রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
সাংবাদিকদের সাথে তত্ত্বাবধায়কের মতবিনিময়
যশোরে ডেঙ্গু পরিস্থিতি অপরিবর্তিত
কাগজ সংবাদ :
Published : Tuesday, 27 August, 2019 at 6:59 AM
যশোরে ডেঙ্গু পরিস্থিতি অপরিবর্তিতযশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডেঙ্গু পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ২৯ নতুন রোগী। সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভর্তি হয়েছে ১৬ জন ও ছাড়পত্র নিয়েছে ২১ জন। ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা ১১৬ জন। এখনো পর্যন্ত সরকারি এই হাসপাতাল থেকে ৬৩৬ জন রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন। আর সুস্থ হয়ে ছাড়পত্র নিয়ে গেছে ৫২০ জন। তবে এখানে চিকিৎসাধীন কোনো রোগীর মৃত্যু হয়নি।
সোমবার দুপুর ১২টায় হাসপাতালের সভাকক্ষে বর্তমান ডেঙ্গু পরিস্থিতি ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের উদ্যোগ তুলে ধরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার আবুল কালাম আজাদ লিটু এসব তথ্য তুলে ধরেন।
তিনি আরো বলেন, যশোরের সর্বস্তরের জনগণ ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তদের জন্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। যার জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছে। এ পর্যন্ত সরকারি ডেঙ্গু প্রতিরোধে ১০ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছে। তবে সরকারি অনুদানের আগেই যশোরের মানুষ ডেঙ্গু জ্বরে আাক্রান্তদের জন্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন।
তিনি জানান, যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ দু’লাখ, যশোর নাগরিক আন্দোলন কমিটি ২৫ হাজার টাকা অনুদান দিয়েছে। এছাড়া, যশোর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার দুইশ, পৌর মেয়র পাঁচশ, বিএমএ যশোর শাখা একশ, ডেন্টাল সার্জন ফোরাম একশ, জেলা সিভিল সার্জন অফিস ৮০ ও হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের নিজ তহবিল থেকে একশ’ ৩০ পিস ডেঙ্গু জ্বর পরীক্ষার ডিভাইস পেয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বিভিন্ন মাধ্যমে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ৪০২০ পিস ডিভাইস পেয়েছে। এখনো পর্যন্ত হাসপাতালে ২২০৯ পিস ডিভাইস সংরক্ষিত আছে। যা রোগীদের প্রয়োজনে বিনামূল্যে সরবরাহ করা হবে।
ডা. আবুল কালাম আজাদ লিটু বলেন, ডেঙ্গুসহ সকল রোগীর সুচিকিৎসা দিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সব সময় কাজ করে যাচ্ছে। হাসপাতাল থেকে দালাল নির্মুল করতে তিনি সব সময় কাজ করে যাচ্ছেন। ওয়ার্ডে রোগীর স্বজনদের ভিড় কমাতে হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটিতে সিদ্ধান্ত নিয়ে হয় একজন রোগীর সাথে দু’টি করে পাস পাবেন। ওই পাসে দু’জন করে রোগীর স্বজন সাথে থাকতে পারবেন। ইতিমধ্যে চারশ’ পাস করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সাড়ে তিন শ’ পাস হাসপাতাল থেকে হারিয়ে গেছে। রোগী আসামাত্র জরুরি বিভাগ থেকে পাস সরবরাহ করা হয়। কিন্তু রোগী বাড়ি যাওয়ার সময় ওই পাস জমা না দিয়ে বাড়িতে নিয়ে চলে গেছে।
মতবিনিময় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডাক্তার আব্দুর রহিম মোড়ল, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাক্তার আরিফ আহমেদ ও যশোরের গণমাধ্যমকর্মীরা।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft