শিরোনাম: নূরজাহান ইসলাম নীরা পেলেন নৌকা       ধানের শীষের প্রার্থী মোহাম্মদ নূর-উন-নবী       বাঘারপাড়ায় একই পরিবারের তিন জনকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা        ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মীসহ যশোরে নতুন করে ২৪ জনের করোনা শনাক্ত       যশোরে মঞ্চে আলো জ্বালাবে ‘সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড’        ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নিলেন বিথীকা বিশ্বাস        নড়াইলের বিছালী ইউপি চেয়ারম্যান আনিসুলের বিভিন্ন অপকর্মের প্রতিবাদে মানববন্ধন        দেশে শিগগিরই করোনা ভ্যাকসিনের ট্রায়াল হবে : স্বাস্থ্য সচিব       খালি পেটে কাঁচা ছোলা খাবেন যে কারণে        সরকারি রাস্তা ব্যাক্তির নামে নামপত্তন!      
আমার কাছে প্রমাণ আছে, জিয়া সবচেয়ে বড় রাজাকার : শেখ সেলিম
কাগজ ডেস্ক :
Published : Saturday, 14 December, 2019 at 7:10 PM
আমার কাছে প্রমাণ আছে, জিয়া সবচেয়ে বড় রাজাকার : শেখ সেলিমআওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেছেন, অনেকে বলে জিয়াউর রহমান বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিল। তার সম্পর্কে এরকম কথা বলে কেন? জিয়াউর রহমান ছিল সবচেয়ে বড় রাজাকার। তার প্রমাণ আমার কাছে আছে। আমি প্রমাণ ছাড়া কথা বলি না। যদি কেউ মুক্তিযুদ্ধে এ জাতির সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করে থাকে, সেটা করেছে জিয়া।
শনিবার (১৪ ডিসেম্বর) বিকেলে রাজধানীর খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেন, বঙ্গবন্ধুর ডাকে তিন শ্রেণীর লোক মুক্তিযুদ্ধে গেছে। এক শ্রেণীর গেছে বঙ্গবন্ধুর ডাকে। আরেক শ্রেণী ছিল জীবন বাঁচানোর সুবিধায় ভারতে গিয়ে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নাম লেখিয়েছিল। আরেক শ্রেণী ছিল পাকিস্তানের এজেন্ট হিসেবে। সেই এজেন্টই জিয়াউর রহমান ছিল।
বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানকে সবচেয়ে বড় রাজাকার বলার স্বপক্ষে প্রমাণ হিসেবে আওয়ামী লীগের এ শীর্ষ নেতা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তান আর্মির একজন কর্নেল ছিল। ১৯৫ জন চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীর একজনও ছিল এই কর্নেল আসলাম বেগ। তিনি জিয়াউর রহমানকে লিখেছেন- ‘মেজর জিয়াউর রহমান, পাক আর্মি ঢাকা- তোমার কাজে আমরা খুশি। আমাদের অবশ্যই বলতে হবে, তুমি (জিয়াউর রহমান) ভালো কাজ করেছো। খুব শিগগিরই তুমি নতুন কাজ পাবে। তোমার পরিবার নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ো না। তোমার স্ত্রী (খালেদা জিয়া) ও বাচ্চা ভালো আছে।’
শেখ সেলিম বলেন, স্ত্রী তো ভালোই থাকবে। ওনাকে দেখাশোনা করতো ১৯৫ জন যুদ্ধাপরাধীর একজন জানজুয়া। জানজুয়া যখন মারা যায়, তখন উনি (খালেদা জিয়া) প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে শোকবার্তা পাঠান। একজন বড় রাজাকার ছাড়া কেউ এই যুদ্ধাপরাধী, গণহত্যাকারীদের প্রতি সহানুভুতি দেখাতে পারে না। বেসিক্যালি এই দুইজনই (জিয়াউর রহমান ও খালেদা জিয়া) ছিল এক নম্বর ও দুই নম্বর রাজাকার।




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft