নয়; কর্মে অক্ষম, আংশিক কর্মক্ষম, কর্মহীন কোন ব্যক্তি । বার্ষিক ১৫০০০০/ টাকার উর্ধ্বে আয় করতে অক্ষম কোন মুক্তিযোদ্ধা; কোন শ্রমিক যার বার্ষিক গড় আয় ১০০০০০/ টাকার উর্ধ্বে নয়; কোন শিশু; মানব পাচারের শিকার কোন ব্যক্তি; শারীরিক, মানসিক এবং যৌন নির্যাতনের শিকার নারী ও শিশু; নিরাশ্রয় বা ভবঘুরে; ক্ষুদ্র জাতিসত্তা বা নৃগোষ্ঠী বা সম্প্রদায়ের কোন ব্যক্তি; পারিবারিক সহিংসতার শিকার বা সহিংসতার ঝুঁকিতে রয়েছেন; বয়স্ক ভাতা গ্রহণকারী; ভিজিডি কার্ডধারী কোন দুঃস্থ মাতা ; দুর্বৃত্ত কর্তৃক অ্যাসিড দগ্ধ নারী বা শিশু; আদর্শ গ্রামে গৃহ বা ভূমি বরাদ্দ প্রাপ্ত কোন ব্যক্তি ;অসচ্ছল বিধবা; স্বামী পরিত্যক্তা এবং দুঃস্থ মহিলা; প্রতিবন্ধী; আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে আদালতে অধিকার প্রতিষ্ঠা বা আত্মপক্ষ সমর্থন করতে অসমর্থ ব্যক্তি; বিনা বিচারে আটক ব্যক্তি যিনি আত্মপক্ষ সমর্থনের যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণে আর্থিকভাবে অসচ্ছল; আদালত কর্তৃক আর্থিকভাবে অসহায় বা অসচ্ছল বলে বিবেচিত ব্যক্তি; জেল কর্তৃপক্ষ কর্তৃক আর্থিকভাবে অসহায় বা অসচ্ছল বলে সুপারিশ কৃত ব্যক্তিগণ আইনগত সহায়তা পেয়ে থাকেন। মামলা দায়ের থেকে শুরু করে মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি পর্যন্ত ব্যয়ভার সরকার বহন করে থাকেন।
আইনের মাধ্যমে অধস্তন : আদালত সমূহে দেওয়ানী ও ফৌজদারি বিচার পরিচালনা সহ সুপ্রিম কোর্টে জেল আপিল, দেওয়ানি আপিল, ফৌজদারি আপিল, দেওয়ানি রিভিশন, ফৌজদারি রিভিশন ও রিট মামলার ক্ষেত্রে লিগ্যাল এইড প্রদানের বিধান রাখা হয়েছে।
প্রত্যেক জেলায় জেলা জজের কার্যালয়ে জেলা লিগ্যাল এইড এর অফিস রয়েছে এবং প্রত্যেক জেলায় একজন করে সিনিয়র সহকারী জজ পদ মর্যাদার জেলা লিগ্যাল এইড কর্মকর্তা রয়েছেন। সেখানে শুধু আইনজীবী নিয়োগ করে মামলা পরিচালনা করার ব্যবস্থায় নয় ; এ ডি আর ‘এর মাধ্যমে বিরোধ নিস্পস্তি সহ আইনগত পরামর্শ ও প্রদান করা হয়ে থাকে।
সরকার বর্তমানে বিনা খরচে আইনি সেবা প্রদানের লক্ষ্যে মামলা / মোকদ্দমা করার প্রাথমিক তথ্য; সরকারি আইনী সেবা সম্পর্কিত যেকোনো পরামর্শ ও অভিযোগ গ্রহণের ক্ষেত্রে টোল ফ্রি হেল্পলাইন চালু করেছে ।শুধু দেশ থেকেই নয় বিদেশ থেকেও কল করার সুযোগ রয়েছে।
আইনগত সহায়তা কার্যক্রম জনমুখী ও কার্যকর করার লক্ষ্যে জেলা কমিটি যতটা শক্তিশালী এবং কার্যকর ভূমিকা রেখে চলেছে উপজেলা কমিটি এবং ইউনিয়ন কমিটি ততটা কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারেনি। জেলা লিগ্যাল এইড কর্মকর্তা একজন বিচারক হওয়ায় এবং তার কোন যানবাহন সুবিধা না থাকায় তিনি উপজেলা কমিটি এবং ইউনিয়ন কমিটি প্রতিনিয়ত মনিটরিং করতে পারেন না । তাছাড়া ছিন্নমূল মানুষের দোরগোড়ায় আইনগত সহায়তা এর সুফল এবং সুবিধা সমূহের বার্তা পৌঁছে দেয়া তার জন্য দূরূহ হয়ে পড়েছে। উঠান বৈঠকের মধ্য দিয়ে ব্যাপকভাবে সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কাজ করাও তার জন্য কষ্টসাধ্য । তৃণমূল পর্যায়ের মানুষ সচেতন না হলে তাঁরা মামলার বিষয়ে আইনগত সহায়তা নিতে পারেন না।তাছাড়া দাপ্তরিক কাজ ত্বরান্বিত করার জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যক লোকবলের অভাব রয়েছে। আশা করা যায় সরকার অচিরেই এ সকল অসুবিধা দূর করে আইনগত সুবিধা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার লক্ষে যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।
জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস-২০২৪ উপলক্ষে জেলা আইনগত সহায়তা প্রদান কমিটি, যশোর বর্ণাঢ্য র্যালি, আলোচনা সভা, রক্তদান কর্মসূচি ও তৃনমুল পর্যায়ে এর বার্তা পৌছে দেওয়ার জন্য নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

লেখক: বিচারক (জেলা ও দায়রা জজ)
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১
যশোর।

আরও খবর

🔝