মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
কেশবপুরের নিরুত্তাপ নির্বাচনে কেবল ফল ঘোষণার অপেক্ষা মাঠে ১৮ ম্যাজিস্ট্রেট
এম. আইউব
Published : Saturday, 11 July, 2020 at 12:42 AM
কেশবপুরের নিরুত্তাপ নির্বাচনে কেবল ফল ঘোষণার অপেক্ষা মাঠে ১৮ ম্যাজিস্ট্রেট যশোর-৬ (কেশবপুর) আসনের উপনির্বাচনের আর মাত্র তিনদিন বাকি। আগামী ১৪ জুলাই হবে এই নির্বাচন। তবে উপনির্বাচন নিয়ে তেমন কোনো উত্তাপ নেই। ভোট নিয়ে আগ্রহ নেই ভোটারদের। নির্বাচনে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামেন। এরই মধ্যে একজন সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। রয়েছেন দু’জন। তাদের মধ্যে একজন আবার নামমাত্র। তার মানে রইলেন একজন। ফলে, প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছাড়াই ফলাফল। এসব কারণে নির্বাচনী উত্তাপ ছড়াচ্ছে না। নিরুত্তাপ নির্বাচনে কোনো ধরনের শঙ্কা না থাকলেও মাঠে রয়েছেন ১৮ জন ম্যাজিস্ট্রেট। ভোট সম্পন্নের পর ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত তারা মাঠে থাকবেন।
রিটার্নিং অফিসারের দপ্তর থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, যশোর-৬ আসনের উপনির্বাচনে দু’লাখ তিন হাজার ১৮ জন ভোটারের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ দু’ হাজার একশ’ ২২ জন আর নারী এক লাখ আটশ’ ৯৬ জন। মোট ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৭৯টি। এসব কেন্দ্রে ভোট কক্ষ থাকবে তিনশ’৭৪ টি। ৭৯ টি কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করবেন ৭৯ জন প্রিজাইডিং অফিসার। প্রতি কক্ষে একজন সহকারী প্রিজাইডিং ও দু’জন পোলিং অফিসার দায়িত্ব পালন করবেন। সেই হিসেবে এক হাজার একশ’ ২২ জন ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করবেন।
যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ আবুল লাইছ জানিয়েছেন, ১৪ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে নির্বাচন উপলক্ষে নিয়োগ করা হয়েছে। গত ৭ জুলাই থেকে তারা দায়িত্ব পালন করেছেন।
রিটার্নিং অফিসার হুমায়ুন কবির জানিয়েছেন, নির্বাচন উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ১৮ জন ম্যাজিস্ট্রেট কাজ শুরু করেছেন। তাদের মধ্যে ১৪ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, দু’জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও দু’জন ম্যাজিস্ট্রেট বিভিন্ন অভিযোগ তদন্তে কাজ করবেন। ৭ জুলাই থেকে তারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ শুরু করেছেন। ১৬ জুলাই পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় থাকবেন তারা।   
এই আসনের সংসদ সদস্য ইসমাত আরা সাদেক গত ২১ জানুয়ারি মৃত্যুবরণ করায় ২৮ জানুয়ারি আসনটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এরপর ১৬ ফেব্রুয়ারি উপনির্বাচনের তপশিল ঘোষণা করা হয়।
উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ তাদের সংগঠনের যশোর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদারকে প্রার্থী করেছে। বিএনপি কেশবপুর উপজেলা সভাপতি আবুল হোসেন আজাদকে প্রার্থী করেছে। কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য হাবিবুর রহমানকে দলীয় প্রার্থী করে জাতীয় পার্টি। সেইভাবে প্রচার-প্রচারণা চলতে থাকে। এরমধ্যে করোনা মহামারি আকার ধারণ করায় নির্বাচনের পূর্বনির্ধারিত সময় স্থগিত করে কমিশন। এ অবস্থায় বিএনপি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে। কেবল ঘোষণা দেয়নি, ব্যালটে যাতে তাদের প্রতীক না ছাপায় সেজন্যে নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছে।
এলাকার লোকজনের সাথে আলাপ করে জানাগেছে, জাতীয় পার্টির প্রার্থী হাবিবুর রহমান নামেমাত্র নির্বাচনে আছেন। তাকে আমলে নিচ্ছেন না কেউই। ফলে, আওয়ামী লীগের প্রার্থী শাহীন চাকলাদার যে বিজয়ী হচ্ছেন সেটি নিশ্চিত। ১৪ জুলাই ভোটগ্রহণের নির্ধারিত সময় পার হলেই নির্বাচন কমিশন আওয়ামী লীগ প্রার্থী শাহীন চাকলাদারকে বিজয়ী ঘোষণা করবেন বলে মনে করছেন ভোটাররা। করোনা ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করায় এলাকার অধিকাংশ মানুষ ভোট নিয়ে ভাবছেন না। কেবলমাত্র রাজনীতিতে পদ-পদবিধারী কিছু মানুষ নির্বাচন নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছেন। নির্বাচনী মাঠ একেবারে ঠাণ্ডা রয়েছে। কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি, সামনে ঘটার আশঙ্কাও নেই। তারপরও নিরুত্তাপ ভোটের মাঠে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাথে বিপুল সংখ্যক ম্যাজিস্ট্রেট নামানো হয়েছে। যাতে করে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না হয়।






সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft