বুধবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯
জাতীয়
ভাঙনের পথে জাতীয় পার্টি!
ঢাকা অফিস :
Published : Thursday, 5 September, 2019 at 5:12 PM
ভাঙনের পথে জাতীয় পার্টি!দেবর-ভাবির দ্বন্দ্বে ভাঙনের মুখে পড়েছে জাতীয় পার্টি। চেয়ারম্যান পদ নিয়ে পাল্টাপাল্টি ঘোষণা মধ্য দিয়ে এই টানাপোড়েন প্রকাশ্য রূপ লাভ করেছে। এক পক্ষ এরশাদের ভাই জিএম কাদেরকে, আরেক পক্ষ এরশাদপত্নী রওশন এরশাদকে পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা দিয়েছে। ফলে জাতীয় পার্টির ভবিষ্যত কী হতে যাচ্ছে তা অনেকটাই অনুমেয়।
জানা যায়, জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা হুসাইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পরপরই দলটির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা কে হবেন, তা নিয়ে শুরু হয় রশি টানাটানি। এর মধ্যে গত ১৮ জুলাই বনানীতে জাতীয় পার্টির কার্যালয়ে জিএম কাদেরকে দলের নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা দেওয়া দেন মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা। এতে দলে রওশনপন্থী বলে পরিচিত জ্যেষ্ঠ নেতাদের অনেকেই অখুশি হন। এসময় জিএম কাদেরকে চেয়ারম্যান হিসেবে অস্বীকার করে বিবৃতি দেন রওশন এরশাদসহ দলের সাত জন সংসদ সদস্য ও দুই জন প্রেসিডিয়াম সদস্য। যদিও এ নিয়ে তখন বড় ধরনের কোনো দ্বন্দ্ব তৈরি হয়নি।
এর আগে, জিএম কাদের জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও কো-চেয়ারম্যান পদে ছিলেন। এরশাদ মৃত্যুর আগে তাকে পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেন।
পার্টির চেয়ারম্যানের পদ না পেলেও, রওশন অনুসারীরা এরপর থেকেই সংসদের বিরোধীদলীয় নেতার পদ নিয়ে আশায় ছিলেন। কিন্তু এ অবস্থার মধ্যেই গত মঙ্গলবার জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জিএম কাদেরকে বিরোধীদলীয় হিসেবে ঘোষণা করতে স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরীকে চিঠি দেওয়া হয়। দলের ২২ জন সংসদ সদদ্যের মধ্যে ১৫ জন এতে স্বাক্ষরও করেন।
এমন পরিস্থিতিতে গতকাল বুধবার সকালে রওশন এরশাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেন তার অনুসারীরা। এর পরপরই ‘এমন চিঠি দেওয়ার এখতিয়ার জিএম কাদেরের নেই’ বলে সাফ জানিয়ে দেন রওশনপন্থী নেতা আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। এমন কি জিএম কাদেরকে বিরোধীদলীয় নেতা করার প্রস্তাব ঠেকাতে স্পিকারকে পাল্টা চিঠিও দেন তারা
এদিকে বৃহস্পতিবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে রওশন এরশাদকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা দিয়েছেন দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। একই সঙ্গে তিনি আগামী ছয় মাসের মধ্যে কাউন্সিলের ঘোষণাও দিয়েছেন।
চেয়ারম্যান ঘোষণার আগে সংবাদ সম্মেলনে রওশন এরশাদ বলেন, জাতীয় পার্টি কি আবার ভাঙতে যাচ্ছে? অতীতে কিন্তু জাপা ভেঙেছে। আসুন সবাই মিলে পার্টিটাকে ভাঙনের হাত থেকে রক্ষা করি। এরশাদ সাহেব তিলতিল করে পার্টিটাকে কষ্ট করে গড়ে তুলেছেন। এখন সেই পার্টিটাকে ভালো করতে চাই।
সংবাদ সম্মেলনে সিনিয়র নেতাদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন সোহেল রানা, সংসদ সদস্য গোলাম কিবরিয়া টিপু, মজিবুল হক চুন্নু, নাসিম ওসমান, ফখরুল ইমাম, লিয়াকত হোসেন খোকা, নুরুল ইসলাম ওমর, প্রেসিডিয়াম সদস্য এসএম ফয়সল চিশতী, মীর আবদুস সবুর আসুদ ও সফিকুল ইসলাম সেন্টু।
এর আগে, এরশাদের জীবদ্দশাতেই জাপা এরশাদপন্থী ও রওশনপন্থী বলে দুই ভাগে বিভক্ত ছিল। তার মৃত্যুর পর তার অনুসারীরা জিএম কাদেরপন্থী নামে পরিচিতি পান। এরশাদের মৃত্যুতে রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচন নিয়েও অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব রয়েছে জাপায়। রওশনপন্থীরা চান এ আসনে এরশাদের পুত্র রাহগির আল মাহিরকে (সাদ এরশাদ) প্রার্থী করতে। অন্যদিকে, জিএম কাদেরপন্থীরা চান এরশাদের ছোট ভাইয়ের ছেলেকে প্রার্থী করতে।
প্রসঙ্গত, এরশাদ বেঁচে থাকা অবস্থায় জাতীয় পার্টিতে একাধিক ভাঙ্গন হয়েছে। দল থেকে বেরিয়ে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু গঠন করেছেন জাতীয় পার্টি(জেপি), সাবেক মহাসচিব মরহুম নাজিউর রহমান মঞ্জু ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফর আহমদ গঠন করেছিলেন পৃথক পৃথক জাতীয় পার্টি।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft