বুধবার, ১২ আগস্ট, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
বাবার স্মরণে
নাফি উজ জামান পিয়াল :
Published : Wednesday, 7 August, 2019 at 6:24 AM
বাবার স্মরণেপ্রতিদিন ভোরে সূর্য উঠে, শুরু হয় একটি নতুন দিনের। আবার সন্ধ্যার গোধূলী বেলায় সূর্য যখন অস্ত যায়, তখন দিনটি শেষ হয়ে যায়। এভাবে একটি একটি করে দিন, সপ্তাহ, মাস, বছর চলে যায় মানুষের জীবন থেকে। থেকে যায় কিছু স্মৃতি। যাকে আঁকড়ে ধরে মানুষ বেঁচে থাকে। ঠিক তেমনি বাবার স্মৃতিটুকু আঁকড়ে ধরে বেঁচে আছি।
মাঝে মাঝে এমন একটা সময় সবার জীবনেই আসে, যখন মানুষ সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগে, তখন কারো পরামর্শ খুব জরুরী হয়ে পড়ে। সে সময়ে পাশে দাঁড়ানোর মতো আদর্শ একজন মানুষ হল বাবা। স্বভাবগত গাম্ভীর্যের জন্য বাবার সাথে সবার ঘনিষ্ঠতা একটু কম থাকে। কিন্তু সে মানুষের আমাদের প্রতি ভালোবাসার কোন ঘাটতি থাকে না। শুধু একটু সাহস করে আমাদের প্রথম উদ্যোগটা নিতে হবে তাঁর সান্নিধ্যে যাবার। বাবার মতো বন্ধু পাওয়া সত্যিই দুষ্কর। সে মানুষগুলো ভাগ্যবান, যারা নিজেদের বাবার বন্ধু হতে পারে। কিন্তু নিয়তির নির্মম পরিহাসে আমি হারিয়েছি আমার সেই বন্ধু-আমার বাবাকে।
সময়ের সাথে সাথে চলে যাচ্ছে বাবাকে হারানোর নয়টি বছর। সেই ২০১০ সালের ৭ আগষ্ট থেকে আজ নয়টি বছর বাবাকে ছেড়ে আছি। পৃথিবীতে যাদের বাবা নেই, তারাই একমাত্র বুঝতে পারেন বাবা না থাকার কষ্টটা কতখানি! যেটা আমি বুঝতে পারছি প্রতিটি ক্ষণে ক্ষণে। ব্যক্তিগত জীবনে বাবাকে হারানোর ব্যাথাটা খুব প্রখর হয়ে দাঁড়ায়। বাবা মারা যাবার পরে আমাকে অনেকেই বাবার অভাব পূরণের জন্য স্বান্তনা দিয়েছে সত্যি, কিন্তু বাবা তো বাবাই! তার অভাব পূরণ করার মতো সাধ্য আর অন্য কারো নেই। আমার অনেক বন্ধু আছে, যারা তাদের বাবাকে মটরসাইকেলে বসিয়ে ঘুরতে যায়, আমি সেটা পারি না। মটরসাইকেলের পিছনটা খালিই পড়ে থাকে। কোনো একদিন বাবা আমাকে বলেছিল, আমাদের তো দুইটা সাইকেল আছে, আমরা দুইজন তো একসাথে মাঝে মাঝে ঘুরতে পারি। আমিও বাবার কথায় সম্মতি প্রকাশ করি। কিন্তু ভাগ্যের নির্মমতায় তা আর পূরণ হয়নি। জানি আর কখনো তা পূরণ হবে না! কারণ কিছু কিছু স্বপ্ন হাজার চেষ্টা করলেও তা পূরণ করার সাধ্য মানুষের থাকে না।
মানুষ শুধু সেই স্বপ্নগুলো কল্পনা করতে পারে, কিন্তু বিধাতা যেখানে বাস্তবতার রূপ দেয় না, সেখানে মানুষের আর করার কিছুই থাকে না। বাবা পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে গেছে, যেখান থেকে আর কখনো ফিরে আসবে না। বলবে না আব্বু তোমার জন্য কি নিয়ে আসবো?
জীবনের এই অপূরণীয় ক্ষতি কখনো পূরণ করা সম্ভব হবে না। শুধুমাত্র বাবার স্মৃতি গুলো ধরে রেখে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। কারণ বাবা মারা যাবার কিছুক্ষণ আগেও আমার হাত ধরে বলেছিল, আমি যেখানেই থাকি না কেন, তুমি ভালোভাবে পড়াশুনা করে মানুষের মতো মানুষ হবে। আমি বিশ্বাস করি, বাবা সবসময় আমার সাথেই আছে। ছোট থেকে যেমন বাবা আমাকে পথ চলতে শিখিয়েছিল, তেমনি আজও পথ চলছি বাবার অনুপ্রেরণায়। ভালোবাসি বাবাকে। দোয়া করি বাবাকে আল্লাহ জান্নাত নসিব করুক।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft