মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ, ২০২০
সারাদেশ
ইয়াবা ও হেরোইনের বিকল্প
ভয়ংকর মাদক ব্যাথানাশক ট্যাবলেট
শাহ্ আলম শাহী, দিনাজপুর থেকে :
Published : Monday, 17 February, 2020 at 4:32 PM
ভয়ংকর মাদক ব্যাথানাশক ট্যাবলেট দিনাজপুরে  ইয়াবা ও হেরোইনের বিকল্প ভয়ংকর মাদক ব্যাথা নাশক ট্যাবলেট ব্যবস্থাপত্র ছাড়াই অবাধে বিক্রি হচ্ছে। আর তা সেবন করে শুধু নৈতিক অধঃপতনে নয়,অকালে ঝড়ে পড়ছে তরুন ও যুব সমাজ। এ অভিযোগে বেশ কয়েকটি ওষুধের দোকানে অভিযান চালিয়ে জরিমানা ও দোকান সীলগালা করেছে,প্রশাসন। ব্যবস্থাপত্র ছাড়া ওষুধ বিক্রি না করার প্রশাসনিক নিষেধাজ্ঞা সত্বেও প্রায় সব দোকানেই মিলছে মাদকের বিকল্প এসব ভয়ংকর নেশাজাতীয় ওষুধ।তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন,মাদক হিসেবে এসব ওষুধের ব্যবহার রোধ করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।
সীমান্ত ঘেষা জেলা দিনাজপুরে মাদকে ছড়াছড়ি। তারপরও কেনো ইয়াবা ও হেরোইনের বিকল্প হিসেবে এই ভয়ংকর মাদক ব্যাথানাশক ট্যাবলেট  কেনো মাদকাসক্তরা  ব্যবহার করছে ? তা অসুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে,চমকপ্রদ তথ্য। প্রথমতঃ দামে কম ও হাতের নাগালে পাওয়া সহজলভ্য মাদক। দ্বিতীয়তঃ ব্যাথানাশক ট্যাবলেট সেবনে নাকি ইয়াবা ও হেরোইনের চেয়েও বেশী নেশা হয়। তিত্বীয়তঃ মাদকের বিরুদ্ধে পুলিশ-প্রশাসনের কঠোর অবস্থানে ব্যাথানাশক ট্যাবলেট নিরাপদ সরবরাহ (ক্রয়-বিক্রয়)।
এই মাদক গ্রহনের দৃশ্য ইয়াবা বা হেরোইনের মত হলেও আসলে মাদকাসক্তরা একই পদ্ধতিতে সেবন করে থকে ভংয়কর মাদক ব্যাথানাশক ট্যাবলেট। গত কয়েক বছর ধরেই ইয়াবা ও হোরোইনের বিকল্প হিসেবে মাদকাসক্তরা টাপেন্টা, সিলটা, পেন্টাডল, লোপেন্টাসহ বিভিন্ন ব্যাথানাশক ট্যাবলেট সেবন করছেন। এ অভিযোগে এরই মধ্যে জেলার ৩টি দোকান ছাড়া বাকী ওষুধের দোকানগুলোকে ব্যাথনাশক ট্যাবলেট বিক্রি বন্ধ করে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে ওষুধ প্রশাসন। একই অভিযোগে বেশ কয়েকটি ওষুধের দোকানে অভিযান চালিয়ে জরিমানা ও দোকান সীলগালা করেছে,প্রশাসন(ভ্রম্যমান আদালত)। কিন্তু এরপরও ব্যবস্থাপত্র ছাড়াই অধিকাংশ দোকানে এসব ট্যাবলেট গোপনে বিক্রি করছে এক শ্রেণির অসৎ ওষূক ব্যবস্থায়ী। জেলা শহরের চারুবাবু’র মোড়, বালুয়াডাঙ্গা বাসষ্ট্যান্ড মোড়,হাসপাতাল মোড়, টিএনটি রোড়, গোলকুঠি রোড়, মেডিকেল মোড়, সুইহারী, পুলহাটসহ শহরের বেশ কিছু স্থান এবং  জেলার ১৩টি উপজেলায় বেশকিছু স্থানে ক্রয়-বিক্রয় চলছে ইয়াবা ও হেরোইনের বিকল্প হিসেবে এই ভয়ংকর মাদক ব্যাথানাশক ট্যাবলেট।প্রতি পিস ১৫ টাকা থেকে ২০ টাকার ট্যাবলেট বিক্রি হচ্ছে,এক ৮০ টাকা দেড়’শ টাকায়।এর ছোবল থেকে রেহাই পায়নি জনপ্রতিনিধিরাও। দিনাজপুরের বীরগঞ্জ পৌরসভার এক পৌর কাউন্সিলর ভয়ংকর এই মাদক ব্যাথানাশক ট্যাবলেট সম্পর্কে দিয়েছেন ভয়াবহ তথ্য। তিনি এই ভয়ংকর এই মাদক ব্যাথানাশক ট্যাবলেটে আসক্ত হয়ে এক জীবন-মৃত্যু’র সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। এই মাদকাসক্ত থেকে রেহাই পেতে তিনি এখন দিনাজপুর শহরের “নতুন জীবন” নামে একটি মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওইপৌর কাউন্সিলর জানিয়েছেন,যে ব্যাথা নাশক ট্যাবলেট এমন ভয়ংকর মাদক যে তা একবার সেবনের পর পরর্বীতে তা সেবন না করে থাকা যায় না। হাত-পাসহ সমস্ত শরীর ব্যাথা,শরীরে কাঁপুনি,বুক ধরপর করতে থাকে। তা সেবনের পর আবার কিছু সময় ভালো থাকা যায়। নিজেকে ভালো লাগে। এই ব্যাথানাশক ট্যাবলেট সেবন করলে শুরু শারীরিক অসুস্থা না, যৌন শক্তি পুরোপুরি হ্রাস পায় (কমে যায়)। কিটনি নষ্ট,ক্যানসারসহ বিভন্ন রোগ সৃষ্টি হয়। এই ব্যাথানাশক ট্যাবলেট মাদক সেবন করে ইতোমধ্যে তার কয়েবজন বন্ধ (মাদক সঙ্গী) মারা গেছে। আর এ কারণে তার পরিবার তাকে মাদকাসক্ত নিরাময়ে কেন্দ্রে ভর্তি করিয়েছেন। শেষে তিনি এই ভয়ংকর নেশা থেকে দুরে থাকার জন্য সকলের প্রতি আহবানও জানিয়েছেন।
মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র “নতুন জীবন” এর নির্বাহী পরিচালক ডা.মো. আরাফাত উল্লাহ্ জানান,টাপেন্টা, সিলটা, পেন্টাডল, লোপেন্টাসহ বিভিন্ন ব্যাথা নাশক ওষুধ ইয়াবা ও হেরোইনের মতই সেবন করা হচ্ছে। এসব ওষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ফেন্সিডিল,গাঁজা,ইয়াবা ও হেরোইনের  চেয়েও  তীব্র এবং ভয়ংকর। দাম কম ও সহজলভ্য হওয়ায় এর প্রভাব বাড়ছে। মাদকের উপাদান এভাবে বাড়লে মাদক নির্মূল করা সম্ভব হবে না বলে আশঙ্কা তার। তাই,তা বিক্রি নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনের প্রতি আহবান জানিয়েছেন তিনি।
সরজমিনে দেখা গেছে, শহরের বালুয়াডাঙ্গা দোতালা মসজিদ মোড় সংলগ্ন বাসষ্ট্যান্ড এর বিপরীতে সোনালী মেডিসিন কর্ণার ও কেয়া ফার্মেসীতে মুড়ি-মুড়কি’র মতো অবাধে বিক্রি হচ্ছে এসব নেশাজাতীয় ব্যাথানাশক ট্যাবলেট। মাদকসেবীরা প্রকাশ্যে মুড়ি-মুড়তির মতো এইসব ওষুধ ক্রয় করছেন। ক্রয়দাতাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তারা গ্রামের কাগজের এই প্রতিবেদককে জানান, এসব মাদক হিসেবেই এই ওষুধ গ্রহণ করেন তারা। দাম বেশি নেয়ায় ওষুধ দোকানীর প্রতি অনেক অক্ষেপ ও অভিযোগ তাদের। তারপরও যে দিচ্ছে,এটাতে তাদের স্বস্তির নিশ্বাস। আর বিক্রেতারা বলছেন-প্রায় সকল দোকানেই এসব বিক্রি হচ্ছে। তারা মেডিসিন হিসেবেই তা বিক্রি করছেন, নেশা হিসেবে নয়।
ওসব ওষুধে ইয়াবা ও হেরোইনের উপাদান পাওয়া যাওয়ায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের কথা জানিয়েছে দিনাজপুর মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. রাজিউর রহমান। তিনি বলেন, আমরা প্রশাসনের সহায়তায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিচ্ছি,এসব ব্যাথা নাশক ট্যাবলেট বিক্রি নিয়ন্ত্রণে।
ইতিমধ্যে ওষুধ প্রশাসন বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন।দিনাজপুর জেলা ওষুধ প্রশাসনের তত্ত্বাবধায়ক এস.এম. সুলতান আরেফিন জানিয়েছেন, নিদির্ষ্ট দোকান ছাড়া এসব ব্যাথা নাশক ট্যাবলেট বিক্রি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এ অভিযোগে বেশ কয়েকটি ওষুধের দোকানে অভিযান চালিয়ে জরিমানা ও দোকান সীলগালা করেছে,প্রশাসন।
উত্তরের সীমান্ত ঘেষা জেলা দিনাজপুরে নবাগত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বিপিএম ও পিপিএম (বার) যোগদানের পর মাদকের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করেছেন। সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় তিনি তিনি জানিয়েছেন, “মাদক না  হয় তিনি যে কোন একটি থাকবে জেলায়”। আর তার এই কথার প্রতিফলন ঘটাতে প্রতিদিন জেলায় কমবেশি আটক হচ্ছে,মাদক বিক্রেতা ও মাদকসেবী। কয়েকদিন আগে দুই মাদক ব্যবসায়ী বন্ধুক যুদ্ধে নিহত হয়েছেন। তাই, মাদক বিক্রেতা ও মাদকাসক্তদের কাছে অন্যান্য নেশা ঝুকিপূর্ণ হওয়ায় দামে কম ও হাতের নাগালে পাওয়া এবং সহজলভ্য মাদক ব্যাথানাশক ট্যাবলেট ক্রয়-বিক্রয় বেড়েছে।
জেলার অসংখ্য ওষুধের দোকান ও ফার্মেসীতে ইয়াবা ও হেরোইনের চেয়ে ভয়ংকর মাদক ব্যাথা নাশক ট্যাবলেট  অবাধে মুড়ি-মুড়কির মতো বিক্রি হচ্ছে। আর তা সেবন করে শুধু নৈতিক অধঃপতনে নয়, অকালে ঝড়ে পড়ছে তরুণ ও যুব সমাজ। তাই, লোক দেখানো ভাম্যমান আদালতের অভিযান নয়,বাস্তবে এসব ভয়ংকর নেশা জাতীয় ট্যাবলেট ব্যাথা নাশক ট্যাবলেট বিক্রি নিয়ন্ত্রণে স্থানীয় প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কঠোর হস্তক্ষেপ নেবেন এমনটাই প্রত্যাশা করছেন মাদকাসক্ত সজনের ভুক্তভোগি পরিবার ও সাধারণ মানুষ।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft