শিরোনাম: রামপালে বাংলাদেশ ইন্ডিয়া ফ্রেন্ডশীপ পাওয়ার কোম্পানি লিঃ এর ওয়াটার অসমোসিস প্লান্ট উদ্ভোধন        অবৈধ বালু উত্তোলন, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা       মাগুরায় গাছ থেকে পড়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু        মহেশপুরে বইছে ২৫তম মেয়র নির্বাচনের হাওয়া       স্মার্ট লাইসেন্স সিস্টেমের আওতায় রাজশাহী       ঝালকাঠির গ্রামীণ জনপদে গড়ে উঠছে হাঁসের খামার       কাশ্মীর ইস্যুতে জাতিসংঘে ভারতের ওয়াকআউট       ঝালকাঠির মহাসড়কে পৌর টোলের নামে চাঁদাবাজি, বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ       দিনাজপুরে আহমদ শফী স্মরনে ও দোয়া মাহফিল        বোয়ালমারী উপজেলা চেয়ারম্যান মুশার সাথে প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের সৌজন্য সাক্ষাৎ       
খেলোয়াড়দের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সবচেয়ে বড় বিষয় : মিঠু
আবুল বাসার মুকুল :
Published : Sunday, 9 August, 2020 at 12:13 PM
খেলোয়াড়দের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সবচেয়ে বড় বিষয় : মিঠুযশোর জেলার ফুটবল ও খেলোয়াড়দের দেখ ভাল করার মূল দায়িত্ব জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের। করোনা কালীন সময়ে ও করোনা উত্তরণের পর তাদের ভাবনা নিয়ে এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপচারিতার বিষয় পাঠকদের উদ্দেশ্যে তুলে ধরা হল।
জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আসাদুজামান মিঠু জানান, যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার বিভিন্ন স্থাপনা রয়েছে। এ সব স্থাপনা থেকে প্রতি মাসে অর্থ আসে। যার ফলে তাদের একটি নিজস্ব ফান্ড রয়েছে। কিন্তু আমাদের কোন স্থাপনা নাই। এর ফলে আমাদের নিজস্ব ফান্ড গঠন করা সম্ভব নয়। অধিকাংশ সময়ে নিজেদের অর্থ ব্যয় করে ক্রীড়ার কার্যক্রম পরিচালনা করতে হয়।
করেনা কালীন সময়ে বাংলাদেশ ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (বাফুফে) থেকে মাত্র ১০ হাজার টাকা আর্থিক অনুদান পাওয়া গেছে। এ অর্থ তিন জন সাবেক খেলোয়াড়দের মাঝে বন্টন করা হয়েছে। এ ছাড়া ব্যক্তিগতভাবে দুই লক্ষ টাকার খাদ্য সামগ্রী দুস্থ খেলোয়াড় ও সংগঠকদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে।
জেলার ফুটবলের দিকে তাকালে সবচেয়ে বড় যে বিষয়টি ফুটে ওঠে তা হল অধিকাংশ খেলোয়াড় ও তাদের পরিবার অর্থনৈতিকভাবে অসচ্ছ্বল। এ দিক বিবেচনা করলে প্রাপ্ত অর্থ যৎসামান্য। তবে অন্য দিক হিসেব করলে দেখা যায় যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় থেকে বেশ কিছু সাবেক ফুটবলাররা একাধিকবার আর্থিক সহযোগিতা পেয়েছেন।
বর্তমান সময়ের যারা খেলোয়াড় তারাই রয়েছে সবচেয়ে বড় দুরবস্থায়। এ প্রসঙ্গে ফুটবলের এ কর্তা বলেন, সব কিছু তো একক ভাবে করা সম্ভব নয়। সমাজের বিত্তবানদেরও কিছু দায়বদ্ধতা আছে। সে দৃষ্টিকোণ থেকে তারা যদি এগিয়ে আসেন তা হলে অনেকেই উপকৃত হয়। তারপরও বলবো সত্যিকার অর্থে কোন ফুটবল খেলোয়াড় কিংবা সংগঠক দুরবস্থায় থাকলে তারা আমার সাথে যোগাযোগ করলে সহযোগিতা করার চেষ্টা করা হবে।
এখনো স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে স্বাস্থ্য সুরক্ষা রাখতে। এমন পরিস্থিতিতে বাস্তবিকভাবেই আমাদের করণীয় কিছু নেই। খেলোয়াড়দের স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টিকেই আমরা প্রাধান্য দিয়েছি। এখনো করোনার যে পরিস্থিতি তাতে খেলা মাঠে গড়ানো কিংবা অধিকভাবে কোন কার্যক্রম হাতে নেয়া কোন ভাবেই সম্ভব নয়। আর করোনা কালীন ক্রীড়াঙ্গনের ক্ষতি হয়েছে বা হচ্ছে কোন অবস্থাতেই পুষিয়ে নেয়া সম্ভব নয়।
করোনা পরিস্থিতির উন্নতি ঘটলে আমরা ক্লাব কর্মকর্তা,  সংগঠক ও খেলোয়াড়দের মতামত নিয়ে আমাদের পরবর্তী করণীয় বিষয়গুলি নির্ধারণ করবো। তবে আমাদের প্রথম মিশনটি হবে প্রথম বিভাগ ফুটবল লিগ মাঠে গড়ানো।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft