রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
অত্যাধুনিক নকশায় ছয় লেনের ব্রিজ হচ্ছে ঝিকরগাছায়
ব্রিজের দু’প্রান্তের সকল সড়ক স্বাভাবিক থাকবে
জাহিদ আহমেদ লিটন :
Published : Sunday, 15 September, 2019 at 6:12 AM
অত্যাধুনিক নকশায় ছয় লেনের ব্রিজ হচ্ছে ঝিকরগাছায় খুলনা বিভাগে এই প্রথম ৬ লেনের ব্রিজ নির্মিত হচ্ছে যশোরের ঝিকরগাছায়। এ অঞ্চলের মানুষের বহু প্রত্যাশিত এ ব্রিজ নির্মাণের কর্মযজ্ঞ ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। সেতু নির্মাণ প্রকল্পে ২.৩২ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। এ জন্য ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে ১৬ কোটি টাকা। আর দেবার জন্য পাইপলাইনে রয়েছে আরো ৭৮ কোটি টাকা। দাতা সংস্থা জাইকার অর্থায়নে ও বাংলাদেশ সড়ক ও জনপথ বিভাগের সহযোগিতায় ক্রস বর্ডার রোড নেটওয়ার্ক ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টের আওতায় ব্রিজটি নির্মিত হচ্ছে।
যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ঝিকরগাছা ব্রিজটি। বেনাপোল বন্দরের সাথে গোটা দেশের যোগাযোগের সংযোগ হিসেবে কাজ করে এ সেতুটি। ঝিকরগাছা উপজেলার কপোতাক্ষ নদের উপর বৃটিশ আমলে সেতুটি নির্মিত হয়। স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে পাক বাহিনীর বোমা হামলায় ব্রিজটির মাঝের অংশ উড়ে যায়। পরবর্তীতে ১৯৭২ সালে ক্ষতিগ্রস্থ অংশ নতুন করে নির্মাণ করা হয়। এরপর কয়েকযুগ অতিবাহিত হওয়ায় সেতুর নীচ থেকে বিভিন্ন স্থান খসে পড়ে যানবাহন চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠে। এরই প্রেক্ষিতে যশোর সড়ক ও জনপথ বিভাগ সেতুটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করে। এসময়ে সড়ক বিভাগ এখানে নতুন সেতু নির্মাণের জন্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি চালাচালি শুরু করে। এক পর্যায়ে সেতুটি পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পে যুক্ত হয়। যেহেতু যশোর-বেনাপোল মহাসড়কটি পদ্মাসেতু নির্মাণ প্রকল্পের সংযোগ সড়ক প্রকল্পে যুক্ত হয়েছে, সেহেতু ঝিকরগাছার এ ব্রিজের নির্মাণ কাজ এ প্রকল্পে যুক্ত হয়েছে। আর গোটা একাজটি চলছে দাতা সংস্থা জাইকার অর্থায়নে এবং বাংলাদেশ সড়ক ও জনপথ বিভাগের সহযোগিতায় ক্রস বর্ডার রোড নেটওয়ার্ক ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টের আওতায়। এ হিসেবে প্রজেক্ট কর্তৃপক্ষ ঝিকরগাছা ব্রিজ নির্মাণের জন্য ৮৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করে। এছাড়া ব্রিজের দু’প্রান্তের জমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত সকল ব্যয়ভার বহন করছে যশোর সড়ক ও জনপথ বিভাগ। আর অধিগ্রহণ তদারকি করছে যশোর জেলা প্রশাসন।
সূত্র জানায়, খুলনা বিভাগে এই প্রথম যশোরের ঝিকরগাছায় ৬ লেন বিশিষ্ট ব্রিজ নির্মাণ হচ্ছে। যা এ অঞ্চলের দৃষ্টি নন্দন সেতু হিসেবে শোভা পাবে বলে নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। ব্রিজটি লম্বা হবে ৩৯৪ ফুট ও চওড়া ১০২ ফুট। যানবাহন চলাচলের জন্য থাকবে ৬টি লেন। এ সেতুর মাঝখানে থাকবে সোয়া ৩ ফুট ডিভাইডার। যা ব্রিজকে দু’ভাগে বিভক্ত করবে। ব্রিজটির একপাশ তিনটি লেনে বিভক্ত থাকবে। এছাড়া, ব্রিজের দুই প্রান্তে ছোট যানবাহন রিকসা-ভ্যান চলাচলের জন্য আলাদা লেন থাকবে। যাতে দ্রুতগামী যানবাহন চলাচলে বাধার সৃষ্টি না হয়। আর ব্রিজের উচ্চতা থাকবে স্বাভাবিক অন্যান্য ব্রিজের মতই। অনেক বেশী উচ্চতায় এটি নির্মিত হচ্ছে না। নদীর পানির গভীর থেকে যে উচ্চতায় সেতু নির্মিত হয়, এটিও তার ব্যতিক্রম হবে না।
সেতু নির্মাণ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ঝিকরগাছা ব্রিজ নির্মাণের জন্য ইতিমধ্যে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। তারা সেতুর নকশাসহ বাজেট ও মাটি পরীক্ষার কাজ সম্পন্ন করেছে। সেতু নির্মাণের জন্য জমি অধিগ্রহণের কাজও শেষের পথে। সেতুর জন্য ঝিকরগাছা কপোতাক্ষ নদের দুই পাড়ের মোট ২.৩২ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। যা তদারকি করছে যশোর সড়ক ও জনপথ বিভাগ এবং জেলা প্রশাসন। ইতিমধ্যে অধিগ্রহণ করা জমির মালিকদের হাতে গত ২২ আগস্ট প্রায় ১৬ কোটি টাকার এলএ চেক বিতরণ করা হয়েছে। আরো ৭৮ কোটি টাকা বিতরণের জন্য জেলা প্রশাসনের পাইপ লাইনে রয়েছে। যা পর্যায়ক্রমে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে বিতরণ করা হবে।
এ ব্যাপারে যশোর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী এসএম মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ঝিকরগাছা ব্রিজটি তাদের প্রকল্প নয়। এটির খানিকটা দেখভাল তারা করছেন। দাতা সংস্থা জাইকার অর্থায়নে ও বাংলাদেশ সড়ক ও জনপথ বিভাগের সহযোগিতায় ক্রস বর্ডার রোড নেটওয়ার্ক ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টের আওতায় ব্রিজটি নির্মিত হচ্ছে। তারা শুধুমাত্র জমি অধিগ্রহণের অর্থের ছাড় দিয়েছে। আর জমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত কাজ করছে জেলা প্রশাসন। এ প্রকল্পের কর্মকর্তারা তাদের কাছ থেকে শুধুমাত্র পরামর্শ নিচ্ছেন বলে তিনি জানান।
ঝিকরগাছা ব্রিজ সম্পর্কে ক্রস বর্ডার রোড নেটওয়ার্ক ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টের ডেপুটি ম্যানেজার সৈয়দ গিয়াস উদ্দীন বলেন, ইতিমধ্যে তারা ব্রিজের নকশা প্রণয়ন ও অনুমোদনসহ মাটি পরীক্ষার কাজ সম্পন্ন করেছেন। চলতি বছরেই তারা ব্রিজ নির্মাণের মূল কাজে হাত দেবেন। সেক্ষেত্রে অধিগ্রহণ করা জমির মালিকরা সরে না গেলে সেখানে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে। তিনি বলেন, স্বাভাবিক উচ্চতায় আধুনিক নকশায় ব্রিজটি নির্মিত হচ্ছে। তবে ক্ষতিগ্রস্ত কেউ কেউ বিভ্রান্তি ছড়ানোর জন্য প্রচার চালাচ্ছে এটি অস্বাভাবিক উচ্চতায় নির্মিত হচ্ছে। এটা হলে ব্রিজের দু’প্রান্তের সড়ক বন্ধ হয়ে যাবে। কিন্তু কোন কিছুই হবে না। সবকিছুই স্বাভাবিক থাকবে। ব্রিজে ওঠা-নামায় সংযোগ সড়ক থাকবে ও পুরানো সড়কগুলোও থাকবে আগের মতোই স্বাভাবিক। আধুনিক এ ব্রিজটি কোন সড়কের প্রতিবন্ধকতা হবে না বলে তিনি জানান।
বিষয়টি নিয়ে কথা হয় ক্রস বর্ডার রোড নেটওয়ার্ক ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টের ম্যানেজার এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ জহিরুল ইসলামের সাথে। তিনি বলেন, এ প্রকল্পের মাধ্যমে যশোরাঞ্চলের দৃশ্যপট বদলে যাবে। ঝিকরগাছার ৬ লেনের ব্রিজটি এ অঞ্চলে প্রথম। এ জাতীয় নকশায় খুলনা বিভাগে আর কোন ব্রিজ নির্মাণ হয়নি। তিনি বলেন, গোটা প্রকল্পের দায়িত্ব তার ওপর। সঠিক ও সুন্দরভাবে যাতে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হয়, তার জন্য তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন।   



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft