জীবনধারা
যে ১১ টি লক্ষণ বলে আপনার আবেগ সংক্রান্ত বুদ্ধিমত্তার অভাব আছে
কাগজ ডেস্ক :
Published : Saturday, 18 March, 2017 at 7:48 PM
যে ১১ টি লক্ষণ বলে আপনার আবেগ সংক্রান্ত বুদ্ধিমত্তার অভাব আছেপূর্বে বুদ্ধাঙ্ক বা বুদ্ধিমত্তার একক Intelligence quotient (IQ) কেই সাফল্যের প্রধান উৎস হিসেবে দেখা হত। এক দশকের গবেষণার পরে বর্তমানে আবেগ সংক্রান্ত বুদ্ধিমত্তা বা ইমোশনাল ইন্টেলিজেন্স (EQ)কেও গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা হচ্ছে।
মানসিক বুদ্ধিমত্তা অবাস্তব কোন বিষয় নয়। আমরা কীভাবে আমাদের আচরণকে নিয়ন্ত্রণ করি, সামাজিক জটিলতাকে পরিচালনা করি এবং ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত নেই ইতিবাচক ফলাফল অর্জনের জন্য তার উপর প্রভাব ফেলে ই কিউ।
EQ গুরুত্বপূর্ণ হলেও অধরা প্রকৃতির বলে আপনার এটি কী পরিমাণ আছে এবং এর ঘাটতি পূরণের জন্য আপনার কী করা উচিৎ তা নির্ধারণ করাটা বেশ কঠিন। আপনি বৈজ্ঞানিকভাবে যাচাই পরীক্ষা করতে পারেন যা ইমোশনাল ইন্টেলিজেন্স ২.০ বুক এ উল্লেখিত আছে। আপনার ই কিউ সম্পর্কে ধারণা করা যায় আপনার যে আচরণগুলো দেখে সে বিষয়েই জানবো আজকের ফিচারে যা আপনার শুধরানো প্রয়োজন।

১। আপনি খুব সহজেই মানসিক চাপ অনুভব করেন

আপনি যখন আপনার আবেগগুলোকে আবদ্ধ করে রাখেন তখন টেনশন, স্ট্রেস এবং দুশ্চিন্তার মত অস্বস্তিকর অনুভূতিগুলো খুব দ্রুত তৈরি হয়। এই অনুভূতিগুলো মন এবং শরীরের উপর চাপ সৃষ্টি করে। আপনার ই কিউ এর দক্ষতা স্ট্রেসকে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে কঠিন পরিস্থিতিকে চিহ্নিত করে দ্রুত নিয়ন্ত্রণে আনার মাধ্যমে। যারা নিজের এই দক্ষতাকে ব্যবহার  করতে পারেন না তারা তাদের মেজাজকে খুব কমই নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। তাদের দুশ্চিন্তা, বিষণ্ণতা, অপব্যবহার এমনকি আত্মহত্যার চিন্তার মত সমসাগুলোর সম্মুখীন হতে হয় দ্বিগুণ  পরিমাণে।  

২। নিজেকে প্রমাণ করতে সমস্যায় পড়েন

যাদের ই কিউ ভারসাম্যপূর্ণ থাকে তারা বিনয়ী, সহানুভূতিশীল ও দয়াবান হন এবং তাদের নিজেদের প্রকাশ করার ও সীমারেখা নির্ধারণ করার সামর্থ্য থাকে। দ্বন্দ্বকে মোকাবেলা করার জন্য এগুলোর সমন্বয় থাকা জরুরী। যখন মানুষ সীমা লঙ্ঘন করে তখনই তারা আক্রমণাত্মক আচরণ করে। আবেগ বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন মানুষেরা ভারসাম্য বজায় রাখে এবং আবেগিয় প্রতিক্রিয়াকে দূরে রাখে। এর ফলে তারা জটিল ও বিষাক্ত মানুষদের শত্রুতে পরিণত করা ছাড়াই সামলাতে পারে।

৩। আপনার আবেগিয় শব্দভান্ডার কম

সব মানুষেরই আবেগিয় অনুভূতি আছে কিন্তু কম মানুষই তা সঠিকভাবে প্রকাশ করতে পারে। গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, মাত্র ৩৬ শতাংশ মানুষ এটা করতে পারে যা খুবই সমস্যাযুক্ত। কারণ আবেগ ঠিকভাবে প্রকাশিত না হলে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয় এবং অযৌক্তিক ও উল্টো প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। উচ্চ ই কিউ সম্পন্ন মানুষেরা তাদের আবেগের বিষয়ে অভিজ্ঞ থাকে, কারণ তারা অন্যদের বুঝতে পারে এবং তারা অনুভূতির ব্যাপক শব্দ ভান্ডার ব্যবহার করতে পারে। যখন অনেক মানুষই তাদের খারাপ লাগার অনুভূতিকে প্রকাশ করে খারাপ লাগছে বলে তখন EQ সম্পন্ন মানুষ তাদের অনুভূতিকে প্রকাশ করে বিমর্ষ, হতাশ, নিপীড়িত বা উদ্বিগ্ন বলে। যত বেশি সুনির্দিষ্টভাবে আপনি আপনার অনুভূতি প্রকাশ করতে পারবেন তত ভালো ভাবে আপনি প্রকাশ করতে পারবেন যে আপনার কেমন লাগছে। এর ফলে এর কারণ এবং এর ফলে কী করা উচিৎ তা বুঝাটাও সহজ হয়।

৪। দ্রুত অনুমান করেন এবং তা প্রতিহত করেন

যাদের EQ কম তারা খুব দ্রুতই মতামত দেন এবং পক্ষপাত করেন, অর্থাৎ তারা তাদের মতামতের বিষয়ে প্রমাণ জড়ো করে এবং বিপরীত কোন প্রমাণকে উপেক্ষা করে। বেশীরভাগ সময়ই তারা এর সমর্থনে তর্ক করে থাকে। এ ধরনের স্বভাব দল নেতাদের জন্য খুবই বিপদজনক, কারণ এ ধরনের কল্পিত ধারণা সমগ্র দলের কৌশলে পরিণত হয়। EQ সম্পন্ন মানুষেরা জানে যে, প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া আবেগ দ্বারা পরিচালিত হয়। তারা চিন্তা করার জন্য সময় নেয় এবং সম্ভাব্য ফলাফল ও পাল্টা যুক্তিতর্কের বিষয়ে বিবেচনা করে। তারপর তারা সবচেয়ে কার্যকরী উপায়ে উন্নত  ধারণা প্রস্তুত করে এবং অন্যদের সাথে চাহিদা অনুযায়ী যোগাযোগ করে এবং শ্রোতার মতামত ও গ্রহণ করে।

৫। অসন্তোষ পুষে রাখা

অসন্তোষ পুষে রাখার কারণেই নেতিবাচক আবেগ তৈরি হয় বলে স্ট্রেসের প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। এর ফলে শরীরে ‘ফাইট অর ফ্লাইট’ অনুভূতি তৈরি হয়, এটি টিকে  থাকার একটি কৌশল, যখন আপনি কোন ভয়ের মুখোমুখি হন তখন আপনাকে বাধ্য করে দাঁড়াতে এবং যুদ্ধ করতে বা দৌড়াতে। যখন কোন হুমকি আসে তখন টিকে থাকার জন্য এই ধরনের প্রতিক্রিয়া অত্যাবশ্যকীয়, কিন্তু পূর্বের কোন হুমকির কারণে এ ধরনের প্রতিক্রিয়া সময়ের সাথে সাথে স্বাস্থ্যের জন্য বিধ্বংসী পরিণাম ডেকে আনতে পারে। আমেরিকার জর্জিয়ার ইমোরি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা দেখিয়েছেন যে, দীর্ঘদিন যাবৎ মানসিক চাপে ভুগলে উচ্চ রক্তচাপ এবং হৃদরোগ হওয়ার ক্ষেত্রে অবদান রাখে। মনে অসন্তোষ পুষে রাখা অর্থই হচ্ছে আপনি স্ট্রেস পুষে রাখছেন। EQ সম্পন্ন মানুষেরা স্ট্রেসকে এড়িয়ে যেতে পারে। অসন্তোষ দূর করে দিলে তা শুধু আপনাকে ভালো অনুভুতিই দেবে না বরং আপনার স্বাস্থ্যের উন্নতিতেও সাহায্য করবে।

৬। ভুলকে যেতে দেন না

ই কিউ সম্পন্ন মানুষেরা ভুলকে দূরে রাখে কিন্তু তারা ভুলকে ভুলে যায় না। তারা তাদের ভুলকে নিরাপদ দূরত্বে রাখে। তারা ভবিষ্যৎ সাফল্যকে সমন্বয় করতে এবং খাপ খাওয়াতে সক্ষম। ভুলকে নিয়ে দীর্ঘ সময় বাস করলে এটি আপনাকে উদ্বিগ্ন এবং লজ্জিত করবে। যদিও সম্পূর্ণ ভুলে গেলেও তা পুনরায় হতে বাধ্য। ব্যর্থতাকে সাফল্যে রুপান্তর করতে পারার ক্ষমতাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এর মাধ্যমেই প্রতিবার পড়ে যাওয়ার পর ওঠে দাঁড়ানোর প্রবণতা তৈরি হয়।

৭। অন্যরা আপনাকে প্রায়ই ভুল বোঝে  

ই কিউ এর অভাবের কারণে অন্যরা আপনাকে ভুল বোঝে। আপনি মানুষের সম্মুখে ভুল বার্তা প্রকাশ করেন বলে অন্যরা আপনাকে ভুল বোঝে ভাবেন। এমনকি অনুশীলন করলেও আবেগিয় বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন মানুষেরা জানেন যে তারা প্রতিটা ধারনার বিষয়েই সঠিকভাবে যোগাযোগ করতে পারেননা। তারা কী বলছে তা অন্যরা বুঝতে না পারলে তারা ধরতে পারে, তারা তাদের আচরণের সমন্বয় করার চেষ্টা করে এবং অন্যরা যাতে বোঝতে পারে এমন ভাবেই তারা তাদের ধারনাকে প্রকাশ করে।  

৮। আপনি জানেন না কিসে উত্তেজিত হন

প্রত্যেকেরই এমন কিছু বিষয় থাকে যা তাকে উত্তেজিত করে দেয়। পরিস্থিতি অথবা মানুষ যে কোনটিই আপনাকে ঝোঁকের বশে কাজ করতে ঠেলে দেয়। আবেগিয় বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন মানুষেরা তাদের নিজেদের এই বিষয়টি নিয়ে পর্যালোচনা করে এবং এই জ্ঞানকে কাজে লাগায় পরিস্থিতি ও মানুষকে মোকাবেলা করতে।  

৯। রাগেন না

আবেগময় বুদ্ধিমত্তা শুধু চমৎকার একটি বিষয়ই নয়, এটি আপনার আবেগকে নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে সবচেয়ে ভালো ফলাফল অর্জনের ও একটি সম্ভাব্য উপায়। কখনো কখনো আপনি দুঃখিত, হতাশ বা খারাপ অনুভব করেন এটাই স্বাভাবিক। প্রতিনিয়ত  আপনার আবেগের উপর সুখ ও ইতিবাচকতার মুখোশ পরিয়ে রাখাও যথাযথ নয়। ই কিউ সম্পন্ন মানুষেরা তাদের ইতিবাচক ও নেতিবাচক আবেগকে উপযুক্ত পরিস্থিতিতে ইচ্ছাকৃতভাবেই কাজে লাগাতে পারে।  

১০। আপনাকে আবেগ অনুভব করানোর জন্য অন্যদের দোষারোপ করেন

আবেগ ভেতর থেকে আসে। অন্যদের কাজে আপনি কী অনুভব করেন তা প্রকাশ করতে প্রলুব্ধ করে আপনাকে, কিন্তু আপনার আবেগের বিষয়ে আপনার দায়িত্ব নিতে হবে। আপনি যদি না চান তাহলে কেউ আপনাকে কোন অনুভূতি দিতে পারবে না। এ ধরনের চিন্তা শুধু আপনাকে পেছনেই নিয়ে যাবে।

১১। খুব সহজেই বিক্ষুব্ধ হন

আপনার নিজের সম্পর্কে যদি সঠিক ধারণা থাকে তাহলে অন্যরা কী ভাবলো তা  নিয়ে আপনি চিন্তিত হবেন না। আবেগিয় বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন মানুষেরা আত্মবিশ্বাসী এবং খোলা মনের অধিকারী হন বলে তাদের সহ্য ক্ষমতা বেশি থাকে। অন্যরা তাদের  নিয়ে হাসাহাসি করলেও তারা রসিকতা এবং অধঃপতনের মধ্যকার পার্থক্যটা করতে জানেন।  

সমন্বয় করুন   

আপনার EQ পরিবর্তনশীল হয় যা IQ থেকে ভিন্ন। আপনি যদি প্রতিনিয়ত আপনার মস্তিষ্ককে নতুন আবেগিয় বুদ্ধিমত্তার আচরণের অনুশীলন করান তাহলে তা আপনার অভ্যাসে পরিণত করতে একটি নতুন পথ তৈরি হবে। যখন আপনি আপনার নতুন আচরণের ব্যবহার বাড়িয়ে তুলবেন তখন তা আপনার পুরাতন ধ্বংসাত্মক আচরণকে দূর করে দেবে। অল্প সময়ের মধ্যেই আপনি আপনার চারপাশ থেকে সাড়া পাবেন।

সূত্র: হাফিংটন পোষ্ট  



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : gramerka@gmail.com, editor@gramerkagoj.com
Design and Developed by i2soft