বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
যশোরের পাঁচ সূর্য সন্তানের শাহাদতবার্ষিকী আজ
জাহাঙ্গীর আলম, মণিরামপুর (যশোর) থেকে :
Published : Wednesday, 23 October, 2019 at 6:07 AM
যশোরের পাঁচ সূর্য সন্তানের শাহাদতবার্ষিকী আজআজ ২৩ অক্টোবর মণিরামপুরে পাকহানাদার বাহিনীর হাতে এদেশের পাঁচ সূর্য সন্তান আসাদ, তোজো, শান্তি, মানিক ও ফজলু শহীদ হন।
১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধচলাকালীন ২৩ অক্টোবর সকালে যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রতেœস্বরপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিলেন স্বাধীনতাকামী এ পাঁচ যুবক। কিন্তু পাকহানাদার বাহিনীর দোসর রাজাকারদের চোখ এড়াতে পারেনি তারা। স্থানীয় রাজাকার কমান্ডার আব্দুল মালেক ডাক্তারের নেতৃত্বে মেহের জল¬াদ, ইসাহাক, আব্দুল মজিদসহ বেশ কয়েকজন রাজাকার তাদের আশ্রয়স্থল চারিদিক থেকে ঘিরে ফেলে তাদেরকে আটক করে। এরপর তাদেরকে চোখ বেঁধে চিনাটোলা বাজারের পূর্বপাশে হরিহরনদীর ব্রীজে নেয়া হয়। সেখানে নিয়ে বেয়োনেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে তাদের শরীরে লবণ দেয়াসহ অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়।
ওই নির্যাতনের প্রত্যক্ষদর্শীদের মধ্যে এখনও স্বাক্ষী হিসেবে বেঁচে আছেন চিনাটোলা বাজারে লেবার সরদার শ্যামাপদ নাথ (৬৩)। তিনি এ প্রতিনিধিকে জানান, আমি সে সময় ২৫ থেকে ২৬ বছরের টগবগে যুবক ছিলাম। তখন আমি চিনাটোলা বাজারে মুটেগিরির কাজ করতাম। ওইদিন রাজাকারদের নির্দেশ ছিলো, হরিহরনদীর ওপর ব্রীজ আমাকে পাহারা দিতে হবে। পাহারারত অবস্থায় দেখলাম চোখ বাঁধা মুক্তিসেনা আসাদুজ্জামান আসাদ, তোজো, শান্তি, মানিক ও ফজলুর রহমান ফজলুকে ব্রীজের পাশে আনা হলো। তার কিছুক্ষণ পর রাজাকার কমান্ডারের বাঁশি বেজে উঠার সাথে সাথে গর্জে ওঠে রাইফেল। মুহূর্তের মধ্যে পাঁচ তরতাজা যুবকের নিথরদেহ মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।
সরেজমিনে দেখা যায়, অযতেœ-অবহেলায় পড়ে আছে শহীদদের সেই বধ্যভূমি। শহীদ স্মৃতি সংরক্ষন কমিটির নেতা মাষ্টার সামছুল আলম বলেন, স্বাধীনতার পর শহীদদের স্মৃতি সংরক্ষনের জন্য বামদলের পক্ষ থেকে বধ্যভূমিতে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হয়েছে। যেখানে প্রতিবছর ২৩ অক্টোবর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন ও তাদের জীবনী নিয়ে আলোচনা সভা করা হয়। কিন্তু রাষ্ট্রীয়ভাবে আজ পর্যন্ত শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের কোন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি।
এ ব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ জানান, উল্লে¬¬খিত পাঁচ শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন এবং তাদের কবরসহ উপজেলার সকল শহীদের স্মৃতি ও বদ্ধভূমি সংরক্ষণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে দাবি জানানো হয়েছে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft