বুধবার ১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ১৯ মাঘ ১৪২৯
                
                
☗ হোম ➤ আন্তর্জাতিক
ফিলিস্তিনি শিশুদের স্কুল গুড়িয়ে দিল ইসরায়েল
আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২২, ২:৪০ পিএম |
পশ্চিম তীরের দক্ষিণাঞ্চলীয় মাসাফের ইয়াত্তা অঞ্চলে অবস্থিত ফিলিস্তিনি স্কুলটি বুধবার ভেঙে দেয় ইসরায়েল। ছবি: টাইমস অব ইসরায়েল
ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের নিপীড়ন-নির্যাতন চলছেই। ইহুদি এই দেশটির দমন-নিপীড়ন থেকে বাদ যাচ্ছে না ফিলিস্তিনি শিশুদের স্কুলও। এবার ফিলিস্তিনের অধিকৃত পশ্চিম তীরের একটি স্কুল গুড়িয়ে দিয়েছে ইসরায়েল।
ইসরায়েলি বাহিনীর গুড়িয়ে দেওয়া ওই প্রাথমিক বিদ্যালয়টি পশ্চিম তীরের দক্ষিণাঞ্চলীয় মাসাফের ইয়াত্তা অঞ্চলে অবস্থিত এবং এটি সম্প্রতি নির্মাণ করা হয়েছিল। এছাড়া পশ্চিম তীরের এই এলাকায় ফিলিস্তিনি বাসিন্দারা জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুতির হুমকির সম্মুখীনও হচ্ছে। বুধবার (২৩ নভেম্বর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পশ্চিম তীরের মাসাফের ইয়াত্তা অঞ্চলের স্থানীয় বাসিন্দারা এবং কর্মকর্তারা আল জাজিরাকে জানিয়েছেন, ইসরায়েলি সেনাবাহিনী বুধবার সকালে ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ইসফেই আল-ফাউকা গ্রামে অবস্থিত একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভেঙে দিয়েছে।
মাসাফের ইয়াত্তার স্থানীয় কাউন্সিলের প্রধান নিদাল ইউনিস আল জাজিরাকে বলেছেন, ‘ইসরায়েলি দখলদার বাহিনী পাঠদান সেশন চলাকালীন স্কুলটি ভেঙে দেয় এবং এসময় ছাত্ররা ভেতরেই ছিল।’
তিনি আরও বলেন, ‘তারা (ইসরায়েলি সেনাবাহিনী) বাচ্চাদের ভয় দেখাতে এবং স্কুল থেকে বের করে দেওয়ার জন্য শব্দ উৎপন্নকারী বোমা ব্যবহার করে।’

নরওয়েজিয়ান রিফিউজি কাউন্সিলের মতে, ইসরায়েলি হাইকোর্ট অব জাস্টিস বুধবার ওই স্কুলটি ভেঙে দেওয়ার আদেশ স্থগিত করার যে অন্তর্র্বতী নিষেধাজ্ঞা ছিল তা প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর সেটি গুড়িয়ে দেওয়া হয়।
আল জাজিরা বলছে, অধিকৃত পশ্চিম তীরে প্রশাসনিক বিষয়গুলোর দায়িত্বে রয়েছে ইসরায়েলি সামরিক সংস্থা দ্য কোঅর্ডিনেটর অব গভর্নমেন্ট অ্যাক্টিভেটিস ইন দ্য টেরিটরিস (সিওজিএটি)। সংস্থাটি বলছে, অবৈধভাবে নির্মিত একটি ভবন তারা ভেঙে দিয়েছে। কারণ ওই ভবনটি ফায়ারিং জোনের কাছেই অবস্থিত।
সংবাদমাধ্যমটি বলছে, ভেঙে দেওয়া এই স্কুলটি প্রায় এক মাস আগে নির্মিত হয় এবং দুই সপ্তাহেরও কম সময় ধরে এটি চালু ছিল। এছাড়া স্কুলটি মাসাফের ইয়াত্তার চারটি পৃথক গ্রামের ২২ জন শিক্ষার্থীকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা করাচ্ছিল।
মাসাফার ইয়াত্তা অঞ্চলের কর্মী ফাদি আল-উমুর আল জাজিরাকে বলেছেন, ভেঙে দেওয়া স্কুলটি ছিল ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থায়নে ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রোগ্রামের অধীনে অধিকৃত পশ্চিম তীরে নির্মিত এক ডজনেরও বেশি স্কুলের মধ্যে একটি।
ফিলিস্তিনিদের জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি দল বলেছে, স্কুলটি গুড়িয়ে দেওয়ার খবরে তারা ‘আতঙ্কিত’ হয়েছে। এছাড়া ফিলিস্তিনের শিক্ষা মন্ত্রণালয় বুধবার এক বিবৃতিতে এই ধ্বংসযজ্ঞের নিন্দা করেছে এবং একে ‘জঘন্য অপরাধ’ বলে আখ্যায়িত করেছে।



গ্রামের কাগজ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন


সর্বশেষ সংবাদ
বেলুয়া নদীতে ভাসমান সবজির হাট
লালপুরে একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের নবীন বরণ
কেঁচো সারে ঝুঁকছেন চাষিরা, বাড়ছে পতিত জমিতে চাষ
খুলনায় বাসচাপায় মোটরসাইকেল চালক নিহত
সাহিত্যচর্চার ক্ষেত্রে প্রযুক্তির সুবিধা নেওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রী
শীতজনিত রোগে মৃত্যু ১০০ ছাড়াল
একুশে বইমেলা উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
বেশি টাকা দিলেই মিলছে গ্যাস
আজ থেকে বন্ধ হচ্ছে উইন্ডোজ ১০ বিক্রি
এবার সংবাদ সম্মেলনে নিজের নিরাপত্তাহীনতার কথা জানালেন সাবেক চেয়ারম্যান মুন্না
গ্রাহক পর্যায়ে ইউনিটপ্রতি বিদ্যুতের দাম বাড়ল ২০ পয়সা
যৌন নিপীড়নের অভিযোগে একজন আটক
পাতাল মেট্রোট্রেন চলবে ১০০ সেকেন্ড পরপর
জামায়াতে ইসলামীকে দেওয়া নিবন্ধন অবৈধ
আমাদের পথচলা | কাগজ পরিবার | প্রতিনিধিদের তথ্য | অন-লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য | স্মৃতির এ্যালবাম
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন | সহযোগী সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০২৪৭৭৭৬২১৮২, ০২৪৭৭৭৬২১৮০, ০২৪৭৭৭৬২১৮১, ০২৪৭৭৭৬২১৮৩ বিজ্ঞাপন : ০২৪৭৭৭৬২১৮৪, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
কপিরাইট © গ্রামের কাগজ সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft