মঙ্গলবার ৩১ জানুয়ারি ২০২৩ ১৮ মাঘ ১৪২৯
                
                
☗ হোম ➤ রাজনীতি
তারা কি আসবেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে?
ঢাকা অফিস:
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২২, ৩:১০ পিএম |
আওয়ামী লীগের কাউন্সিল আগামী ২৪ ডিসেম্বর। কাউন্সিলকে ঘিরে আওয়ামী লীগের মধ্যে এখন একটা উৎসবমুখর পরিবেশ চলছে। বিরোধী দলের আন্দোলন ছাপিয়ে কাউন্সিলে কে নেতৃত্বে আসবে, কারা আসবে না ইত্যাদি আলোচনায় এখন আওয়ামী লীগের মুখ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। আওয়ামী লীগের নেতারা মনে করছেন ২৪ ডিসেম্বরের কাউন্সিলকে ঘিরেই যে উৎসব মুখর পরিবেশ তৈরি হয়েছে সেটি বিরোধীদলের মোকাবেলার জন্য যথেষ্ট। কাউন্সিলে সাধারণ সম্পাদক কে হবে তা নিয়ে যেমন আলোচনা হচ্ছে, নতুন নেতৃত্বে কারা আসবেন সেটি নিয়েও আলোচনা হচ্ছে। কিন্তু এই সবকিছু ছাপিয়ে সবচেয়ে বড় যে প্রশ্নটি সামনে আসছে তাহলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের কোনো সদস্য কি এবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের আসবেন? অনেক রাজনীতিবিদ মনে করছেন যে, আগামী কাউন্সিলে হয়তোবা সভাপতি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শেষ কাউন্সিল। এরপরে তিনি আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করবেন না। এ ব্যাপারে তিনি সুস্পষ্টভাবে পূর্বাভাসও দিয়ে রেখেছেন। কিন্তু প্রশ্ন উঠেছে যে, শেখ হাসিনার পরে কে নেতৃত্ব নেবে?
আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতাই মনে করেন যে, শেখ হাসিনার পর আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব এমন একজনের হাতে দিতে হবে যিনি বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্য। তাছাড়া আওয়ামী লীগকে এক সুতোয় গেঁথে রাখা অত্যন্ত কঠিন এবং দুরহ ব্যাপার হবে। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের অভিজ্ঞতা স্মৃতিচারণ করে আওয়ামী লীগের অনেক নেতা বলেন যে, বঙ্গবন্ধুর পরিবার ছাড়া আওয়ামী লীগ দিক ভ্রান্ত নৌকার মতোই এবং তখন একটি নয়, অনেকগুলো আওয়ামী লীগ গজিয়ে উঠবে। আর এ কারণেই তারা মনে করছেন যে, বঙ্গবন্ধু পরিবারের কোন সদস্যের হােেতই শেখ হাসিনা হয়তো দায়িত্ব দিবেন। যদিও শেখ হাসিনা বলেছেন যে, তার পরে আওয়ামী লীগের পরবর্তী নেতা কে হবেন এটা কাউন্সিলররা ঠিক করবে, নেতাকর্মীরা ঠিক করবে। এটা কোন আরোপিত বিষয় নয়। আওয়ামী লীগের মধ্যে বঙ্গবন্ধু পরিবারের চারজন সদস্য কে নিয়ে আলাপ-আলোচনা চলছে। এদের মধ্যে রয়েছেন
শেখ রেহানা: শেখ রেহানা সরাসরি রাজনীতির সঙ্গে না থাকলেও আওয়ামী লীগ সভাপতির অন্যতম উপদেষ্টা, পরামর্শক হিসেবে বিবেচিত। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের কঠিন সময় গুলোতে তিনি আওয়ামী লীগের কান্ডারী হিসেবে অবতীর্ণ হন। ২০০৭ সালে এক-এগার এর সময় যখন আওয়ামী লীগ সভাপতিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল, তখন শেখ রেহানাই দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখা, নেতাকর্মীদের সচল রাখার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। আন্তর্জাতিক পরিম-লে যেন শেখ হাসিনার গ্রেপ্তারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হয় সে ব্যাপারেও কাজ করেছিলেন। এখনো আওয়ামী লীগ সভাপতির একজন বিশ্বস্ত পরামর্শদাতা হিসেবে তিনি কাজ করেন। কিন্তু সবকিছুই করেন তিনি নেপথ্যে থেকে। আর নেপথ্যে থেকে তিনি প্রকাশ্যে আসবেন কিনা সেটি নিয়ে নানারকম জল্পনা-কল্পনা চলছে।
সজীব ওয়াজেদ জয়: সজীব ওয়াজেদ জয়কে মনে করা হয় আওয়ামী লীগের পরবর্তী নেতা। তিনি প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা। ডিজিটাল বাংলাদেশের অন্যতম রূপকার সজীব ওয়াজেদ জয়। তরুণদের মধ্যে তার বিপুল জনপ্রিয়তা রয়েছে। গত তিনটি নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের জন্য প্রচারণা চালিয়েছেন এবং যেখানে যেখানে তিনি প্রচারণা চালিয়েছেন সেখানে আওয়ামী লীগের জোয়ার এসেছে। কিন্তু নির্বাচনী প্রচারণা চালানো এক কথা, সরাসরি রাজনীতিতে আসা আরেক বিষয়। সরাসরি এখন পর্যন্ত তিনি সম্পৃক্ত নয়। এই কাউন্সিলে তিনি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে আসবেন কিনা সেটি কোটি টাকার একটি প্রশ্ন।
সায়মা ওয়াজেদ পুতুল: সায়মা ওয়াজেদ পুতুল একজন মনোবিজ্ঞানী। তিনি অটিজম বিষয়ে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন একজন বিশেষজ্ঞ। বর্তমান সরকার যে অটিজমকে গুরুত্ব দিচ্ছে যা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে তার পিছনে সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন রয়েছে। অনেকেই মনে করেন যে, তিনি অত্যন্ত মেধাবী এবং বুদ্ধিদীপ্ত। রাজনীতিতে এলে তিনি ভালো করবেন। তার কথাবার্তা পরিমার্জিত এবং এবং তাৎপর্যপূর্ণ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সায়মা ওয়াজেদ পুতুল রাজনীতিতে আসবেন কিনা এ নিয়েও যথেষ্ট সংশয় রয়েছে।
রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ববি: রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ববি আওয়ামী লীগের অন্যতম থিংক ট্যাঙ্ক হিসেবে পরিচিত। বিশেষ সিআরআই এর মাধ্যমে যে গবেষণা এবং তরুণদের জাগরণের কাজগুলো করা হয় সেখানে ববির ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু এই সমস্ত ভূমিকাকে ছাপিয়ে তিনি সরাসরি রাজনৈতিক নেতৃত্বে আসবেন কিনা সে ব্যাপারে নিশ্চিত নয়।
এই চারজনের যেকোনো একজন হয়তো বা আওয়ামী লীগের আগামী দিনের নেতৃত্ব নিবেন কিংবা আদৌ তারা নেবেন কিনা সেই প্রশ্নের উত্তর এখনো জানা নেই। তবে এই চারজনকে আগামীর নেতৃত্ব না দিলে আওয়ামী লীগের সামনে অনিশ্চয়তার এক বড় কালো মেঘ আওয়ামী লীগকে ছেয়ে দিবে বলেও অনেক বিশ্লেষক মনে করেন। 


গ্রামের কাগজ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন


সর্বশেষ সংবাদ
সাবেক মেয়র, সচিব ও প্রশাসনিক কর্মকর্তার নামে মামলা
যশোর বোর্ডের একটি স্কুলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ
যশোরে এলজিইডির মানববন্ধন
সিরাজসিংহায় বাড়ি ছাড়ার হুমকি দেয়া হচ্ছে এক পিতৃহারাকে
জাল জখমি সনদে স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করে কারাগারে স্ত্রী
ডলার সংকটে রমজানে বাড়তে পারে খেজুরের দাম
পাকিস্তানের পেশোয়ারে মসজিদে বোমা বিস্ফোরণে নিহত ২৮
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সভাপতি সুমন, সম্পাদক আরিফ
সাবেক মেয়র, সচিব ও প্রশাসনিক কর্মকর্তার নামে মামলা
বাঙালির কিছু বিখ্যাত বংশ পদবীর ইতিহাস
নর্দমায় ছুড়ে ফেলা স্বর্ণ উদ্ধার করলো পুলিশ, আটক এক
উন্নত বাংলার স্বপ্ন দেখিয়েছেন শেখ হাসিনা: সাবেক এমপি মনির
বেসরকারি হাসপাতালের ফি নির্ধারণ করা হচ্ছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
বিএনপিকে জনগণ পালাবার সুযোগ দেবে না : তথ্যমন্ত্রী
আমাদের পথচলা | কাগজ পরিবার | প্রতিনিধিদের তথ্য | অন-লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য | স্মৃতির এ্যালবাম
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন | সহযোগী সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০২৪৭৭৭৬২১৮২, ০২৪৭৭৭৬২১৮০, ০২৪৭৭৭৬২১৮১, ০২৪৭৭৭৬২১৮৩ বিজ্ঞাপন : ০২৪৭৭৭৬২১৮৪, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
কপিরাইট © গ্রামের কাগজ সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft