বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
অর্থকড়ি
ইলিশের বাজার সিন্ডিকেটের দখলে
ভরা মৌসুমেও কমছে না দাম
কাগজ সংবাদ :
Published : Sunday, 8 September, 2019 at 6:08 AM
ভরা মৌসুমেও কমছে না দামহঠাৎ বেড়েছে ইলিশের দাম। ভরা মৌসুমে দাম বাড়ায় ক্রেতারা হতাশ। বিক্রেতারা বলছেন, চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কম। তবে, ক্রেতাদের বক্তব্য ভিন্ন। তারা বলছেন, পর্যাপ্ত মাছ বাজারে আসলেও কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে দাম বাড়ানো হচ্ছে। মূলত সিন্ডিকেটের কারণে এমনটি হচ্ছে বলে মনে করেন ক্রেতারা। আড়তদাররা বলছেন, বাজারে গত সাতদিনে যে পরিমাণ ইলিশের সরবরাহ ছিল তার তুলনায় বর্তমানে অনেক কম। এ কারণে দাম বেড়েছে ।  
শনিবার ১২টার দিকে যশোরের মাছ বাজারে ছিল উপচেপড়া ভিড়। অন্য মাছের দোকানিরা বেকার বসে থাকলেও ইলিশের দোকান ছিল ভিড়ে ঠাসা। একেতো ইলিশের ভরা মৌসুম, তার উপর শনিবার ছুটির দিন হওয়ায় এ ভিড়। সুযোগ বুঝেই অনেকেই বাড়িতে অলস সময় না কাটিয়ে বাজারের ব্যাগ নিয়ে ছুটেছেন ইলিশ কিনতে।
কিন্তু বাজারে এসে হতাশ হয়েছেন, কারণ পাঁচশ’ টাকার ইলিশের দাম বেড়ে দাঁড়িয়েছে সাতশ’ টাকায়। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি দেড় কেজি ওজনের ইলিশ প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ১৫শ’ থেকে ১৭শ’ টাকায়। যা গত সাতদিন আগেও বিক্রি হয়েছে এক হাজার থেকে ১২শ’ টাকার মধ্যে। তিনটিতে এক কেজি এমন ইলিশ বিক্রি হয়েছে ছয়শ’থেকে সাতশ’৫০ টাকা পর্যন্ত। যা দু’দিন আগেও বিক্রি হয়েছে চারশ’৫০ থেকে পাঁচশ’৫০ টাকায়।    
ছয় থেকে সাতশ’ গ্রাম ওজনের প্রতি কেজি ইলিশ বিক্রি হয়েছে আটশ’ থেকে আটশ’৫০ টাকা পর্যন্ত। যা দু’ তিনদিন আগেও পাঁচশ’৫০ থেকে ছয়শ’ টাকায়, প্রতি কেজিতে পাঁচটি হয় এমন ইলিশ বিক্রি হয়েছে তিনশ’৫০ থেকে চারশ’ টাকায়, আটশ’ গ্রাম ওজনের প্রতি কেজি ইলিশ বিক্রি হয়েছে আটশ’ টাকায়। যা গত সপ্তাহে দুশ’ টাকা কমে বিক্রি হয়েছে। ভরা মৌসুমে দাম বাড়ায় হতাশা প্রকাশ করেন বাজারে আসা অনেক ক্রেতা।
যশোর কাজী নজরুল ইসলাম কলেজের প্রভাষক বিপ্লব রায় বলেন, তিনি গত সপ্তাহে যে ইলিশ পাঁচশ’ টাকায় প্রতি কেজি কিনেছেন তা আজ (শনিবার) বিক্রি হচ্ছে সাতশ’ থেকে সাতশ’৫০ টাকায়। দু’তিন দিনের ব্যবধানে যদি ইলিশের দর এমনভাবে বৃদ্ধি পায় তাহলে তাদের মতো মানুষের পক্ষে কেনা অসম্ভব।
বিপ্লব রায়ের দাবি, ইলিশের ভরা মৌসুম আসলেই একটি অসাধু চক্র ইলিশ মজুদ করে রাখে বেশি দামে বিক্রির আশায়। যার কারণে বাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও কৃত্রিম সংকট তৈরি হয়। এ জন্যে তিনি প্রশাসনের মনিটরিংয়ের অভাবকেই দায়ী করেন। একই সাথে বাজার মনিটরিং নিয়মিত করার দাবি জানান তিনি।  সাধারণ ব্যবসায়ীরা দাম বৃদ্ধির ব্যাপারে তেমন মন্তব্য না করলেও তারা বলেছেন, কাঁচা বাজারের ব্যাপার তো, যে কোনো সময় দাম কম বেশি হতে পারে।
মাছপট্টির পূর্ব পাশে বসে মাছের খোলা বাজার। এখানে তুলনামূলক দাম একটু কম। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মোহাম্মদ সিদ্দিক নামে এক খুচরা বিক্রেতা বলেন, মাছের মূল বাজারে দোকান নিয়ে বসলে খরচ অনেক বেশি হয়। তাই বেশি দামে বিক্রি না করলে লোকসান গুণতে হবে।
শাহীন এম্পোরিয়াম আড়তের আলমগীর হোসেন জানান, ১০দিন আগেই ইলিশের মৌসুম শুরু হয়েছে। এ ক’দিন তিনি ৮০ থেকে একশ’ মণ ইলিশ আড়তে বিক্রি করেন। কিন্তু গত দু’দিন ধরে তিনি ১০ থেকে ১৫ মণ ইলিশ বিক্রি করছেন। তিনি বলেন, চাহিদা অনুযায়ী বাজারে ইলিশের সরবরাহ কম, তাই দাম বেড়েছে।
তিনি বলেন, বাজারে ঢুকলেই সবাই বরিশালের ইলিশ বলে হাক-ডাক করেন। কিন্তু সব ইলিশ বরিশালের না। বরগুনা, কুয়াকাটা, চট্টগ্রাম, বরিশাল, চাঁদপুরসহ বিভিন্ন এলাকার ইলিশ যশোরের বাজারে উঠছে। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft