বুধবার, ০৮ এপ্রিল, ২০২০
সারাদেশ
ফটিকছড়ির ইকন হত্যা মামলা পুলিশের সিআইডিতে হস্তান্তরের দাবী
চট্টগ্রাম জেলা প্রতিনিধি :
Published : Sunday, 4 August, 2019 at 3:01 PM
ফটিকছড়ির ইকন হত্যা মামলা পুলিশের সিআইডিতে হস্তান্তরের দাবীচট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে সাব্বির উদ্দীন ইকন (১৭) হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত ও মূল হোতাদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে তার পরিবার। রোববার (৪ আগস্ট) স্থানীয় একটি হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মলনে ইকনের পিতার পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ইকনের বড় বোন জাহিন সোলতানা ইকা।
লিখত বক্তব্যে উল্ল্যেখ করা হয়, আমার ছেলেকে হত্যার রহস্য উদঘাটন, একজন আসামি আটক নিয়ে পুলিশের সংবাদ সম্মেলনের বিষয়টি গণমাধ্যমে আসার পর বিষয়টি আমার নজরে আসে। এতে আমি হতভাগ হই। পুত্র হারানো শোকে বর্তমানে আমি দিশেহারা। সংবাদ সম্মেলনে হত্যাকাণ্ড নিয়ে যে বক্তব্য উপস্থাপন করা হয়েছে সেটা কোনো মতেই বিশ্বাসযোগ্য নয়। যা অগ্রহণযোগ্য। শুধুমাত্র মোবাইলের লোভে প্রধান অভিযুক্ত আসামি আমার পুত্রকে একাই হত্যা করেছে সেটা কিভাবে সম্ভব হলো তা আমার বোধগম্য নয়।
পুলিশ প্রশাসনের কাছে আমার প্রশ্ন, সাধারণত একটি মুরগি জবাই করতেও ২জন লোক লাগে। এক্ষেত্রে একজন কিশোর আরেকজন কিশোরকে ধারালো অস্ত্র কিভাবে একাই হত্যা করল, এটা প্রশ্নবিদ্ধ।
পুলিশ হত্যাকাণ্ডে সুষ্টু তদন্ত না করে প্রধান অভিযুক্তের উপর এককভাবে সম্পূর্ণ হত্যাকান্ডের দায় চাপানো কতটুকু যুক্তিসংগত?
অন্যদিকে প্রধান অভিযুক্তকে ৮দিনের রিমান্ডে আনলেও তাকে পর্যাপ্ত জিজ্ঞাসাবাদ না করে শুধুমাত্র ১দিনের মাথায় পুনরায় জেল হাজতে প্রেরণের বিষয়টি আমার কাছে রহস্যজনক মনে হচ্ছে। আমার ধারনা, ইকন হত্যাকাণ্ডের সাথে আরো একাধিক দুর্বৃত্ত জড়িত ছিল। হত্যাকাণ্ডের প্রায় ১ সপ্তাহ অতিবাহিত হওয়ার পর ও পুলিশি তদন্তে কোনো অগ্রগতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। আমি আমার পুত্র ইকন হত্যাকাণ্ডের আরো অধিকতর তদন্ত এবং হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারীদের গ্রেপ্তার এবং ন্যায় বিচারের সার্থে মামলাটি পুলিশের সিআইডি/ পিবিআইয়ে হস্তান্তর করার জন্য উর্ধ্বতন পুলিশ প্রশানের নিকট আকুল আবেদন জানাচ্ছি।
এ সময় উপস্থীত ছিলেন ইকনের পিতা সাহাব উদ্দীন, মা জেনি আকতার, ভাই সাহান ও  আত্মীয় বেলাল চৌধুরী।
উল্লেখ্য, ফটিকছড়ি বিবিরহাটস্থ চৌধুরী ভবনের বাসিন্দা মো. সাহাব উদ্দীনের পুত্র সাব্বির উদ্দীন ইকন (১৭) গত ২৫ জুলাই বিবিরহাট ২ নম্বর আলী আকবর রোডস্থ হাজারী সাউন্ড থেকে টেলিভিশন মেরামত করতে গেলে নিখোঁজ হয়। নিখোঁজের পর বন্ধু-বান্ধব, আত্বীয়-স্বজনের কাছে তার কোনো খোঁজ না পাওয়ায় তার পিতা সাহাব উদ্দীন ফটিকছড়ি থানায় একটি নিখোঁজ ডায়রি করেন। নিখোঁজের একদিন পর শুক্রবার দুপুর ২টায় চট্টগ্রাম খাগড়াছড়ি সড়কের পাইন্দং নতুন মসজিদ সংলগ্ন আকাশি বাগানে গলা কাটা অবস্থায় তার লাশ দেখতে পায় স্থানীয়রা। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে।
এদিকে গত ৩০ জুলাই ঋণগ্রস্ত বন্ধুর হাতে একটি স্মার্টফোনের জন্য খুন হয়েছে ইকন এমন তথ্য দিয়ে পুলিশ সংবাদ সম্মেলন করে।
এতে লিখিত বক্তব্য রাখেন আতিরিক্ত পুলিশ সুপার, হাটহাজারী সার্কেল আব্দুল্লাহ আল মাসুম। তিনি বলেন, ভিকটিম সাব্বির উদ্দিন ইকনের লাশ উদ্ধারের পর তার বাবা সাহাবুদ্দীন বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলার আলামত ও আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে ঘটনার সঙ্গে জড়িত তনুয় বড়ুয়া তনা (২৩) নামে ২৭ জুলাই একজনকে গ্রেপ্তার করি। সে জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-২  এ ১৬৪ ধারায় জবান বন্দীতে ইকনকে হত্যা করার কথা স্বীকার করেন। সে তার জবানবন্ধীতে বলেন, ইকনের সাথে তার বন্ধুত সম্পর্ক ছিল। সে ঋণগ্রস্ত থাকায় ইকনের স্মাটফোনটির উপর চোখ পড়ে। স্মার্টফোনটি নেওয়ার লোভে ঘটানারদিন ইকনকে সাথে নিয়ে জন্মদিনের কেকে কাটবে বলে একটি ছুরি নেয়। সে ছুরি দিয়ে ইকনকে গলা কেটে হত্যা করে।



আরও খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft