শিরোনাম: সিন্ডিকেট করে চালের দাম বাড়ানোর সুযোগ নেই : খাদ্যমন্ত্রী       ফেসবুকে গুজব ছড়ালে জরিমানা : তথ্যমন্ত্রী       এস-৪০০ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ত্যাগ করলেই আলোচনা       বাঁচতে চাইলে আন্দোলনের প্রস্তুতি নিতে হবে : সালাম       সরকার চেয়ার-টেবিল-কাগজ সব খেয়ে ফেলছে : ফখরুল       দাবানলের কারণে অস্ট্রেলিয়ার ৩ অঙ্গরাজ্যে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি       পেঁয়াজ-লবণের মূল্যের ঊর্ধ্বগতি আওয়ামী অর্থনীতির প্রতিফলন       পরকীয়ার জেরে স্বামীকে খুন করে মাটিতে পুঁতে সেখানেই রান্নাবান্না       অমিত শাহর বিরুদ্ধে বিক্ষোভে নেমেছেন কাশ্মীরের ব্যবসায়ীরা        যুবলীগের নেতৃত্ব নির্বাচনে বয়সসীমা ৫৫ বছরই থাকছে : কাদের      
নতুন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ‘ঝড়কম্প’
আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
Published : Friday, 18 October, 2019 at 8:50 PM
নতুন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ‘ঝড়কম্প’দুই ভয়ংকর দুর্যোগ ঘূর্ণিঝড় ও ভূমিকম্পের মিশ্রণ আবিষ্কার করেছেন বিজ্ঞানীরা এবং তারা এর নাম দিয়েছেন ‘ঝড়কম্প’।
চলতি সপ্তাহের জিওফিজিক্যাল রিসার্চ লেটার সাময়িকীতে প্রকাশিত এক গবেষণা অনুযায়ী, ঘূর্ণিঝড় ও ঝড়ের সময় সমুদ্রতলের ঝাঁকুনি সাড়ে ৩ মাত্রার ভূমিকম্পের কম্পনের মতো হতে পারে এবং তার স্থায়ীত্ব হতে পারে কয়েক দিন। এ কম্পনগুলো মোটামুটি হামেশাই ঘটে, কিন্তু এগুলো আগে নজরে আসেনি। কারণ তাদের ভূকম্পের পটভূমির গোলমাল হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছিল।
গবেষণায় নেতৃত্ব দেয়া ফ্লোরিডা স্টেট ইউনিভার্সিটির ভূকম্পনবিদ ওয়েনইওয়ান ফ্যান বলেন, ঝড়কম্প এক উদ্ভট বিষয়। তবে এটি এমন কিছু নয় যা আপনার ক্ষতি করতে পারে। কারণ, ঘূর্ণিঝড়ের সময় তো আর কেউ সমুদ্রতলে দাঁড়িয়ে থাকেন না।
বাস্তব ও ভয়ংকর এ বিষয়টি সম্পর্কে অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসকে ফ্যান জানান, এটি নিয়ে একজন ব্যক্তির উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনো দরকার নেই।
তিনি বলেন, ঝড়ের ফলে সমুদ্র দানবীয় ঢেউ সৃষ্টি হয়, যা আরেক ধরনের ঢেউ তৈরি করে। দ্বিতীয় ধরনের ঢেউগুলো পরে নির্দিষ্ট কিছু জায়গায় সমুদ্রতলে আঘাত হানে এবং এতে ঝাঁকুনি তৈরি হয়। যেখানে বিশাল মহাদেশীয় ঢাল ও অগভীর সমতল ভূমি আছে সেখানেই শুধুমাত্র এটি হয়।
ফ্যান জানান, তার দল ২০০৬ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মেক্সিকো উপসাগর ও ফ্লোরিডা উপকূল, নিউ ইংল্যান্ড, নোভা স্কটিয়া, নিউফাউন্ডল্যান্ড, ল্যাব্রাডোর ও ব্রিটিশ কলম্বিয়ায় ১৪ হাজার ৭৭টি ঝড়কম্প পেয়েছে।
২০০৮ সালের ঘূর্ণিঘড় ইক এবং ২০১১ সালের ঘূর্ণিঝড় আইরিনের ফলে অনেকগুলো ঝড়কম্প সৃষ্টি হয় বলে গবেষণাটিতে বলা হয়েছে।
এ ধরনের ঝাঁকুনিগুলো এমন তরঙ্গ তৈরি করে যা ভূকম্পনবিদরা ভূমিকম্প নজরদারি করার সময় সাধারণত নজরে আনেন না। যে কারণে এগুলো এত দিন আড়ালে থেকে গিয়েছিল, বলেন ফ্যান।
যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থার (ইউএসজিএস) ভূকম্পনবিদ পল আর্ল বলেন, ‘সমুদ্র-সৃষ্ট ভূকম্পন তরঙ্গ ইউএসজিএসের যন্ত্রপাতিতে ধরা পড়ে। কিন্তু আমাদের ভূমিকম্প অনুসন্ধানের মিশনে এসব তরঙ্গকে পটভূমির গোলমাল হিসেবে বিবেচনা করা হয়।’




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft