শিরোনাম: ব্র্যাক ব্যাংকের সঙ্গে এসএমই ফাউন্ডেশনের চুক্তি       দেশকে বাঁচাতে হলে দুর্বার গণআন্দোলন গড়তে হবে : ফখরুল       নির্ভয়ার ৪ ধর্ষকের ফাঁসির জন্য জল্লাদ চাইল তিহার জেল       দায়িত্ব নিয়ে কাজ করুন : তাজুল ইসলাম       মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি ফেরাতে উঠেপড়ে লেগেছে পাকিস্তান        সুস্থ পাটমন্ত্রী, হাসপাতাল ছাড়তে পারেন কাল       চীনের ভাইরাস ছড়িয়ে পড়বে ভারতেও       ৩০ জানুয়ারি থেকে ৩ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় অস্ত্র বহন নিষিদ্ধ       ভারত হিন্দুদের, দেশের ১৩০ কোটি মানুষই হিন্দু : আরএসএস       পানি রপ্তানি করবে বাংলাদেশ      
আকষ্মিক হার্ট অ্যাটাক হলে বাঁচাবেন যেভাবে
কাগজ ডেস্ক :
Published : Sunday, 15 December, 2019 at 6:10 AM
আকষ্মিক হার্ট অ্যাটাক হলে বাঁচাবেন যেভাবেহার্ট অ্যাটাকের কোনো রাত আর দিন নাই। যে কোনো সময়ই আপনার হার্ট অ্যাটাক হতে পারে। তবে সমস্যা হলো যদি সেসময় আপনার পাশে কেউ না থাকে! এমনটা হলে কি করবেন?
হার্ট অ্যাটাক হবার ফলে অধিকাংশ সময় মানুষ মারা যান, কারণ, বেশিরভাগ সময়ে দেখা গেছে, অ্যাটাককারীন সময়ে তারা একা থাকেন। অন্য কারো সাহায্য ছাড়া তাদের বুকের ওপর পাম্প করে হৃদযন্ত্রে রক্ত সঞ্চালন সম্ভব হয় না এবং ব্যথা শুরু হবার পরে অজ্ঞান হয়ে যাবার আগ পর্যন্ত সাধারণত তাদের হাতে সময় থাকে মাত্র ১০ সেকেণ্ড।
এমতাবস্থায় বুকে ব্যথার শিকার ব্যক্তি নিজেকে সাহায্য করতে পারেন বারংবার জোরে জোরে উচ্চস্বরে কাশি দিয়ে। সমূহ বিপদ ঠেকাতে এসময় আরও যা যা করতে পারেন-
লম্বা করে শ্বাস নিন। এবার কাশতে শুরু করুন। কাশি না আসলেও জোর করে কাশুন। লম্বা সময় নিয়ে দীর্ঘ কাশি দিন। এর ফলে আপনার ফুসফুসে স্পাটাম/মিউকাস উৎপন্ন হবে যা সঙ্কট কাটাতে সাহায্য করবে।
‘শ্বাস–কাশি, শ্বাস–কাশি…’ এই প্রক্রিয়া প্রতি দুই সেকেণ্ডে একবার করে করতে থাকুন, যতক্ষণ না কেউ আপনার সাহায্যে এগিয়ে আসে অথবা যতক্ষণ আপনার হৃদযন্ত্র একা একাই স্বাভাবিকভাবে স্পন্দিত হতে থাকে।
লম্বা করে শ্বাস নেবার ফলে আপনি পর্যাপ্ত অক্সিজেন পাবেন। আর কাশির ফলে আপনার হৃদযন্ত্র সংকোচন-প্রসারণ হবে যার ফলে আপনার হৃদপিণ্ডের ভেতর দিয়ে রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে।
আর কয়েকবার কাশির ফলে উৎপন্ন সংকোচন-প্রসারণে হৃদযন্ত্রের স্বাভাবিক, স্বয়ংক্রিয় স্পন্দন ফিরে আসার কথা। এরপরে অপর কোনো ব্যক্তির সাহায্যে আপনি হাসপাতালে পৌঁছাতে পারবেন।
যদি আগে জেনে না থাকেন তবে কায়দাটা আপনি এখানে শিখে নিলেন। এখন দয়া করে বাবা-মা, ভাই-বোন, দাদা-দাদি, নানা-নানি, বন্ধু-বান্ধব, সবাইকে শেখান এই কৌশল। কারও সহযোগিতার অভাবে হার্ট অ্যাটাকের শিকার হয়ে যেন আর অসহায়ভাবে মৃত্যুবরণ না করে- এই চেষ্টা করি।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft