জাতীয়
গণহত্যার অভিযোগে মিয়ানমারের বিচার দাবি সংসদে
কাগজ ডেস্ক :
Published : Tuesday, 12 September, 2017 at 7:56 PM

গণহত্যার অভিযোগে মিয়ানমারের বিচার দাবি সংসদেরোহিঙ্গাদের নির্বিচারে হত্যা ও নিপীড়নের জন্য মিয়ানমারের সরকার ও সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ এনে আন্তজার্তিকভাবে বিচার করার দাবি উঠেছে জাতীয় সংসদে। এই দাবিসহ পুশইন বন্ধ করে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিয়ে নাগরিকত্বের অধিকার দেয়ার আহ্বান জানিয়ে জাতীয় সংসদ সর্বসম্মতভাবে একটি রেজুলেশন গ্রহণ করেছে। এতে মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় পরামর্শদাতা অং সান সু চি নোবলে পুরস্কার ফিরিয়ে নেয়ারও দাবি উঠেছে।
এ রেজুলেশনে মিয়ানমার সরকারের উপর জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক মহলের জোরালো কূটনৈতিক চাপ প্রয়োগের আহ্বান জানানো হয়েছে। রেজুলেশনটি জাতিসংঘ, মিয়ানমারসহ জাতিসংঘের সব সদস্য দেশে প্রেরণ করা হবে।
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদের ১৭তম অধিবেশনে সোমবার রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়ন বন্ধ ও তাদের ফিরিয়ে নিয়ে মিয়ানমারের নাগরিকত্ব প্রদানের বিষয়ে আনীত ডা. দীপু মনির প্রস্তাবের (সাধারণ) ওপর দীর্ঘ আলোচনা শেষে এই রেজুলেশন গৃহীত হয়।
সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ বলেন, রোহিঙ্গাদের আমরা আশ্রয় দিয়েছি মানুষ হিসেবে। মুসলমান হিসেবে নয়। ভারত এই সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
তিনি বলেন, রোহিঙ্গারা আমাদের মেহমান। তবে যেভাবে তারা আসছে, তা আমাদের জন্য মঙ্গল বয়ে আনবে না। ওদের সঙ্গে অস্ত্র চলে আসছে। মাদকও আসছে। এ বিষয়ে সরকারের আরও নজরদারি বাড়ানো উচিত। তাদের একটি জায়গায় রাখা উচিত। পরিচয়পত্র দেয়া উচিত। চিকিৎসা ও খাদ্যের ব্যবস্থা করা উচিত। যদিও সরকার রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। যেসব উদ্যোগ নেয়া হয়েছে এবং হবে এর মাধ্যমে সমাধানের একটি পথ বেরিয়ে আসবে।
রওশন এরশাদ নোবেল বিজয়ী অং সান সুচির সমালোচনা করে বলেন, তিনি কী করে এমন অমানবিক কাজ করতে পারেন।
রোহিঙ্গাদের হত্যাকে গণহত্যা আখ্যা দিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, পৃথিবীর অধিকাংশ দেশ এই জাতিগত নিধনের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। শান্তিতে নোবেল পাওয়া সুচি কী করে এসব মানুষের পাশে দাঁড়াননি।
মইন উদ্দীন খান বাদল আন্তজার্তিকভাবে মিয়ানমার সরকারের বিচার দাবি করে বাংলাদেশ সরকারের উদ্দেশে বলেন, মানবিক কারণে আশ্রয় দিয়েছেন। ঠিক আছে। কিন্তু বাংলাদেশকে বিপদমুক্ত রাখুন। আমরা সংঘাত চাই না।
আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আরাকানে রোহিঙ্গাদের ওপর যে নৃশংসতা হচ্ছে তা মধ্যযুগীয় নৃশংসতাকেও হার মানিয়েছে। সূচির হাতে আজ রক্ত। কেউ যদি মানবতার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় পরবর্তীতে কীভাবে তার পুরস্কার কেড়ে নেয়া যায়, নোবেল কমিটিকে আজ সেটিও ভাবতে হবে।
কক্সবাজারের আওয়ামী লীগের এমপি সায়মুন সারোয়ার কমল বলেন, এই বর্বরোচিত হামলার ঘটনায় আজ বিশ্ববিবেক নাড়া দিয়েছে। অথচ অং সান সূচি নিরব। তখন মানবতার পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন শেখ হাসিনা। সেজন্য শেখ হাসিনা নোবেল পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য।
১৪ দলের শরিক তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী বলেন, ‘৮ থেকে ৯ লাখ রোহিঙ্গা বর্তমানে বাংলাদেশে বসবাস করছেন। জামায়াত যাতে এই রোহিঙ্গাদের নিয়ে ষড়যন্ত্র করতে না পারে, সেজন্য সজাগ থাকতে হবে। বিএনপি রোহিঙ্গাদের নিয়ে এত উত্তেজিত কেন? শেখ হাসিনা আজ বিশ্বনেতায় পরিণত হয়েছেন। শান্তি ও মানবতার জন্য শেখ হাসিনা নোবেল পুরস্কার পেতে পারেন।
শিল্পমন্ত্রী আমীর হোসেন আমু বলেন, রোহিঙ্গাদের হত্যা ইতিহাসের জঘন্যতম গণহত্যা।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : gramerka@gmail.com, editor@gramerkagoj.com
Design and Developed by i2soft