সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
খুনি বরকতের ফাঁসির দাবিতে বাঘারপাড়াবাসী একাট্টা
আসামিকে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা এলাকাবাসীর, থানা ঘেরাও
বাঘারপাড়া (যশোর) অফিস
Published : Monday, 29 June, 2020 at 9:20 PM
আসামিকে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা এলাকাবাসীর, থানা ঘেরাওযশোরের বাঘারপাড়ায় প্রাইভেটকারচালক রিপনের খুনি বরকতের ফাঁসির দাবিতে সোমবারও বিক্ষোভ সমাবেশ ও থানা ঘেরাও করেছে এলাকাবাসী। সকাল থেকেই উপজেলা সদরে কয়েকদফা মিছিল-সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। আসামিকে আদালতে নেয়ার সময় এলাকাবাসী তাকে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করলে পুলিশের সাথে ধস্তাধস্তি হয়। এসব কর্মসূচিতে অংশ নেন মাইক্রোচালক সমিতির সদস্যসহ এলাকার সাধারণ মানুষ। পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও খুনির ফাঁসির দাবিতে রাস্তায় নেমে আসেন।
এদিকে, রিপনের পিতা মনিরুল ইসলাম হত্যাকান্ডের বিষয়ে বাঘারপাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। আটক বরকতকে সোমবার বিকেলে আদালতে পাঠানো হয়। বিকেলে আদালতে দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন তিনি। পরে আদালতের নির্দেশে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।
সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার পর রিপনের হত্যাকারী বরকতউল্লাহর ফাঁসির দাবিতে বাঘারপাড়া উপজেলার চৌরাস্তা মোড়ে অবস্থান নেন বিক্ষোভকারীরা। এসময় কিছু সময়ের জন্যে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। স্থানীয় বাজারের ব্যবসায়ীরা নিজেদের প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে বিক্ষোভকারীদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে রাস্তায় নেমে আসেন। এভাবে কিছু সময় সেখানে অবস্থানের পর বিক্ষোভকারীরা সেখান থেকে ¯েøাগান দিতে দিতে থানা ঘেরাও করেন।
বাঘারপাড়া থানার ওসি সৈয়দ আল মামুন খুনির সর্বোচ্চ শাস্তির জন্যে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিলে বিক্ষোভকারীরা ফিরে আসেন। তবে আদালতে নিয়ে যাওয়ার সময় মহিরণ হাজীবাড়ি এলাকায় স্থানীয় এলাকাবাসী আসামিকে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এসময় পুলিশের সাথে তাদের ধস্তাধস্তি হয়।
এদিকে, বরকতউল্লাহ সোমবার জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মঞ্জুরুল ইসলামের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তিনি জানান, ঘটনার সময় তিনি দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে বাঘারপাড়ায় নানা বাড়িতে গিয়েছিলেন। পথে তার মোটরসাইকেল নষ্ট হয়ে যায়। সেটা একটি ভ্যানে নিয়ে বাঘারপাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মোড়ে যান। এসময় মাইক্রোতে থাকা একজন তার স্ত্রীকে বিরক্ত করেন। তিনি প্রতিবাদ করতে গেলে তারা তার উপর চড়াও হয়। এক পর্যায়ে আরও লোকজন জড় হয়ে তাদেরকে মারতে থাকে। বাধ্য হয়ে নিজের কাছে থাকা ছোট একটা চাকু দিয়ে তাদের উপর আঘাত করেন তিনি। যা রিপনের গায়ে লাগে এবং মৃত্যু হয়। আদালত জবানবন্দি গ্রহণ শেষে বরকতউল্লাহকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।
গত রোববার দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে তুচ্ছ ঘটনায় ছুরিকাঘাতে প্রাইভেটকারচালক রিপন হোসেন খুন হন। নিহত রিপন উপজেলার মহিরন গ্রামের মনিরুল ইসলামের ছেলে। এঘটনায় রিপনের পিতা বরকত উল্লাহ খানের বিরুদ্ধে বাঘারপাড়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন। বরকত যশোর সদরের মোল্যাপাড়া এলাকার বাসিন্দা। তিনি ওই এলাকার মৃত মাহফুজুর রহমানের ছেলে। সোমবার বিকেলে নিহত রিপনের জানাজা শেষে মহিরণ সরকারি কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।
বাঘারপাড়া থানার ওসি সৈয়দ আল মামুন সাংবাদিকদের বলেন, ‘এলাকার পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft