শনিবার, ০৮ আগস্ট, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
প্রসাবীর স্ত্রীর সাথে পরকীয়ার জেরে চৌগাছায় যুবক খুন
চৌগাছা (যশোর) অফিস
Published : Friday, 5 June, 2020 at 1:55 PM
প্রসাবীর স্ত্রীর সাথে পরকীয়ার জেরে চৌগাছায় যুবক খুনযশোরের চৌগাছা থানা পুলিশ বিপুল হোসেন (৪০) নামের এক ব্যক্তির বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করেছে। শুক্রবার সকালে উপজেলার মুলিখালী নামক স্থানের বটতলা থেকে এই লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত বিপুল তিন দিন ধরে নিখোঁজ ছিলেন। পরকীয়া সম্পর্কের জের ধরে কৌশলে তাকে অপহরণ করে এই হত্যাকান্ড ঘটানো হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
নিহত বিপুল হোসেন উপজেলার স্বরূপপুর ইউনিয়নের বড় কাকুড়িয়া গ্রামের মৃত সামসুল হকের ছেলে। এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব জানান, শুক্রবার ভোরে থানা পুলিশ জানতে পারে বস্তাবন্দি অবস্থায় মুলিখালী নামক স্থানের বটতলায় একটি লাশ পড়ে আছে। বস্তা থেকে লাশপচা দুর্গন্ধ বের হচ্ছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।
তিনি বলেন নিহত ব্যক্তির নাম বিপুল হোসেন। তিনি বড় কাকুড়িয়া গ্রামের মৃত সামসুল হকের ছেলে। হত্যাকান্ডের বিষয়ে ইতোমধ্যে পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।
নিহত বিপুল হোসেনের ভাই লিটন হোসেন জানান, গত বুধবার সকালে বড় কাকুড়িয়া গ্রামে প্রবাসী আবু সামার জামাতা চৌগাছা মাঠপাড়ার লালনের ছেলে রফিকুল ইসলাম গরু কেনার নাম করে বিপুল হোসেনকে মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে যান। কিন্তু এদিন রাত পর্যন্ত বিপুল বাড়িতে না ফেরায় পরিবারের লোকজন চিন্তিত হয়ে পড়েন। তারা বিভিন্ন স্থানে খোঁজখবর নিয়েও তার হদিস মেলেনি। এমনকি তার ব্যবহৃত মোবাইলে পরিবারের লোকজন ফোন করলেও রিসিভ করা হয়নি। মোটরসাইকেলে তুলে নেয়া রফিকুল ইসলাম নিজেই একজন গরু ব্যবসায়ী। ফলে বিপুলের কোন খোঁজ না পাওয়ায় পরিবারের লোকজন তার কাছে জানতে চান বিপুল কোথায় আছে। কিন্তু সে সময় রফিকুল তাদেরকে জানিয়ে দেন, বিপুল গরু কিনতে পুড়াপাড়া হাটে গেছে। রাতে কোনো খোঁজ না পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে পরিবারের লোকজন বিপুলের নিখোঁজের বিষয়ে সংশ্লিষ্ঠ থানায় যান। সেখানে বিপুলের ভাই লিটন হোসেন পরকীয়া নারীর মেয়ের জামাতা রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিপুলকে অপহরণ করার লিখিত অভিযোগ দেন। এসময় ওসি থানায় ছিলেন না। থানার ওসি (তদন্ত) এসএম এনামুল হক অভিযোগটি আমলে না নিয়ে আরও খোঁজখবর করার জন্য তার পরিবারকে পরামর্শ দেন।
থানার ওসি (তদন্ত) এসএম এনামুল হক জানান, ‘তারা কোনো লিখিত অভিযোগ দেয়নি। মৌখিকভাবে জানালে বুধবারই আমি গ্রামে গেছি। পুলিশের পক্ষ থেকে যথাসম্ভব খোঁজখবর নেয়া হয়েছে।’
এলাকাবাসী জানান, নিহত বিপুল হোসেনের সাথে বড় কাকুড়িয়া গ্রামের মালয়েশিয়া প্রবাসী আবু সামার স্ত্রী ফুলবানুর পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল। এ বিষয়টি জানাজানি হলে বেশকিছুদিন ধরে উভয় পরিবারের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। প্রবাসী আবু সামার পরিবার থেকে নিষেধ করা হলেও মোবাইলে উভয়ের কথাবার্তা চলতে থাকে। স্থানীয়দের ধারণা, পরকীয়া সম্পর্কের জের ধরেই এই হত্যাকান্ড ঘটেছে।
এদিকে বিপুল হোসেন হত্যাকান্ডের ঘটনায় প্রবাসী আবু সামার জামাতা চৌগাছা মাঠপাড়ার রফিকুল ইসলামসহ আবু সামার পরিবারের লোকজন গা ঢাকা দিয়েছেন। পুলিশ তাদেরকে খুঁজে বের করার চেষ্টা চালাচ্ছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।





সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft