মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
ক্রীড়াঙ্গনের ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা সম্ভব না : ইয়াকুব কবির
আবুল বাসার মুকুল
Published : Friday, 7 August, 2020 at 1:14 AM
ক্রীড়াঙ্গনের ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা
সম্ভব না : ইয়াকুব কবিরনানা প্রতিকুলতা কাটিয়ে চলতি বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি জেলা ক্রীড়া সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচনের মাধ্যমে মল্লিক-সালেক-কবির ক্রীড়া উন্নয়ন পরিষদ নির্বাচিত হয়। দায়িত্ব পেতে না পেতেই দেখা দেয় করোনা। এ কারণে এখনো পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যনির্বাহী পরিষদ সভা করতে পারেনি। তবে, করোনাকলীন দুস্থ খেলোয়াড় ও ক্রীড়া সংগঠকদের মধ্যে নগদ অর্থ প্রদানের পাশাপাশি খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে বর্তমান কমিটি। জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব কবির জানান, ইতোমধ্যে খেলোয়াড়দের মধ্যে নগদ ১০ লাখ ৮৭ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে। এর বাইরে একশ’ জনের মধ্যে ৭০ হাজার টাকার খাদ্যসমাগ্রী বিতরণ করেছেন তারা।
জেলা ক্রীড়া সংস্থার নিজস্ব ফান্ডের ৭০ হাজার টাকা, বঙ্গবন্ধু ক্রীড়াসেবী ফাউন্ডেশন থেকে পাওয়া ছয় লাখ ৪৮ হাজার টাকা, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ থেকে পাওয়া তিন লাখ ১৫ হাজার টাকা, হ্যান্ডবল ফেডারেশন থেকে পাওয়া ২০ হাজার টাকা, ভলিবল ফেডারেশন থেকে পাওয়া ১০ হাজার টাকা, বাস্কেটবল ফেডারেশন থেকে পাওয়া ৩৪ হাজার ও অ্যাথলেটিকস ফেডারেশন থেকে পাওয়া ৬০ হাজার টাকা খেলোয়াড়দের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া জাহেদী ফাউন্ডেশন জেলা ক্রীড়া সংস্থার মাধ্যমে দুস্থ খেলোয়াড় ও সংগঠকদের খাদ্যসামগ্রী প্রদান করেছে। তারা কী পরিমাণ অর্থ প্রদান করেছে তা জানা সম্ভব হয়নি।
বঙ্গবন্ধু ক্রীড়াসেবী ফাউন্ডেশন থেকে প্রাপ্ত অর্থ এসেছে খেলোয়াড় ও সংগঠকদের অনলাইনে করা আবেদনের প্রেক্ষিতে। ইয়াকুব কবির জানান, ‘নির্বাচনে পাস করার পর এক ধরনের মিশন আমরা ঠিক করেছিলাম। কিন্তু করোনার কারণে সেই মিশন সম্পন্ন করা সম্ভব না। জেলার ক্রীড়াঙ্গনে যে ক্ষতি হয়েছে তা কাটিয়ে ওঠা কোনোভাবেই সম্ভব না। করোনা থেকে উত্তরণের পর দ্রুত আমরা জেলার ক্রীড়াঙ্গনকে ক্রীড়ামুখী করবো। খেলাধুলা না থাকায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে খেলোয়াড়। বিভিন্ন উপপরিষদ গঠন করা হয়েছে। তবে, গঠিত উপপরিষদ কার্যনির্বাহী পরিষদের সভা না হওয়ার কারণে অনুমোদন হয়নি। সভায় অনুমোদনের পর এটা প্রকাশ করা হবে। এসব উপপরিষদের উপরই থাকবে খেলা সম্পন্ন করার দায়িত্ব।’
তথ্য অনুসন্ধানে দেখা যায় বিতরণকৃত অর্থের বেশিরভাগই পেয়েছেন সাবেক খেলোয়াড় ও ক্রীড়া সংগঠকরা। কেউ কেউ পেয়েছেন একাধিকবার, আবার বর্তমান কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যদের মধ্যেও কেউ কেউ এ অর্থ পেয়েছেন। বর্তমান সময়ের যারা খেলোয়াড় তারা অনেকাংশেই বঞ্চিত হয়েছেন।
এ বিষয়ে সংস্থার সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আমরা আমাদের সর্বোচ্চ সামর্থ্য দিয়ে দুস্থ খেলোয়াড় ও সংগঠকদের চিহ্নিত করার চেষ্টা করেছি। মানুষ মাত্রই তো কিছু ভুলত্রুটি হয়ে যেতে পারে। সত্যিকার দুস্থ কোনো খেলোয়াড় যদি বঞ্চিত হয়ে থাকে তাহলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করলে আমরা তার জন্যে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেব।’




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft