মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
চিতলমারীতে পঙ্গু মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের ওপর হামলা
আহতদের চিকিৎসা নিতে দিচ্ছে না সন্ত্রাসীরা
চিতলমারী (বাগেরহাট) প্রতিনিধি
Published : Friday, 5 June, 2020 at 11:10 PM
আহতদের চিকিৎসা নিতে দিচ্ছে না সন্ত্রাসীরাসন্ত্রাসীদের বর্বরোচিত হামলার শিকার পঙ্গু মুক্তিযোদ্ধাসহ তাঁর পরিবারের পাঁচ সদস্য চিকিৎসা নিতে পারছেন না। হামলাকারীরা আহতদেরকে নিজেদের বাড়িতেই অবরুদ্ধ করে রেখেছে। ঘটনাটি ঘটেছের বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার চরবানিয়ারী ইউনিয়নের উত্তর খলিশাখালির বাবুগঞ্জ বাজারে। শুক্রবার দুপুরে সরেজমিনে গেলে এই তথ্য জানা যায়।
পঙ্গু মুক্তিযোদ্ধা হরবিলাস পোদ্দার কান্নাজড়িত কণ্ঠে সাংবাদিকদের জানান, উপজেলার চরবানিয়ারী ইউনিয়নের উত্তর খলিশাখালি মৌজায় ১ নম্বর খতিয়ানে এসএ ১৭২ নম্বর দাগে বাবুগঞ্জ বাজারে তাঁর ১৮ শতক জমি রয়েছে। সেখানে তিনি পরিবারের সদস্যদের নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছেন। সম্প্রতি গায়ের জোরে স্থানীয় প্রভাবশালী ইলিয়াস শেখ রাতারাতি একটি ঘর তুলে ওই জমি দখলে নেয়। এরপর থেকে সে আরও জাগয়া দখল নিতে মরিয়া হয়ে ওঠে। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানালে তিনি ওসিকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলেন। ওসি থানার এসআই সঞ্জয় দে’কে ঘটনাস্থলে পাঠান।
পুলিশ আসার ঘটনায় আরও ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন দখলদার ইলিয়াস শেখ। এর জের ধরে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে ইলিয়াস ও বেল্লালের নেতৃত্বে ১৫/২০ জন সন্ত্রাসী তাদের পরিবারের ওপরে হামলা চালায়। হামলায় তার স্ত্রী সবিতা পোদ্দার (৫০), মেয়ে আখি স্বর্ণকার (৩০), ছেলে উজ্বল পোদ্দার (২৮), নাতি রাহুল স্বর্ণকার (১০) ও ঠেকাতে এসে প্রতিবেশী কলেজ শিক্ষক প্রদীপ মন্ডল (৪৬) আহত হন। ঘটনার পর ওই প্রভাবশালীরা আহত সবাইকে তাদের বাড়িতে অবরুদ্ধ করে রেখেছে। প্রয়োজনীয় চিকিৎসা নেয়ার জন্যেও তাদেরকে বাড়ি থেকে বের হতে দিচ্ছে না। এমনকি থানায়ও অভিযোগ দিতে পারছেন না তারা।
প্রতিবেশী ও শিক্ষক প্রদীপ মন্ডল বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের ওপর নির্যাতন দেখে সইতে না পেরে মানবিক কারণে আমি ঠেকাতে যাই। দখলবাজ ওই সন্ত্রাসীরা আমাকেও পিটিয়ে আহত করেছে।’
ইলিয়াস শেখ হামলার ঘটনা অস্বীকার করে জানান, ওই মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সাথে তাদের ঝগড়াঝাটি হয়েছে। তাছাড়া ওই জায়গা তিনি হাশেম নামে এক ব্যাক্তির কাছ থেকে কিনেছেন।
এব্যাপারে চিতলমারী থানার এসআই সঞ্জয় দে জানান, মুক্তিযোদ্ধা ওই পরিবারের ওপর হামলার খবর শুনে ঘটনাস্থলে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। আহত ওই পরিবারটি লিখিত অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।
তবে চিতলমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মারুফুল আলম সাংবাদিকদের জানান, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের ওপর হামলার কথা শুনে তাৎক্ষণিক পুলিশ পাঠানো হয়। বিষয়টি স্থায়ীভাবে সমাধানের জন্য ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft