বুধবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
পরিবহন সংশ্লিষ্টরা সময় পাচ্ছে আরও সাত দিন
ট্রাফিক প্রস্তুত হলেও আইন কার্যকরের নির্দেশনা এখনো আসেনি
দেওয়ান মোর্শেদ আলম :
Published : Friday, 8 November, 2019 at 6:06 AM

ট্রাফিক প্রস্তুত হলেও আইন কার্যকরের নির্দেশনা এখনো আসেনি সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি, গাড়ির রেজিস্ট্রেশন, ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকাসহ অনেকগুলো অসংগতিতে শাস্তির বিধান রেখে নতুন সড়ক পরিবহন আইন ঘোষণায় যশোর ট্রাফিক বিভাগ প্রস্তুত থাকলেও কার্যকরের নিদেশনা আসেনি। অ্যাকশান নয়, আরো এক সপ্তাহ সতর্কীকরণ ও পরামর্শ কার্যক্রম চালাবে পুলিশ।  প্রথমে ১ নভেম্বর ও পরে ৮ নভেম্বর থেকে আইনটি কার্যকর করার ঘোষণার পরও সড়ক পরিবহন সংশ্লিষ্টরা নিজেদের শুধরে নিতে আরও সাত দিন সময় পাচ্ছেন।
বেপরোয়া মোটরযান চালানোর কারণে সংঘটিত দুর্ঘটনায় কোনো ব্যক্তি গুরুতরভাবে আহত বা নিহত হলে চালককে সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের কারাদ- বা সর্বোচ্চ পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দ-ে দ-িত হওয়ার বিধান রেখে নতুন সড়ক আইন ২০১৮ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। এ আইনে বেপরোয়া যানবাহন পরিচালনার মাধ্যমে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটালে সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান তিন বছর রাখা হয়। গত ২২ অক্টোবর সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করে ১ নভেম্বর কার্যকরের তারিখ নির্ধারণ হয়।  
নতুন আইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার জন্য চালকের কমপক্ষে অষ্টম শ্রেণি পাসের শর্ত রাখা হয়। অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য বয়স নুন্যতম ১৮ এবং পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য বয়স নুন্যতম ২১ বছর ধার্য করা হয়। নতুন আইনে হেলপারের থাকতে হবে পঞ্চম শ্রেণি পাসের সার্টিফকেট। তারও বাধ্যতামূলকভাবে লাইসেন্স বিধান থাকতে হবে। গণপরিবহণে কন্ডাক্টরের জন্য লাইসেন্স গ্রহণ বাধ্যতামূলক। গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না চালক। এ আইন ভাঙলে এক মাসের কারাদ- বা পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা হবে। ছয় মাসের কারাদ- বা ৫০ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। এমন অপরাধের ক্ষেত্রে চালককে বিনা পরোয়ানায় আটকের ক্ষমতা দেয়া হয়েছে পুলিশকে। এই আইনে লাইসেন্সে থাকবে মোট ১২ পয়েন্ট। বিভিন্ন বিধি অমান্যে কাটা যাবে এই পয়েন্ট। পয়েন্ট শূন্য হলে বাতিল হবে চালকের লাইসেন্স।
১ নভেম্বর থেকে নতুন আইন কার্যকরের ঘোষণায় যশোর ট্রাফিক বিভাগ ও জেলা পুলিশ প্রস্তুত ছিল। কিন্তু সড়ক মন্ত্রণায়ের নির্দেশনা না আসায় ট্রাফিক পুলিশ সড়কে শুধু সর্তক ও পরামর্শ কাক্রম চালিয়েছে। আবার আজ থেকে অ্যাকশানে যাওয়ার ব্যাপারেও নির্দেশনা পায়নি পুলিশ।
যশোর সদর ট্রাফিকের ইন্সপেক্টর সাখাওয়াত হোসেন ৭ নভেম্বর সন্ধ্যায় গ্রামের কাগজকে জানিয়েছেন  সড়ক ও সেতু মন্ত্রী এদিন ঢাকায় বিআরটিএর সাথে মতবিনিময়সভা করেছেন।  সেখানে তিনি বলেছেন সড়ক পরিবহন সংশ্লিষ্টরা ও জনসাধারণ যাতে নতুন আইনের  আওতায় আসা অসংগতি ও ত্রুটি কাটিয়ে উঠতে পারে তার জন্য সময় প্রয়োজন।  ইতোমধ্যে বিআরটিএতে ড্রাইভিং লাইসেন্স ও রেজিস্ট্রেশন ও অন্যান্য বিষয়গুলো নিয়ে ভিড় জমাচ্ছে মানুষ। আগ্রহও দেখা যাচ্ছে। কাজেই আরো ৭ দিন পুলিশকে রাস্তায় সতর্ক করা ও পরামর্শ দেয়া সংক্রান্ত কাজ করতে হবে। এরপরও পুলিশ সুপার ট্রাফিককে কোনো নির্দেশনা দেন কিনা সে অপেক্ষায় আছেন তারা।
ট্রাফিকের অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, নতুন আইন নিয়ে মাঠে কাজ শুরু হলে পুলিশ  মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে নিদিষ্ট বিষয়ে দ- কার্যকর করবে। নির্ধারিত শব্দমাত্রার অতিরিক্ত উচ্চমাত্রার শব্দ সৃষ্টি বা হর্ণ বাজানো বা কোন যন্ত্র বা যন্ত্রাংশ বা হর্ণ মোটরযানে স্থাপন করলে ৩ মাসের কারাদ- বা ১০ হাজার টাকা জরিমানা। পরিবেশ দূষণকারী, ঝুঁকিপূর্ণ ইত্যাদি মোটরযান চালনার বিধি নিষেধ লংঘন করলে ৩ মাসের কারাদ- বা ২৫ হাজার টাকা জরিমানা। মোটরযান পার্কিং এবং যাত্রী বা পণ্য উঠানামার নির্ধারিত স্থান ব্যবহার লংঘন করলে ৫ হাজার টাকা জরিমানা। দ্রুতগতির মোটরযান প্রবেশের ক্ষেত্রে মহাসড়কের ব্যবহার বিধান লংঘন করলে ১ মাসের কারাদ- বা ৫ হাজার টাকা জরিমানা। মোটরযান চলাচলের সাধারণ নির্দেশাবলীর বিধান লংঘন ( মদ্যপান, সেবন, কন্ডাক্টর কর্তৃক গাড়ি চালানো, উল্টোপথে গাড়ি চালানো, মোটরসাইকেলে ৩ জন ও হেলমেট বিহীন, চলন্ত অবস্থায় যাত্রী উঠানামা, ফুটপাতে গাড়ি চালানো)  করলে ৩ মাসের কারাদ- বা ১০ হাজার টাকা জরিমানা। মোটরযান চলাচলের সাধারণ নির্দেশাবলীর বিধান লংঘন ( মোবাইল ফোনে কথা বলা, সিটবেল্ট না বাধা, খারাপ আচরণ, অতিরিক্ত যাত্রী বহন, সংরক্ষিত আসনের জন্য যাত্রী বহন) করলে ১ মাসের কারাদ- বা ৫ হাজার টাকা জরিমানা। এছাড়াও আরো ডজনখানেক অপরাধের জন্য শাস্তির বিধান রয়েছে এ আইনে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft