মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
যশোরে স্বাস্থ্যসেবীসহ নতুন শনাক্ত চারজন
ফয়সল ইসলাম :
Published : Saturday, 30 May, 2020 at 11:55 PM
যশোরে স্বাস্থ্যসেবীসহ নতুন শনাক্ত চারজনযশোরে  আরো  চার জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এ নিয়ে যশোরে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ১শ’ ৪জনে। আগে আক্রান্তদের মধ্যে শনিবার কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত সিনিয়র স্টাফ নার্স আমেনা খাতুন করোনা থেকে মুক্তি পেয়েছেন। ১০জন ডাক্তার, পাঁচজন নার্স ও অন্যান্য স্বাস্থ্যসেবী ৩২জনসহ জেলায় করোনা জয়ীর সংখ্যা ৬৭জন।
নতুন চারজন আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে সিভিল সার্জন ডাক্তার শেখ আবু শাহীন জানিয়েছেন, শনিবার খুলনা মেডিকেল কলেজের ল্যাব থেকে পাঠানো নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে নতুন আক্রান্ত চারজনের মধ্যে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ডেন্টাল) রয়েছেন। তিনি বসবাস করেন সদর উপজেলার আরবপুর ইউনিয়নের কদমতলা সরদার পাড়ায়। এছাড়া অন্য তিনজন আক্রান্তের মধ্যে সদর উপজেলার বিরামপুরের এক গৃহবধূ (২৭), অভয়নগরের বাসুয়াড়ি গ্রামের ৯ বছরের এক শিশু ও শার্শা উপজেলার কাজীরবেড় যাদবপুর গ্রামের একজন সরকারি চাকরিজীবী (৫০) রয়েছেন। সংশ্লিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাগণকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে আক্রান্তদের যথাযথ চিকিৎসা ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণ, তাদের সংস্পর্শে আসাদের চিহ্নিত করে কোয়ারেন্টাইনে রাখা ও প্রশাসনের সহযোগিতায় তাদের বসবাসের বাড়ি গুলো লকডাউন করতে।
সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত ডাক্তার আদনান ইমতিয়াজ বলেন, উর্ধ্বতন কর্মকর্তার নির্দেশে তিনি কদমতলা সরদার পাড়ায় বসবাসরত মেডিকেল টেকনোলজিস্ট হোম আইসোলেশনে ও তার স্ত্রীসহ দু’সন্তানকে কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। করোনায় আক্রান্ত স্বাস্থ্যসেবীর জ্বর ও ডায়রিয়া হয়েছিল। গত ২৭ মে তিনি নমুনা দেন।
সদর উপজেলার বিরামপুরে আক্রান্ত গৃহবধূর কোনো উপসর্গ ছিল না। তার স্বামী ঢাকায় কর্মরত। সেখানকার একজনকে রক্ত দেয়ার জন্যে রুটিন টেস্ট করাতে ২৭ মে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যান। রক্তের স্ক্রিনিং পরীক্ষার পাশাপাশি করোনা টেস্টের জন্যেও তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। টেস্টের রেজাল্ট পজেটিভ এসেছে। কোনো উপসর্গ না থাকায় ওই গৃহবধূ শনিবার শহরতলীর মুড়লী মোড় এলাকায় তার বাবার বাড়িতে যান। ফলে ওই বাড়ির চারজনকে কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। একই সাথে আক্রান্ত গৃহবধূকে নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রশাসনের সহযোগিতায় আজ আক্রান্ত ও তাদের সংস্পর্শে থাকাদের বসবাসের বাড়ি লকডাউন করা হবে।
শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার ইউসুফ হোসেন বলেন, কাজীরবেড় যাদবপুর গ্রামে আক্রান্ত ব্যক্তি চট্টগ্রামে সরকারি চাকরি করেন। সম্প্রতি তিনি বাড়ি ফিরেছেন। জ্বর ও কাঁশিতে উপসর্গ নিয়ে ২৭ মে তিনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে নমুনা দিয়ে যান। তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন নিশ্চিত হওয়ার সাথে সাথে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। আক্রান্ত ব্যক্তিকে হোম আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা ব্যবস্থা করাসহ তার পরিবারের পাঁচজন ও ওই বাড়ির ভাড়াটিয়া পাঁচজনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। একই সাথে শার্শা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেনের উপস্থিতিতে বাড়িটি লকডাউন করা হয়েছে।
অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার এস এম মাহমুদুর রহমান রিজভি বলেন, ঢাকা ফেরত উপজেলার বাসুয়াড়ি গ্রামের এক বাসিন্দা করোনায় আক্রান্ত হয়ে খুলনায় চিকিৎসাধীন আছেন। ২৭ মে তার পরিবারের অন্য সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্যে পাঠানো হয়েছিল। ওই ব্যক্তির ৯ বছর বয়সী মেয়ের নমুনায় করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। বাড়িতে আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা না থাকায় শিশুটিকে সরকারি ব্যবস্থাপনায় নিয়ে এসে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালে তার প্রয়োজনীয় চিকিৎসা চলবে। শিশু যাতে কোনো রকম ভয়ভীতি কাটাতে ও চিকিৎসা কাজে সহযোগিতার জন্যে তার চাচীকে সাথে থাকার অনুমতি দেয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রাখা ও স্বাস্থ্যবিধি মানা হবে।
এদিকে, কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার আলমগীর হোসেন জানিয়েছেন গত ১২ মে নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজেটিভ আসা সিনিয়র স্টাফ নার্স আমেনা সুস্থ হয়েছেন। পরপর দু’টি অর্থাৎ ২৬ মে দ্বিতীয় ও ৩০ মে তৃতীয় তার নমুনা পরীক্ষার রেজাল্ট নেগেটিভ এসেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইড লাইন ও স্বাস্থ্যবিধি অনুযায়ী তাকে করোনা জয়ী ঘোষণা করে তার হাতে মেডিকেল সার্টিফিকেট তুলে দেয়া হয়েছে। একই সাথে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft