শিরোনাম: পাবনায় বাস চলাচল আংশিক বন্ধ রয়েছে       সাতক্ষীরায় ২য় দিনের মতো বাস ধর্মঘট চলছে        বরিশালে বাস চলাচল বন্ধ, ভোগান্তিতে যাত্রীরা       পরিবহন আইন বাতিলের দাবিতে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ       পাবনায় পুকুর থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার       অধ্যক্ষকে পুকুরের পানিতে ফেলার মূলহোতা সৌরভ গ্রেপ্তার       ‘ধর্ষণের বদলে ধর্ষণ’, লাইভ অনুষ্ঠানে এসপি সিনহা       বিশ্ব পুরুষ দিবস আজ       পেঁয়াজ নিয়ে কারসাজিকারীদের হানিফের হুঁশিয়ারি       এক দলের পক্ষে এই সরকারকে ক্ষমতাচ্যুৎ করা সম্ভব নয় : রব       
লার্নার ছাড়া মটর মটরসাইকেল বিক্রি বন্ধ
এম. আইউব :
Published : Wednesday, 18 September, 2019 at 6:04 AM
লার্নার ছাড়া মটর মটরসাইকেল বিক্রি বন্ধড্রাইভিং লাইসেন্স কিংবা লার্নার ছাড়া মটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন দেয়া বন্ধ হয়ে গেছে। পহেলা সেপ্টেম্বর থেকে নির্দেশনা কার্যকর হয়েছে।
এ কারণে বিক্রির সময় লাইসেন্স অথবা লার্নার নেয়া বাধ্যতামূলক হয়ে পড়েছে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র অনুযায়ী এ সংক্রান্ত নির্দেশনা দিয়েছে বিআরটিএ।
বাধ্যবাধকতা আরোপ করায় একদিকে মটরসাইকেল বিক্রি কমেছে, একই সাথে কমেছে রেজিস্ট্রেশন খাত থেকে রাজস্ব আদায়।
যদিও সরকারের এ পদক্ষেপকে সাধুবাদ জানাচ্ছে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ।
এতদিন বিক্রেতারা মটরসাইকেল বিক্রির সময় ক্রেতার কাছ থেকে কেবলমাত্র রেজিস্ট্রেশনের অর্থ নিয়ে বিআরটিএ-তে জমা দিতেন। কেউ এককালীন দিতেন, আবার কেউ কিস্তি আকারে জমা দিতেন। বিআরটিএ সেই মোতাবেক মটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন করে দিত। এর ফলে চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স করার বিষয়টি গৌন হয়ে পড়ে। অনেকেই চালক হিসেবে একেবারেই অদক্ষ হওয়ার পরও মটরসাইকেল নিয়ে রাস্তায় নেমে পড়তো। এ কারণে প্রতিনিয়ত ঘটতো ছোট-বড় দুর্ঘটনা। প্রাণহানির খবর পাওয়া যেত প্রায়ই। দুর্ঘটনায় কেবল প্রাণহানি না, বহু মানুষ পঙ্গুত্ব বরণ করতো। এসব দিক বিবেচনা করে মটরসাইকেল চালককে আইনের আওতায় আনার উদ্যোগ নেয় সরকার।
সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র অনুযায়ী নির্দেশনা জারি করেছে বিআরটিএ। যশোর বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক কাজী মো. মোরছালীন স্বাক্ষরিত এক নির্দেশনায় উল্লেখ করা হয়েছে, মটরসাইকেল বিক্রির সময় চালকের নূন্যতম শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। ড্রাইভিং লাইসেন্স অথবা নূন্যতম শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স ব্যতিরেকে কোনো ক্রেতার নামে মটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন দেয়া যাবে না। যশোর বিআরটিএ’র আওতায় সকল মটরসাইকেল বিক্রেতার কাছে এ নির্দেশনা পৌঁছে দেয়া হয়েছে।
এ ধরনের নির্দেশনা কার্যকরের পর মটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন এবং বিক্রি উভয়ই কমেছে। যশোর বিআরটিএতে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, পহেলা সেপ্টেম্বর থেকে ১৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মোট ৪শ’ ২১ টি মটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন দেয়া হয়েছে। যার প্রত্যেকটি আবেদনের সাথে ড্রাইভিং লাইসেন্স কিংবা লার্নার (শিক্ষানবিশ লাইসেন্স) জমা দিতে হয়েছে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। কর্মকর্তারা বলছেন, লার্নার বাধ্যতামূলক করায় রেজিস্ট্রেশন আবেদন কমেছে। অন্যান্য মাসের এ সময় পর্যন্ত যেখানে ছয়শ’র বেশি আবেদন পড়তো সেখানে আবেদন জমা হয়েছে চারশ’। এ অবস্থা দ্রুত কেটে যাবে বলে দাবি কর্মকর্তাদের।
যশোরের মটরসাইকেল বিক্রেতারা বলছেন, বর্তমানে লার্নার পেতে একজন চালককে কমপক্ষে সাতদিন সময় লাগছে। আবার লার্নারের ফি ব্যাংকে জমা দেয়াও রীতিমত বিড়ম্বনার কাজ। এ কারণে অনেকেই আগ্রহ থাকা সত্ত্বেও মটরসাইকেল কেনা থেকে বিরত থাকছেন। বিক্রেতাদের বক্তব্য, লার্নার প্রাপ্তি সহজ করলে চালকদের মটরসাইকেল কেনার আগ্রহ বাড়বে। সেক্ষেত্রে সর্বোচ্চ দু’দিনের মধ্যে লার্নার সরবরাহের ব্যবস্থা করতে হবে বিআরটিএকে। তা না হলে ব্যবসায়ীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। রাজস্ব হারাবে সরকার-দাবি বিক্রেতাদের।
এতকিছুর পরও সরকারের এ উদ্যোগ ইতিবাচকভাবে নিয়েছে সাধারণ মানুষ। মঙ্গলবার যশোর বিআরটিএতে লার্নার করতে আসা শার্শার সাইদুর রহমান নামে একব্যক্তি বলেন, ‘বিষয়টি একটু ঝামেলার মনে হচ্ছে। তারপরও সকলকে আইনের মধ্যে থাকা উচিত। লার্নার করার মাধ্যমে চালকরা আইনের মধ্যে আসছে এটি ইতিবাচক।’
খুলনা বিভাগীয় মটরসাইকেল ডিলার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বলেন, ‘লার্নার বাধ্যতামূলক করার কারণে বিক্রি অর্ধেকে নেমেছে। অনেক ক্রেতা মটরসাইকেল কেনার আগ্রহ হারাচ্ছে। তারপরও পদক্ষেপটি ইতিবাচক। মানুষ আইন মানতে অভ্যস্ত হবে। এ কারণে এটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ।’
যশোর বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক কাজী মো. মোরছালীন বলেন, ‘গ্রামগঞ্জে চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স কম থাকতো। সেখানে অভিযান কম হয়। লার্নার বাধ্যতামূলক করার কারণে বর্তমানে তারা আইনের আওতায় আসছে।’  




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft