শিরোনাম: নড়াইলের ফ্যামিলি কেয়ারে আবারো অপচিকিৎসা       যমেক হাসপাতালের ব্লাডব্যাংকে চাঁদাবাজি সুজন সিন্ডিকেটের        মঙ্গলবার যশোরে ডাক্তারসহ ২৩ জনের করোনা শনাক্ত       যশোরে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে সভা       স্রষ্টা ভাবনা        নুরজাহান ইসলাম নীরা মনোনয়ন পাওয়ায় কেশবপুরে শুভেচ্ছা মিছিল       করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক নাছিমের রোগমুক্তি কামনা       শার্শার বাগআঁচড়া বাজারে দুই কারেন্টজাল বিক্রেতাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা       মাগুরায় ৫ হাজার তালবীজ রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন       বিএনপির প্রার্থীকে বিজয়ী করতে রাণীনগরে যুবদলের আলোচনা সভা       
বাগেরহাটে শসার বাম্পার ফলন, পাচ্ছে ভালো দাম
বাগেরহাট প্রতিনিধি :
Published : Saturday, 8 August, 2020 at 11:40 AM, Update: 08.08.2020 3:29:23 PM
বাগেরহাটে শসার বাম্পার ফলন, পাচ্ছে ভালো দামবাগেরহাটে এবার শসার বাম্পার ফলন হয়েছে। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যেও ভালো দাম পাচ্ছে কৃষকরা।
জেলার পাঁচটি উপজেলার সবজি ক্ষেত ও মৎস্য ঘেরের পারে বিপুল পরিমাণ শসা চাষ হয়েছে। প্রতিদিনই শতাধিক ট্রাকে শসা যাচ্ছে দেশের বড় শহরগুলোতে। করোনা পরিস্থিতিতে নিজ বাড়ির সামনে বসে ন্যায্যমূল্যে ব্যবসায়ীদের কাছে শসা বিক্রি করতে পেরে খুশি কৃষকরা।
তারা বলছেন, বীজ রোপণের ৩০ থেকে ৩৫ দিনের মধ্যেই গাছে শসা আসে। এরপরে ৩৫ থেকে ৪০ দিন পর্যন্ত শসা ধরতেই থাকে। ভালো পরিচর্যা এবং প্রয়োজনীয় সার দিলে এক একর জমি থেকে প্রতিদিন ছয় থেকে নয় মণ শসা বিক্রি করা যায়।
বাগেরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, জেলার কচুয়া, বাগেরহাট সদর, চিতলমারী, ফকিরহাট ও মোল্লাহাট উপজেলায় শসার বাম্পার ফলন হয়েছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি উৎপাদন চিতলমারীতে। এ উপজেলা থেকে প্রতিদিন শতাধিক ট্রাকে করে শসাসহ বিভিন্ন সবজি যায় দেশের বড় বড় শহরে।
এ বছর ৫০ হাজার টনের বেশি শসা উৎপাদন হবে বাগেরহাটে। জেলার চাহিদা মিটিয়ে অন্যান্য জেলায়ও এর চালান যাবে। এক্ষেত্রে কোনো প্রকার দালাল ছাড়া সরাসরি ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করায় কৃষকরা বেশ লাভবান হচ্ছেন।
চিতলমারী উপজেলার উমাজুরি গ্রামের মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, এক একর জমিতে শসার চাষ করেছি। ১০ দিন ধরে বিক্রি করছি। প্রতিদিন পাঁচ থেকে আট মণ পর্যন্ত শসা বিক্রি করি। এবার ফলন যেমন বেশি হয়েছে, দামও মোটামুটি ভালো পাচ্ছি।
শসা চাষি মো. তহিদুল ইসলাম, সমীর ঘরামীসহ কয়েকজন বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার কিছু পরে বীজ বপন করা হয়েছে। কিন্তু আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার শসার ফলন খুব ভালো হয়েছে। জেলা কৃষি বিভাগও আমাদের অনেক সহযোগিতা করেছে। পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছে ১০ থেকে ১৫ টাকা কেজি অথবা ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা মণ বিক্রি করছি। এ রকম দাম থাকলে এবার আমাদের ভালোই লাভ হবে।বাগেরহাটে শসার বাম্পার ফলন, পাচ্ছে ভালো দাম
চিতলমারী উপজেলার অশোকনগর গ্রামের বিশ্বজিৎ বড়াল বলেন, এ বছর ১০ একর জমিতে শসা চাষ করেছি। তিন লাখ টাকা ব্যয় করেছি। বর্তমানে প্রতিদিন ১০০ মণের উপরে শসা বিক্রি করছি। আমার ক্ষেত ও মাছের ঘেরে আটজন শ্রমিক নিয়মিত কাজ করেন। সব খরচ দিয়ে এ বছর ১০ লক্ষাধিক টাকা লাভ হবে আশা করছি।
বাগেরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রঘুনাথ কর বলেন, বাগেরহাট জেলায় সবজি আবাদের ওপর অতিরিক্ত জোর দেওয়া হয়েছে। সরকার সময়মতো বীজ, সার ও ঋণ প্রবাহ সচল রেখেছে। ফলে এ বছর বিভিন্ন সবজির পাশাপাশি শসারও বাম্পার ফলন হয়েছে।
তিনি বলেন, এবার বাগেরহাটের কয়েকটি উপজেলায় ৫০ হাজার টন শসার ফলন হবে। কৃষকদের সব ধরনের কারিগরি সহযোগিতা ও বাজারজাত করণের পরামর্শ দিয়েছি। কৃষক যাতে লাভবান হতে পারেন, সেজন্য সব ধরনের চেষ্টা রয়েছে আমাদের।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft