বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৯
সম্পাদকীয়
পেঁয়াজের ‘ঝাঁজ’ কমবে কবে?
Published : Friday, 4 October, 2019 at 6:13 AM
রমজান ও কোরবানীর ঈদের আগে সাধারণত পেঁয়াজের দাম উর্ধ্বমুখী থাকে দেশের বাজারে। কিন্তু প্রতিবেশী দেশ ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি সাময়িকভাবে বন্ধ করার ঘোষণা দেয়ায় দাম হঠাৎ করে বেড়ে গেছে।
ভারতে বন্যা ও স্থানীয় বাজারে পেঁয়াজের দামের উর্ধ্বগতির কারণে তারা এমন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বলে দেশটির গণমাধ্যমে জানা গেছে। তবে ভারতের রপ্তানি বন্ধের ঘোষণার পরদিনই বাংলাদেশের বাজারে কেজি প্রতি প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ টাকা বেড়ে যায় পেঁয়াজের দাম।
পেঁয়াজের দাম কেবল খুচরা বাজারে নয়, পাইকারি বাজারেও বেড়েছে। তারপর থেকেই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে অন্যতম প্রধান মসলাদার এই ফসল। এখনও বাজারে প্রতি কেজি দেশীয় পেঁয়াজের দাম ৯০ থেকে ১১০ টাকার মধ্যে ওঠানামা করছে। ভবিষ্যতে আরও বাড়তে পারে, এমন চিন্তায় বাজারে ক্রেতারা ভিড় করলে পেঁয়াজের চাহিদা বেড়ে যায়; সেই সুযোগে বিক্রেতারা ইচ্ছে মতো দাম বাড়িয়ে দিয়েছে বলে অনেকে অভিযোগ করেছেন। বিষয়টি প্রশাসনের নজরে এসেছে বলে গণমাধ্যমে প্রকাশ।
এই অবস্থায় সরকার ইতোমধ্যে নড়েচড়ে বসেছে। মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা থেকে শুরু করে টিসিবির মাধ্যমে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে স্বল্পমূল্যে বিক্রির ব্যবস্থা করেছে। এছাড়া পেঁয়াজ আমদানির অর্থায়নে সুদ কমিয়ে সর্বোচ্চ সুদের হার ৯ শতাংশ বেধে দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এসব ব্যবস্থা গ্রহণ ইতিবাচক। এরপরও কোনো আপদকালীন সময়ে বা উৎসব পার্বণে বাজারে অসাধু ও অতিরিক্ত মুনাফালোভী ব্যবসায়ীদের পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেয়ার এই প্রবণতা নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি বলে আমরা মনে করি।
এটা সত্য যে, দেশে প্রতিবছর যে পরিমাণ পেঁয়াজ উৎপাদন হয় তার চেয়ে ৭ থেকে ৮ লাখ মেট্রিক টনের ঘাটতি রয়েছে। যার বেশিরভাগই প্রতিবেশি দেশ ভারত থেকে আনা হয়। এছাড়া মিয়ানমার ও চীন থেকেও পেঁয়াজ আমদানি করা হয়। প্রতিবছর এভাবেই চাহিদা ও যোগানের সমন্বয় করা হয়ে থাকে।
তবে ভরা মৌসুমে দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম ১০ থেকে ১৫ টাকা থাকলেও কখনো কখনো তা মারাত্মক হারে বেড়ে যায়। এই অবস্থার পরিবর্তনে সারাবছর উৎপাদনসহ আমদানি-মজুদে বিশেষ নজর প্রয়োজন বলে আমরা মনে করি। কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করলে বন্যাসহ বিভিন্ন উৎসব-পার্বণে পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে থাকবে, বিভিন্ন দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষ তা ভেবে দেখবেন বলে আমাদের আশাবাদ। সেই অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্টদের আমরা আহ্বান জানাচ্ছি।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft