আজ মঙ্গলবার, ১২ বৈশাখ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৫ এপ্রিল ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
শিরোনাম: সুনামগঞ্জে হাওরে মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার       বাংলাদেশকে পানি দেব না বলিনি : মমতা       প্লাস্টিক বর্জ্য সরাবে শুঁয়োপোকা!       ১১ মামলায় খালেদার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন ফের পেছাল       পরমাণু অস্ত্রবাহী মার্কিন ডুবোজাহাজ কোরীয় জলসীমানায়       যশোরাঞ্চলে ধানে ব্লাস্ট রোগের পর এবার ঝড়-শিলাবৃষ্টি       বেনাপোলে ৮ সোনার বারসহ পাচারকারী আটক       ঝড়ে যশোরের বিআরবি স্কুল ও নতুনহাট পাবলিক কলেজের ঘরের ছাউনি উড়ে গেছে       যশোরে পৃথক ঘটনায় ৪ জনের মৃত্যু       খুনীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে যশোরে বিক্ষোভ       
বন্যা, অতিবৃষ্টি ও খরায় ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা প্রস্তুতের কাজ চলছে
কৃষকদের সহায়তায় ৩২ কোটি টাকা
দেওয়ান মোর্শেদ আলম :
Published : Tuesday, 21 March, 2017 at 12:20 AM
কৃষকদের সহায়তায় ৩২ কোটি টাকা বন্যা, খরা, অতিবৃষ্টি ও ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের জন্য সরকার কৃষি মন্ত্রণালয় প্রনোদনা কর্মসূচির আওতায় ৩২ কোটি টাকা ভর্তুকি দিচ্ছে। দেশের বন্যা, খরা, অতিবৃষ্টি ও ঘূর্ণিঝড় কবলিত কয়েকটি জেলায় এই ভর্তুকি দেয়া হচ্ছে। এর মধ্যে যশোরে ৯ হাজার কৃষককে দেয়া হচ্ছে ১ কোটি ৩৬ লাখ টাকা। ইতিমধ্যে যশোর জেলার ইউনিয়ন কৃষি কমিটিগুলো ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের নামের তালিকা প্রস্তুত করছে। চলতি মাসেই নগদ টাকা, সার ও বীজ বিতরন করা হবে। কৃষক যাচাই বাছাইয়ে কোন অনিয়ম হচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখার আহবান জানিয়েছেন সচেতন মহল।
ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় কৃষি উন্নয়ন ও কৃষকদের আর্থিক সহায়তায়  কৃষি মন্ত্রণালয়ের প্রনোদনা কর্মসূচির আওতায় বিনামূল্যে সার বীজ বিতরণ ও নগদ টাকা প্রদানের জন্য তালিকা প্রস্তুতের কাজ এগিয়ে চলেছে। আর এ কর্মসূচিতে ৩২ কোটি টাকা ঘোষণায় কৃষকদের মধ্যে স্বতষ্ফূর্ততা দেখা দিয়েছে। কৃষি বিভাগের মাঠ পর্যায়ের উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের সমন্বয়ে গঠিত ইউনিয়ন কৃষি কমিটি যশোরে জোরেসোরে কাজ শুরু করেছে।  
কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের একটি সূত্র জানিয়েছে, যশোরসহ দেশের যে সব জেলা গত বছর অতিবৃষ্টি ও বন্যার কবলে পড়ে, সে সব জেলাকে বেছে নিয়ে ৩২ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। এর মধ্যে যশোর জেলার ৯ হাজার দুশো কৃষক এই তালিকার আওতায় এসেছে। যশোর সদর উপজেলার এক হাজার দুশো কৃষকও এই সুবিধা পাচ্ছেন। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের দু’ভাগে ভাগ করে এই ভর্তুকি দেয়া হচ্ছে। এর মধ্যে জেলায় এক হাজার ৭শ’ কৃষককে আউশ নেরিকা ধান চাষের জন্য মাথা প্রতি এক হাজার ৯শ’৫০ টাকা করে দেয়া হবে। আর উফশী ধান চাষের জন্য সাত হাজার পাঁচ’শ কৃষককে এক হাজার ৩শ’৫০ টাকা করে মাথাপ্রতি দেয়া হচ্ছে। একই সাথে দেয়া হবে সার ও বীজ। ভর্তুকির টাকা দিয়ে ধান ক্ষেতের আগাছা নির্মূল ও সেচ প্রদানের নির্দেশনা থাকছে সুবিধাভোগী কৃষকদের প্রতি।
সূত্র আরও জানিয়েছে, বিগত বিভিন্ন সময়ে সরকারের কৃষি ক্ষেত্রে নেয়া নানা মহতী উদ্যোগ ভুলুণ্ঠিত হয়েছে সংশ্লিষ্টদের নানা অনিয়মের কারণে। কর্মকর্তাদের মাধ্যমে টাকা বিতরন করায় তসরূপ ও আত্মসাতের ঘটনাও ঘটেছে। যে কারণে এবার কৃষককে সরাসরি টাকা পাঠানোর জন্য মোবাইল ব্যাংকিং সিস্টেম চালু করা হয়েছে। স্ব স্ব কৃষকের ব্যক্তিগত মোবাইলে পৌঁছে দেয়া হবে ওই টাকা। আর ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক যাচাই বাছাইয়ে থাকছে চারটি কমিটি। জেলা পর্যায়ে জেলা প্রশাসক কৃষি কমিটির সভাপতি ও কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক হচ্ছেন সদস্য সচিব। উপজেলা পর্যায়ে নির্বাহী কর্মকর্তা সভাপতি ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সদস্য সচিব। এছাড়াও ইউনিয়ন পর্যায়ে ইউনিয়ন পরিষদ  চেয়ারম্যান কৃষি কমিটির সভাপতি ও ইউনিয়ন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সদস্য সচিব। জেলা থেকে উপজেলায় এবং উপজেলা থেকে ইউনিয়ন কৃষি কমিটিকে কৃষক টার্গেট দিয়ে বাছাই করে পাঠাতে বলা হয়েছে। আর ইউনিয়ন কৃষি কমিটি বিভিন্ন ওয়ার্ড মেম্বারকে সাথে নিয়ে কৃষক তালিকা করেছে। অধিকাংশ ইউনিয়ন থেকে  তা উপজেলায় পাঠানো হয়েছে। চলতি মাসেই ওই তালিকা ধরে টাকা ও সার বীজ বিতরণ করা হবে। সার বীজ বিতরণে সরকারি সীল মোহর যুক্ত বস্তা থাকবে। যাতে তঞ্চকতার সুযোগ না থাকে। কেউ সরকারের ভাবমুর্তি নষ্ট করতে চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জেলা প্রশাসন থেকে হুঁশিয়ারীও দেয়া হচ্ছে।
এ ব্যাপারে যশোর সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ এসএম খালিদ সাইফুল্লাহ গ্রামের কাগজকে জানান, কৃষকের ভাগ্য উন্নয়নের লক্ষে সরকার কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের তৃনমূল কৃষকের জন্য এই টাকা সহায়তা দিচ্ছে। যশোর জেলার আট উপজেলায়ই কম বেশি এই সুবিধার আওতায় এসেছে। তালিকার কাজ শেষের পথে। সরকারের এই প্রনোদনা ভর্তুকি কর্মসূচি নিঃসন্দেহে প্রশসংসার দাবি রাখে। জেলায় যে ৯ হাজার দু’শো কৃষক এই সুবিধার আওতায় এসেছেন তারা ক্ষতিগ্রস্ত। এছাড়াও সরকার আরও কিছু কর্মসূচি হাতে নিয়েছে, যাতে কৃষকের জীবন যাত্রায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : gramerka@gmail.com, editor@gramerkagoj.com
Design and Developed by i2soft