বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯
জাতীয়
অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকারীদের কোনভাবেই ছাড় দেয়া হবেনা : পানিসম্পদ উপমন্ত্রী
শামছউদ্দিন সায়েম, টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি :
Published : Monday, 2 September, 2019 at 5:39 PM
অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকারীদের কোনভাবেই ছাড় দেয়া হবেনা : পানিসম্পদ উপমন্ত্রী পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম বলেছেন নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকারীদের কোনভাবেই ছাড় দেয়া হবেনা। এক্ষেত্রে দলীয় কোন পরিচয় বিবেচনা করা হবেনা। সোমবার সকালে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বংশাই নদীর ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় মন্ত্রী বলেন, ভাঙনকবলিত ওই সকল এলাকার ভাঙনরোধে চলতি বছরই ১১৫ কোটি টাকার ডিপিপি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। এছাড়া ৪শ কোটি টাকা ব্যয়ে বংশাই নদীতে ড্রেজিং করা হবে।
এসময় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. একাব্বর হোসেন এমপি, পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৌশলী উকিল বিশ্বাস, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম, মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল মালেক, সহকারী পুলিশ সুপার মির্জাপুর সার্কেল দীপঙ্কর ঘোষ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
সকাল নয়টায় উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম মির্জাপুর উপজেলা পরিষদ চত্বরে পৌছালে সেখানে তাকে স্বাগত জানান স্থানীয় এমপি মো. একাব্বর হোসেন, টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল মালেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সায়েদুর রহমান প্রমুখ। এ সময় উপমন্ত্রী উপজেলা পরিষদ চত্বরে স্থাপিত মুক্তির মঞ্চে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পন করেন।
সকাল দশটার দিকে উপমন্ত্রী ইঞ্জিন চালিত নৌকা যোগে বংশাই নদীর ভাঙন কবলিত লতিফপুর ইউনিয়নের যোগীরকোফা, ত্রিমোহন, ফতেপুর ই্উনিয়নের থলপাড়া, ফতেপুর, সুতানরি, বানকাটা পারদিঘী বহুরিয়া ইউনিয়নের বুধিরপাড়া, কেশবপুর এলাকা পরিদর্শন করেন। পরে ফতেপুর ইউনিয়নের একটাকার বাজার এলাকায় উপমন্ত্রী সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।  
উপমন্ত্রী বলেন, সরকার সারাদেশে নদী ভাঙন কবলিত এলাকা চিহ্নিত করে সেদিকে বিশেষ নজর দিয়েছে। ভাঙন কবলিত এলাকার মানুষের কথা চিন্তা করে ডিপিপি, জিও ডাম্পিং ও নদী ড্রেজিংসহ বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে।
উপমন্ত্রী এ সময় আরও জানান, মির্জাপুরের বংশাই নদীর লতিফপুর ইউনিয়নের যোগীরকোফা, ত্রিমোহন, ফতেপুর ই্উনিয়নের থলপাড়া, ফতেপুর, সুতানরি, বানকাটা পারদিঘী বহুরিয়া ইউনিয়নের বুধিরপাড়া, কেশবপুর এলাকার ভাঙনরোধে ১১৫ কোটি টাকার ডিপিপি প্রকল্পের কাজ চলতি বছরই বাস্তবায়ন করা হবে। এছাড়া  ৪শ কোটি টাকা ব্যয়ে বংশাই নদীতে ড্রেজিং করা হবে। যে এলাকার অবস্থা বেশি ভাঙন কবলিত সেখানে দ্রুত ডাম্পিং শুরু করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে তিনি বলেন।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft