শিরোনাম: সব ধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ       বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স এল জুলাইয়ে       ইতালিতে প্রবেশের অপেক্ষায় হাজারও বাংলাদেশি       স্বামীর বাড়ি গিয়ে নববধূ জানলেন তার করোনা       যশোরের আসলাম ঢাকার মানবিক যুবলীগ নেতা        রাত ১০টার পর বাইরে বের হওয়া নিষিদ্ধ       মানুষের মন জয় করে বিদায় নিচ্ছেন রামগড়ের ইউএনও বদরুদ্দোজা       কেশবপুরে দুই দল মাদক বিক্রেতার মধ্যে গুলি বিনিময়, নিহত ১       বাগেরহাটে করোনায় আক্রান্ত আরও ২৬ জন        জয়পুরহাটে ফেন্সিডিলসহ ২ মাদক কারবারি আটক      
কাঠাল সুমাচার...
Published : Friday, 10 July, 2020 at 12:00 AM, Update: 10.07.2020 2:01:36 PM
কাঠাল সুমাচার...পেত্তেকদিন কোন না কোন দিবস থাকে। দিবসের সংখ্যা হ্যাতো বেশী যে ৩৬৫ দিনি সিরিয়াল খালি না পাইয়েই একদিনি দুডো তিনডে দিবসও পইড়ে যায়। যিরাম এই মাসের ৪ তারিক গেলো কাঠাল দিবস। দুডো কারনে কাঠাল স¹লির মুকি মুকি। পরের মাতায় থুইয়ে কোষ খাওয়ার গৌইরোব আর কোন ফলের আছে বিলে জানা নেই। আর গাছে কাঠাল গোফে তেল ইডার হেজেমানে করার দরকার আছে মনে হয় না। তেবে মানুস এক এতো চায় চালাক হইয়েচে যে কতাডা এট্টু বদলায় যাইয়ে হইয়েচে গাছে কাঠাল বোতলে তেল। একন গোফ উটার আগেই চাইছে ছুইলে সব মাকুন্দ হইয়ে থাকতেচে, আর চান না দেইকে রুযা থাকার ঝুকি নেচ্চে না বিলে তেল বোতলেই রাকতেচে। ও আসল কতাডাই কওয়া হয়নি কাঠাল যে আমাগের জাতীয় ফল তা স¹লি জানে কিন্তুক কেন জাতীয় ফল সিডা অনেকেই জানে কিনা সন্দেহ। দেশ স্বাদীন হলি কি কি আমাগের জাতীয় হবে সিডা নিয়ে সভা হইলো। একাকজন এটাট্টার নাম কইলো। শুনিচি বঙ্গবন্ধু কাঠালরেই জাতীয় ফলের মযযাদা দিলেন এই হিসেবে আমাগের গরীব দেশ, কম দামে এই এট্টা ফল যা ভাগায় জুগায় বাড়ি শুদ্দু স¹লি মিলে খাওয়া যায়। শুদু কি ফল, কাঠাল কাঠের মতো দামি কাঠ মিলা দুস্কর। ইরাম এক সুমায় ছিলো মাইয়ে বিয়ে দিলি শউর বাড়ি পাঠানোর সুমায় কাঠাল কাঠের পালং খাট না দিলি মনে হইতো কিছুই দিইনি। আর পাতা হিসেবেও কাঠালের পাতার কদর আলাদা। বিশেষ কইরে যাগের বাড়ি ছাগল থাকে। ফলের মদ্দির যে বিটা বিটি থাকে সিডা জানা ছিলো না। সেদিন এক ভাইপো কাঠাল দিবসে ছবি ছাইড়ে লিকেচে কাঠাল এট্টা মদ্দা ফল। কারন এর মদ্দি বিচি আচে। তার যুক্তি শুইনে থ’ মাইরে গিলাম।  তেবে কোন ফল মেচি সিডা কেউ একনো কারো কতি শুনিনি। যা কওয়া জন্যি চিটি লিকতি বসা সিডায় কওয়া হইলো না। সষষোর তেল দিয়ে কুড়োর গোস্তোর সাতে কাঠালের বিচির ঝোল ছিটে রুটি দিয়ে খাতি সে যে কায়দার তা কইয়ে বুজোনো যাবে না। মনে উটতিই জিবেয় পানি চইলে আসার জুগাড়। আগে মনে কত্তাম কাঠালের বিচি মনে হয় গাও গিরামের লোকেরাই খায়। কিন্তুক পুষ্টিবিদগের কাচে জানতি পাল্লাম কাঠালের মতোই বিচিও ম্যালা পুষ্টিগুনির অধিকারী। কাঠালের বিচি মানসির দূব্বলতা কাটাতি সাহায্য করে। পুষ্টির হ্যানো কোন জিনুস নেই যা কাঠালের বিচিতি নেই। কাঠালের হ্যাতো পাওয়োর যা খাইয়ে স¹লি হজমি কত্তি পারে না, আর এই পাওয়োরের উসসোই হচ্চে বিচি।
ইতি
অভাগা আক্কেল চাচা
০১৭২৮ ৮৭১০০৩
 

 




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft