মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
ছুটিপুর সীমান্ত ডায়াগনস্টিক এন্ড ডায়াবেটিস কেয়ার
ডাক্তার সেজে প্রতারণা করছেন হুমায়ুন কবির
আশিকুর রহমান শিমুল :
Published : Thursday, 7 November, 2019 at 12:27 AM
ছুটিপুর সীমান্ত ডায়াগনস্টিক এন্ড ডায়াবেটিস কেয়ার যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার ছুটিপুর জামতলা মোড়ে সীমান্ত ডায়াগনস্টিক এন্ড ডায়াবেটিস কেয়ারে রমরমা প্রতারণা চলছে। হুমায়ুন কবির নামে এক মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ডাক্তার পরিচয় দিয়ে এ প্রতারণা করছেন। তার খপ্পরে পড়ে প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। পেশায় মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট হলেও প্রেসক্রিপশন ও প্যাথলজিক্যাল রিপোর্ট করছেন তিনি। 

সরেজমিনে দেখা গেছে, হুমায়ুন কবির রোগীদের আকৃষ্ট করতে গড়ে তুলেছেন সুসজ্জিত চেম্বার। এ ছাড়া, রোগী আসলেই ল্যাপটপের সামনে বসিয়ে খোদ যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাক্তারের চেয়ে নিজেকে বড় ডাক্তার দাবি করে চিকিৎসা দিচ্ছেন। রোগীদের ল্যাপটপের সামনে বসিয়ে এনালাইজারের সাথে কানেকশন থাকা একটি বস্তু হাতের মুঠোয় ধরিয়ে দেয়া হচ্ছে। এরপর ল্যাপটপের দিকে তাকিয়ে থেকে হুমায়ুন কবির মানুষের রোগ শনাক্ত করছেন। ‘ রক্তের দু’ একটি পরীক্ষা ছাড়া এ মেশিনে কোনো রোগ শনাক্ত সম্ভব না বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। তার প্রতারণার ফাঁদে পড়ে সুস্থ হওয়া তো দূরের কথা রোগীদের আরও বেশি বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে। প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত পরীক্ষা নিরীক্ষার নামে মানুষের সাথে প্রতারণা করছেন তিনি। 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে তার এক নিকট আত্মীয় বলেন, হুমায়ুন কবির ২০০০ সালে মানবিক বিভাগ থেকে এসএসসি, ২০০২ সালে একই বিভাগ থেকে এইচএসসি ও ২০০৬ সালে ডিগ্রি পাাস করেন। কিছুদিন আগে ছুটিপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের চিকিৎসক লাল্টুকে সাথে নিয়ে জামতলা মোড়ের মানমুন মার্কেটে সীমান্ত ডায়াগনস্টিক এন্ড ডায়াবেটিস সেন্টার নামে একটি প্রতিষ্ঠান খুলেছেন। লাল্টু এমবিবিএস ডাক্তার হলেও তিনি এই প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত রোগী দেখেন না। মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট হুমায়ুন কবির নিজে ডাক্তার সেজে রোগী দেখছেন। এমনকি এখানে কোনো প্যাথলজিষ্ট নেই। নিজেই পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন। 

এ ব্যাপারে হুমায়ুন কবির জানিয়েছেন, তিনি কোনো রোগীকে চিকিৎসা প্রদান করেন না। এই প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসা প্রদান করেন ডাক্তার লাল্টু। তিনি রোগীর টেস্টের কাগজে স্বাক্ষর করার কথাও অস্বীকার করেছেন। প্রতিষ্ঠান গ্রামে তার জন্যে তিনি কোনো প্যাথলজিষ্ট রাখেননি বলে জানান। 

এ ব্যাপারে জানতে যশোরের সিভিল সার্জন ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়কে ফোন করলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। 




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft