বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
খুলনায় ‘শাহিন বাহিনীর’ আতঙ্কে গৃহবন্দি ব্যবসায়ীর পরিবার
কাগজ ডেস্ক :
Published : Tuesday, 6 August, 2019 at 6:17 AM
খুলনায় ‘শাহিন বাহিনীর’ আতঙ্কে গৃহবন্দি ব্যবসায়ীর পরিবারখুলনায় ‘বড় ভাই শাহিন বাহিনীর’ চাঁদার দাবিতে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। এ বাহিনীর লোকজন প্রায় মহানগরীর বিভিন্ন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ভয়ভীতি দেখিয়ে নীরবে চাঁদাবাজি করে আসছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এবার বাহিনীটির আতঙ্কে এক ব্যবসায়ী ও তার পরিবার গৃহবন্দি হয়ে পড়েছেন।
সোমবার (৫ আগস্ট) দুপুরে খুলনা প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এ তথ্য জানান গৃহবন্দি হয়ে পড়া ব্যবসায়ী মো. সাইফুল ইসলাম।
লিখিত বক্তব্যে ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম জানান, সম্প্রতি সময়ে মহানগরীতে ‘বড় ভাই শাহীন’ নামের একজন সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজের আবির্ভাব ঘটেছে। নগরীর বিভিন্ন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ভয়ভীতি দেখিয়ে নীরবে চাঁদাবাজিতে নেমেছে শাহীনসহ তার ক্যাডার বাহিনী। যার শিকার তিনি নিজেও।
সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘চাঁদা না দিয়ে ব্যবসা করতে পারবো না এমন হুমকি ও ফরমান জারি করায় চরম আতঙ্কে বসবাস করছি। শাহীনের সন্ত্রাসী গ্রুপের মধ্যে রফিকুল ইসলাম ওরফে রাঙ্গা রফিক ও সোনাডাঙ্গা বাস টার্মিনাল এলাকার এক সময়ের মূর্তিমান আতঙ্ক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হিরুর অন্যতম সহযোগী রবিউল ইসলামসহ বেশ কয়েকজন রয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘নিজের ও পরিবারের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে আমি শাহীন গ্রুপকে তিন দফায় ৬৪ হাজার টাকা চাঁদা দিয়েছি। গত ১ আগস্ট দুপুর ১২টার দিকে শাহীন আবারও নগরীর ময়লাপোতা মোড়ে তার আড্ডাস্থল সুলতান ভল্কানাইজিং টায়ারের দোকানের ভেতরে নিয়ে আমার কাছে চার লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। পরে সেখান থেকে আমাকে আবার ‘রাঁধুনী হোটেলের’ দোতলায় নিয়ে যায়। এ সময় সন্ধ্যার ভেতরে টাকা না দিলে আমি ও আমার সন্তানদের গুম করে ফেলার হুমকি দেয়। এক পর্যায় আমার কাছে থাকা একটি ফাইল নিয়ে যায় ওই বাহিনীর ক্যাডারেরা। যাতে জমি-জমার কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাগজ ও চেকের মুড়ি ছিল।’
তিনি আরও বলেন, আমি একা থাকায় সেখানে কোনো প্রকার উচ্চবাক্য না করে চলে আসি। এরপর বিষয়টি নিয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন মহলে আলোচনা করে ১ আগস্ট সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় বাহিনীর প্রধান ‘বড় ভাই শাহীনসহ’ ওই গ্রুপের ১০ থেকে ১২ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করি। মামলার ২ নম্বর আসামি মাসুমকে পুলিশ গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করেছে।
এতে ক্ষিপ্ত হয়ে অন্য আসামিরা মামলা তুলে না নিলে আমার ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের ক্ষতি সাধন করে শান্তিতে বসবাসসহ আমার ব্যবসা পরিচালনা করতে দেবে না বলে হুমকি দিয়ে চলেছে। এমতাবস্থায় আমার সন্তানের স্কুলে যাওয়া বন্ধ রয়েছে। এছাড়া ৩ আগস্ট রাতে সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় আমার ও পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে সাধারণ ডায়রি করেছি।
শাহীন একাধিক মামলার আসামি উল্লেখ করে লিখিত বক্তব্যে ব্যবসায়ী সাইফুল জানান, অতীতে এরশাদ শিকদারসহ মৃতপুরী খুলনার অনেক সন্ত্রাসীর পতন হয়েছে। এখন নব্য শাহীন ওরফে বড় ভাই বাহিনীর পতন সময়ের দাবি।
এ সময় তিনি প্রশাসনের কাছে তার ও পরিবারের নিরাপত্তার দাবি জানান।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft