ওপার বাংলা
নরেন্দ্র মোদীকে ফের চ্যালেঞ্জ ছুঁড়লেন মমতা !
কাগজ ডেস্ক :
Published : Saturday, 14 January, 2017 at 6:37 PM
নরেন্দ্র মোদীকে ফের চ্যালেঞ্জ ছুঁড়লেন মমতা !প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ফের চ্যালেঞ্জ ছুঁড়লেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, আমাদের সবাইকে গ্রেফতার করুন। আমাকেও করুন। দেখি জেলে কত যায়গা আছে। মানুষ জেল ভেঙে দেবে।
শুক্রবার সন্ধ্যায় একুশতম যাত্রা উৎসবে বারাসতের কাছারী ময়দানের যাত্রা মঞ্চ থেকে এভাবেই প্রধানমন্ত্রীকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়লেন মমতা।
উৎসবের উদ্বোধন ও শিল্পিদের পুরস্কার বিতরণ শেষে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, মোদীর বিরুদ্ধে কার্যত চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে নোটে ছবি চক্রান্তের তত্ব উস্কে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি রোজভ্যালী কাণ্ডে সিপিএম এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের যোগের ব্যাখ্যা দিয়ে কেন্দ্রের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন রাখেন! রোজভ্যালীর সঙ্গে এলআইসির প্যাচআপ আছে কি নেই সেটা জানান।
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বলেন, সিপিএম রোজভ্যালী পার্ক করতে পঁচিশ হাজার টাকায় জমি দিয়েছে। এখানে সুনীল আছে (বারাসত পুরসভার চেয়ারম্যান)। সে জমি দেয়নি। তাপস পাল শিল্পী। সুদীপ কিছুই জানেনা। নোট বাতিলের বিরোধিতা করায় তাদের গ্রেফতার করা হলো। অথচ সিপিএম রোজভ্যালী জমি দিয়েও সুজন চক্রবর্তীরা গ্রেফতার হয়নি।
হুংকার দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, মোদি বাবু আমাদের সবাইকে গ্রেফতার করুন। আমাকেও গ্রেফতার করুন। দেখি তোমার জেলে কত জায়গা আছে। মানুষ জেল ভেঙে দেবে।
এরপরই মোদীর বিরুদ্ধে কার্যত নোটে ছবি বদলের চক্রান্ত উস্কে দিয়ে বলেন, গান্ধীজীর চরকায় মোদী বাবু সুতো কাটছেন। পরে দেখবেন নতুন টাকা মোদীর চরকায় সুতো কাটার ছবি দেখা যাচ্ছে। এখন যেমন নতুন দুই হাজার টাকায় মোদীর ভাষণ দেখা যাচ্ছে। আমি দেখেছি।
তিনি বলেন, আমরা এক সাংবাদিককে গ্রেফতার করেছিলাম। দুই বছর পর এখন দেখছি চার্যশিটে তার নাম নেই। ভাষণ শেষে তিনি যাত্রা মঞ্চ থেকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন কেন্দ্রের উদ্দেশে।
মুখ্যমন্ত্রী বলেন, রোজভ্যালীর সঙ্গে এলআইসির কোনো প্যাচআপ আছে কি না? জানতে চাই। আমি তো সবাইকে কি চিনি না। এক সঙ্গে সবাই কোনো মঞ্চে দাঁড়ালে সে যদি কোনো মামলায় ধরা পড়লে আমি দোষী? আমাকে গ্রেফতার সেটাই চলছে। অর্থ দফতরের অধিনে এলআইসি। এলআইসির সঙ্গে রোজভ্যালীর প্যাচআপ আছে বলেই জেনেছি। যদি তাই হয় তাহলে কি অর্থমন্ত্রী এবং প্রধানমন্ত্রী কি গ্রেফতার হবে। আমি ঠিক জানিনা। ভূলও হতে পারি। আমাকে কেউ কেউ বলেছে। তাই আমি প্রশ্নটি রাখলাম।
বিজেপি নেতাদের গ্রেফতার করা নিয়ে এদিন বাজারে ঘুরতে থাকা জল্পনার কার্যত অবসান ঘটিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আমার বিজেপির মতো বিরোধীতা করলে গ্রেফতারের ইন্টারেস্ট নেই। আমি মানুষের জন্য বিরোধীতা করছি।
প্রসঙ্গতঃ এর আগে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, আমরাও পারি বিজেপির অনেক নেতাকে গ্রেফতার করতে। খড়গপুরে তৃণমূলের পার্টি অফিসে ঢুকে গুলি করে তৃণমূল নেতাকে খুনের ঘটনায় জল্পনা আরো তীব্র হয়।
তৃণমূল নেত্রী আচমকাই বলতে শুরু করলেন, জার্মান, চীন ও আমেরিকার সঙ্গে ব্যবসায়ীরা ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে। গ্রামের শিল্পীরা নয়। দোকানে দুই হাজার টাকা নিয়ে গেলে খুচরো হচ্ছে না। সাদা টাকাগুলো সব জমা পড়েছে। কালো টাকা কার?
মোদীকে মুদি সম্বোধন করে বলেন, সুইজারল্যান্ড থেকে কালো টাকা আনতে পারেননি। একশো দিনের কাজের লোক, পেনশন হোল্ডার, চাকরিজীবী ও কৃষকরা চেক নিয়েও টাকা পাচ্ছেন না। কারখানা বন্ধ হচ্ছে। দোকানে লোক নেই। এসব কিন্তু আমি করিনি।
চাষিরা টাকার জন্য বর্ধমানে এক টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কাল যদি দুর্ভিক্ষ বাঁধে তাহলে তো আপনারা পালিয়ে যাবেন। পেটিএম এর মতো কোম্পানিরা বাইরে থেকে এসে সব টাকা লুঠ করে নিয়ে যাবে। ব্যাঙ্ক বাইরের লোকের হাতে তুলে দিলে ফেরত পাবো কি না কেউ যানিনা। এই অবস্থায় যাত্রা শিল্পীরা শঙ্কিত।
শেষে মমতা বলেন, সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তাপস পাল গ্রেফতার। তাপস পালের মতো শিল্পীকে গ্রেফতার করেছে। গান্ধীজীর চরকায় তোমাদের মানায় না। -সংবাদমাধ্যম



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : gramerka@gmail.com, editor@gramerkagoj.com
Design and Developed by i2soft