শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৯
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
যৌন হয়রানীর প্রতিবাদ করায় স্বামী-স্ত্রীকে হাত-পা বেধেঁ চরম নির্যতন
রাজশাহী ব্যুরো :
Published : Wednesday, 30 October, 2019 at 6:38 AM
যৌন হয়রানীর প্রতিবাদ করায় স্বামী-স্ত্রীকে হাত-পা বেধেঁ চরম নির্যতনরাজশাহীর বাগমারার হামিরকুৎসা ইউনিয়নের কোনাবাড়িয়া গ্রামে স্ত্রীকে যৌন হয়রানীর প্রতিবাদ করায় স্বামী দিনমজুর জালাল উদ্দীন (৪২) ও স্ত্রী শাবানা বিবি (৩৩) কে রশি দিয়ে হাত-পা বেধেঁ ও ঝুলিয়ে পিটিয়ে জখম করেছে প্রভাবশালী সেকেন্দার ও জেকের আলীসহ তার লোকজন। খবর পেয়ে বাগমারা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে স্বামী জালাল উদ্দীনকে অজ্ঞান ও স্ত্রী শাবানা বিবিকে ঝুলন্তবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
আহত শাবানা বিবি বাদী হয়ে ৭ জনকে আসামী করে বাগমারা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলা দায়েরের পর থেকেই দিনমজুর জালাল উদ্দীন তার পরিবার নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন বলে মঙ্গলবার তার স্ত্রী শাবানা বিবি বাগমারা প্রেস ক্লাবে এসে সাংবাদিকদের সহযোগীতা কামনা করেছেন।
ভুক্তভোগী নারী শাবানা জানান, গত ২১ অক্টোবর সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজের সময় সেকেন্দার আলী সেকেন (৪৫) ও তার ভাই জেকের আলী (৪২) পর্যায়ক্রমে তার বাড়িতে প্রবেশ করে তাকে যৌন হয়রানীর করে। স্বামী জালাল উদ্দীন বাড়িতে আসলে ঘটনাটি তিনি তাকে জানান। জালাল উদ্দীন অভিযুক্ত সেকেন্দার আলীর বাড়িতে গিয়ে স্ত্রীর যৌন হয়রানীর বিষয়টি জানতে চাইলে বাড়ির লোকজন জালাল উদ্দীনকে রশি দিয়ে বেধেঁ পিটিয়ে জখম করেন। জালাল উদ্দীন চিৎকার দিয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।
বিষয়টি জানতে পেরে স্ত্রী শাবানা বিবি স্বামী জালাল উদ্দীনকে বাঁচানোর জন্য এগিয়ে গেলে সেকেন্দার ও জেকের আলীর নির্দেশে তাদের লোকজন তাকে শ্লীলতাহানী করেন এবং রশি দিয়ে খুটির সঙ্গে বেধেঁ নির্মম ভাবে নির্যাতন করেন।
স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধারে এগিয়ে গেলেও তাদের হাতে থাকার বিভিন্ন ধরনের ধারালো অস্ত্রের কারনে পিছু হটে। এলাকার লোকজন বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনকে জানালে ঘটনাস্থলে চেয়াম্যান যায় এবং তাদেরকে সেকেন ও জেকের দলবল ধাওয়া দিলে চালে যান।
ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিষয়টি বাগমারা থানার পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ঝুলন্ত নারী শাবানা ও অজ্ঞান অবস্থায় তার স্বামী জালাল উদ্দীনকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য বাগমারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। চিকিৎসা শেষ না হতেই প্রভাবশালীরা চিকিৎসকের সাথে যোগসাজসে তিন দিন পর একদিনের চিকিৎসার ছাড়পত্র দিয়ে হাসপাতাল থেকে বিদায় করে দেন।
প্রভাবশালীদের কারনে নির্যাতিতার পরিবারের সদস্যরা বাড়ি ছাড়া। বাচ্চা নিয়ে অন্যের বাড়িতে রয়েছে বলে জানান। লোকজন জানান প্রভাবশালী সেকেন্দার ও জেকের বাড়ির দুই ব্যক্তি পুলিশের উচ্চ পর্যায়ে কর্মরত থাকায় নানা ধরনের অপকর্ম করছে এলাকায়। স্থানীয়রা নির্যাতিতা পরিবারের নির্মম নির্যাতনের বিচার দাবী করেন।
বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ওই ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। এজাহার ভুক্ত এক আসামীকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। বাকীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে তিনি জানিয়েছেন।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft