শনিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৯
সম্পাদকীয়
আজ পবিত্র হজ
Published : Saturday, 10 August, 2019 at 6:05 AM
আজ পবিত্র হজ। বাংলাদেশসহ প্রায় ১৫০টি দেশ থেকে আসা ২৫ লাখের বেশি মুসলমান সমবেত হয়েছেন পবিত্র আরাফাত ময়দানে। হাজিদের উদ্দেশ্যে দুপুরে চলবে দিক নির্দেশনা মূলক খুতবা পাঠ। বিকেলে বিশ্ব শান্তি এবং মুসলিম উম্মাহর কল্যাণ কামনা করে হবে মোনাজাত।বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা লাখ লাখ মুসল্লি মহান আল্লাহ রব্বুল আল আমিনের দরবারে এভাবেই জানান দিচ্ছেন নিজের উপস্থিতি।
এই পৃথিবীর সকল চাহিদা, আকাঙ্খা সব কিছু বিসর্জন দিয়ে পাপ মুক্তির আকুল প্রার্থনা নিয়ে মুমিন মুসলমানরা এখন আরাফাতের ময়দানে।
তাবুর নগরী মিনায় প্রথম দিন অবস্থান করে হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরুর পর হাজিদের গন্তব্য এখন আরাফাতের দিকে। সকালে ফজরের নামাজের পর থেকেই মুসল্লিরা হজের প্রধান আনুষ্ঠানিকতা পালনের জন্য জমায়েত হচ্ছেন পবিত্র আরাফাত ময়দানে। মিনা থেকে আরাফাত ১৪ কিলোমিটার পথ লাব্বায়েক আল্লাহুম্মা লাব্বায়েক ধ্বনিতে মুখরিত এখন। পবিত্র আরাফাত ময়দানেই দিনব্যাপী চলবে হজের মূল আনুষ্ঠানিকতা।
হজ ইসলামের পাঁচটি ভিত্তির একটি। আরবী হজ শব্দের অর্থ ও মর্ম খুবই ব্যাপক এবং বিস্তৃত। শব্দার্থের দিক দিয়ে হজ হলো, কোনো কাজের ইচ্ছা করা বা দৃঢ় সংকল্প গ্রহণ করা। বৈয়াকরণ খলীলের ভাষায়, হজ অর্থ কোনো মহৎ ও বিরাট কাজের জন্য বারবার ইচ্ছা ও সংকল্প করা। ইসলামী শরীয়তের পরিভাষায় হজ হলো, আল্লাহর ঘরের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের উদ্দেশ্যে কতকগুলো বিশেষ ও নির্দিষ্ট কাজের মাধ্যমে আল্লাহর ঘরের জিয়ারতের সংকল্প করা। এ প্রসঙ্গে আল্লামা বদরুদ্দীন আইনী বলেছেন, আল্লাহর ঘরের সম্মান ও মাহাত্ম্য প্রকাশের উদ্দেশ্যে এর জিয়ারতের সংকল্প করাই হলো হজ। পবিত্র কোরআনে আল্লাহপাক বলেছেন, আল্লাহরই জন্য লোকদের কর্তব্য হলো, আল্লাহর ঘরের হজ করাÑসে লোকের জন্য যার সেই পর্যন্ত যাতায়াতের সামর্থ্য আছে। রাসূলে করিম (সা.) হজ ফরজ হওয়ার বিষয়টি ঘোষণা করে বলেছেন, আল্লাহর ঘরের হজ আদায় করো যদি সেখানে যাতায়াতের সামর্থ্য তোমাদের থাকে। হজ, বলাই বাহুল্য, সুপ্রাচীন কাল থেকে এখন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। এর সঙ্গে আদি মানব-মানবী হযরত আদম (আ.) ও মা হাওয়া (আ.), হযরত ইব্রাহীম (আ.), হযরত ইসমাঈল (আ.) ও মহানবী (সা.)-এর স্মৃতি জড়িয়ে আছে। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, মানবজাতির জন্য সর্বপ্রথম যে গৃহ নির্মিত হয় তা তো বাক্কায় (মক্কায়), তা বরকতময় ও বিশ্বজগতের দিশারী। এই গৃহ নির্মাণ করেছিলেন হযরত আদম (আ.)। পরবর্তীকালে হযরত ইব্রাহীম (আ.) তা পুননির্মাণ করেন। কাবাগৃহের ১২ কিলোমিটার দূরে আরাফাত ময়দান। এই ময়দানে হযরত আদম (আ.)-এর সঙ্গে হযরত হাওয়া (আ.)-এর পুনর্মিলন হয়। স্বীয় ভুলের জন্য তিনি আল্লাহর দরবারে মোনাজাত করেন এবং সে মোনাজাত কবুল হয়। হাজীদের এই আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করতে হয়। রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, আরাফাতই তো হজ। যে ব্যক্তি মুজদালিফায় যাপন করা রাতের ফজরের নামাজের পূর্বে এখানে এসে পৌঁছবে, তার হজ পূর্ণ হয়ে গেল। আরাফাত ময়দানে জাবালে রহমত অবস্থিত। এই পর্বতের ওপরে দাঁড়িয়ে মহানবী (সা.) বিদায় হজের ভাষণ দেন। খানায়ে কাবা থেকে মিনার দূরত্ব কয়েক কিলোমিটার। এ প্রান্তরে হজের আগে ও হজের পরে তাঁবুতে অবস্থান করতে হয়। মিনা প্রান্তরে রয়েছে মসজিদে খায়ের, যেখানে আদিকাল থেকে মহানবী (সা.) পর্যন্ত বহু নবী ইবাদত-বন্দেগী করেছেন।
পবিত্র আরাফাত ময়দানে বিদায় হজে ভাষণ দিয়েছিলেন মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া-সাল্লাম। দুপুরে আরাফাত ময়দানের মসজিদে নামিরার মিম্বারে দাঁড়িয়ে সারা দুনিয়ার মুসলমানদের জন্য দিক নির্দেশনা মূলক খুতবা দেয়া হবে।
খুতবা শেষে মুসলিম উম্মার শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে মোনাজাত করা হবে। পবিত্র হজ উপলক্ষে মক্কা, মদিনা, মিনা, আরাফাত ময়দান, মুজদালিফা ও এর আশে পাশের এলাকায় বাড়তি নিরাপত্তা নিয়েছে সৌদী সরকার। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft